• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: জুন ১৭, ২০১৯, ০৯:৫৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ১৭, ২০১৯, ০৯:৫৮ পিএম

গফরগাঁওয়ে ২ ভাইকে গাছে বেঁধে নির্যাতন

ময়মনসিংহ সংবাদদাতা
গফরগাঁওয়ে ২ ভাইকে গাছে বেঁধে নির্যাতন

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় দুই সহোদরকে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে। পারিবারিক বিরোধের জের ধরে তাদেরকে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন করা হয়। নির্যাতিত দুই সহোদর ইলিয়াস (২০) ও ইকরাস (২৫) উপজেলার চরমছলন্দ কান্দাপাড়া গ্রামের মোঃ আব্দুল খালেকের ছেলে। খবর পেয়ে থানা পুলিশ নির্যাতিত দুই ভাইকে উদ্ধার করে এবং এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তাদের ভগ্নিপতি আবু সাঈদকে(৩৭) আটক করে থানায় নিয়ে আসে। সোমবার (১৭ জুন) সকালে এ ঘটনায় মামলা করতে গেলে থানা পুলিশ মামলা না নিয়ে নির্যাতিত কলেজছাত্র ইলিয়াসকেও আটক করে থানাহাজতে রেখেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী, থানায় দায়ের করা অভিযোগ ও ভুক্তভোগীদের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, চরমছলন্দ কান্দাপাড়া গ্রামের আব্দুল খালেকের মেয়ে শিউলির সাথে চরমছলন্দ কাচারীপাড়া গ্রামের আছর আলীর ছেলে আবু সাঈদের বিয়ে হয় ১৫ বছর আগে। বিয়ের পর থেকেই শিউলি স্বামীর সংসারে যৌতুকসহ নানা কারণে অত্যাচারিত হন। অত্যাচার সইতে না পেরে গত ৬ মাস পূর্বে শিউলি তিন সন্তানসহ স্বামীর সংসার ত্যাগ করেন। এ ঘটনার জের ধরে উভয় পরিবারের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়।

গত রোববার (১৬ জুন) সকালে ইলিয়াস ও ইকরাস তাদের বাড়ির একটি অনুষ্ঠানের জন্য প্রয়োজনীয় কেনাকাটা করার উদ্দেশ্যে তাদের বোনজামাইয়ের বাড়ির সামনে দিয়ে অটোরিকশাযোগে গফরগাঁও বাজারে যাওয়ার সময় বোনজামাই আবু সাঈদ ও আবু সাঈদের আত্মীয় ইলিয়াস (৩০), রহিম (৪২), হাবিবুর (৩৫), জসিম (৪০), হাফিজ উদ্দিন (৩৬) তাদের অটোরিকশার গতিরোধ করেন। ইলিয়াস ও ইকরাসকে টেনেহিচঁড়ে অটোরিকশা থেকে নামিয়ে তাদের সঙ্গে থাকা নগদ ২০ হাজার টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায়। ইলিয়াস ও ইকরাসকে ধরে আবু সাঈদের বাড়ির ভেতরে নিয়ে একটি কড়ইগাছের সাথে বেঁধে লাঠি দিয়ে বেধড়ক পেটায় একং এলোপাতাড়ি কিলঘুষি মারে।

খবর পেয়ে ইলিয়াস ও ইকরাসের পিতা আব্দুল খালেক এলাকাবাসীকে নিয়ে ঘটনাস্থলে গেলে তারা আব্দুল খালেককেও গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন করে। এলাকাবাসীর চাপে তারা আব্দুল খালেককে ছেড়ে দেয়। আব্দুল খালেকের পরিবারের লোকজন গফরগাঁও থানা পুলিশকে খবর দিলে থানা পুলিশ ইলিয়াস ও ইকরাসকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ সময় বোনজামাই আবু সাঈদ পুলিশের হাতে আটক হন।

রোববার সন্ধ্যায় ইলিয়াস ও ইকরাস থানা থেকে বের হয়ে আসেন। সোমবার সকালে এ ঘটনায় ইলিয়াস থানায় মামলা দায়ের করতে গেলে থানা পুলিশকে ইলিয়াসকে আবার আটক করে থানাহাজতে নিয়ে রাখে।

এ ব্যাপারে গফরগাঁও থানার ওসি আব্দুল আহাদ খান বলেন, ছয় মাস আগের একটি ঘটনায় ইলিয়াসের বোনজামাই আবু সাঈদ ইলিয়াসের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে আবার ইলিয়াসেরও অভিযোগ আছে তার বোন জামাই আবু সাঈদের বিরুদ্ধে। অর্থাৎ দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ আছে। তাই তাদের আটক রাখা হয়েছে।

এনআই