• ঢাকা
  • শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০, ১৫ কার্তিক ১৪২৭
প্রকাশিত: জুন ৩০, ২০১৯, ০৯:৪৩ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ৩০, ২০১৯, ০৯:৪৩ পিএম

কুতুপালংয়ে মার্কিন রাষ্ট্রদূত

মর্যাদা ও নিরাপদে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে কাজ করছে আমেরিকা

উখিয়া (কক্সবাজার) সংবাদদাতা
মর্যাদা ও নিরাপদে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে কাজ করছে আমেরিকা
কুতুপালংয়ে বৈঠক শেষে রোহিঙ্গা নেতাদের সাথে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ছবি : জাগরণ

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার বলেছেন, রোহিঙ্গাদের মর্যাদা ও নিরাপদে রাখাইনে নিজ নিজ বাস্তুভিটায় ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ও বিশ্ব সম্প্রদায়ের সাথে আমেরিকা তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। রোববার (৩০ জুন) দুপুরে মার্কিন রাষ্ট্রদূত কুতুপালং রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শন শেষে রোহিঙ্গা নেতাদের সাথে বৈঠকে উপরোক্ত বক্তব্য দেন।

গত ১০ দিনের মাথায় মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার উখিয়ায় কুতুপালং রোহিঙ্গা মেগা শরণার্থী শিবির পরিদর্শনে আসেন। রোববার দুপুর ১২টার দিকে আমেরিকার রাষ্ট্রদূত কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌঁছান। পরে ইউএসএইড অর্থায়নে পরিচালিত বিভিন্ন সেবাকেন্দ্র ও জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআরের বিভিন্ন স্থাপনা পরিদর্শন করেন রাষ্ট্রদূত।

দুপুর আড়াইটা থেকে বিকেল সাড়ে চারটা পর্যন্ত কুতুপালং নিবন্ধিত শরণার্থী শিবিরের ইউএনএইচসিআরের কমিউনিটি সেন্টারে রোহিঙ্গা নেতাদের সাথে একান্ত বৈঠক করেন। বৈঠকে রোহিঙ্গাদের পক্ষ থেকে তাদের ওপর রাখাইনে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর পরিচালিত নির্মম অত্যাচার, গণহত্যা, ধর্ষণসহ অমানবিক নিপীড়নের বর্ণনা তুলে ধরেন। বর্তমানে রাখাইনে সরকারি বাহিনীর পাশাপাশি বিদ্রোহী আরাকান আর্মির লোকজনও রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছে।

মিয়ানমার এখনো রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে আন্তরিক নয় বলে রোহিঙ্গারা বৈঠকে জানান। কারণ রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে মিয়ানমার আন্তরিক হলে ২০১২ সাল থেকে রাখাইনে ১ লাখ ২৫ হাজার রোহিঙ্গা আইডিপি ক্যাম্পে মানবেতর জীবন কাটাতে বাধ্য হচ্ছে। বৈঠকে রোহিঙ্গারা তাদের নাগরিক অধিকারসহ ন্যূনতম অধিকার ফিরে না পাওয়া পর্যন্ত রাখাইনে ফিরে যেতে রাজি নয় বলে জানান বলে বৈঠকে উপস্থিত রোহিঙ্গা নেতা মাস্টার নুরুল আলম ও মাস্টার রশিদুল্লাহ জানান।

বৈঠকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার বলেন, বাংলাদেশ তাদের দেশে আশ্রয় গ্রহণকারী রোহিঙ্গাদের মর্যাদা ও নিরাপত্তানিশ্চিত করে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে রোহিঙ্গাদের অধিকার প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে জোর কূটনৈতিক তৎপরতা চালাচ্ছে। বাংলাদেশের এ প্রচেষ্টা ও তৎপরতার সাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ণ সমর্থন রয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন বলে রোহিঙ্গা নেতারা জানান। রাষ্ট্রদূত মিলার রোহিঙ্গাদের মানব ও মাদক পাচার থেকে বিরত থাকতে আহ্বান জানান।

বৈঠকে রোহিঙ্গা নেতাদের মধ্যে আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের ভাইস চেয়ারম্যান মাস্টার নুরুল আলম, মাস্টার ইলিয়াস, মাস্টার রশিদুল্লাহ, রোহিঙ্গা রিফিউজি কমিটির সভাপতি মাস্টার সিরাজুল মোস্তফা, ভয়েস অব রোহিঙ্গার চেয়ারম্যান শামসুল আলম, সদস্য নজির আহমদ ও রোহিঙ্গা মহিলা শান্তি কমিটির হামিদা বেগমসহ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ঢাকাস্থ দূতাবাসের কর্মকর্তা ও জাতিসংঘের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গেছে।

এনআই

আরও পড়ুন