• ঢাকা
  • সোমবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৯, ৪ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: আগস্ট ১১, ২০১৯, ০৫:৩৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : আগস্ট ১১, ২০১৯, ০৫:৩৮ পিএম

খাবারে বিষক্রিয়ায় স্কুলছাত্রীর মৃত্যু

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) সংবাদদাতা
খাবারে বিষক্রিয়ায় স্কুলছাত্রীর মৃত্যু

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় খাবার খেয়ে অসুস্থ হয়ে ইমা আক্তার (১৭) নামের এক স্কুলছাত্রী মারা গেছে। একই খাবার খেয়ে ওই ছাত্রীর মা ও বড় ভাই অসুস্থ অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

শনিবার (১০ আগস্ট) উপজেলার ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নের হেলানগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ইমা ওই এলাকার সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসী আব্দুর রহিমের মেয়ে। সে স্থানীয় হিঙ্গাজিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

এদিকে এ ঘটনায় কুলাউড়া থানায় অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ, কুলাউড়া হাসপাতাল কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বাড়িতে প্রবাসী রহিমের স্ত্রী জাহানারা বেগম (৪৫), ছেলে ইমন মিয়া (২০) ও মেয়ে ইমা বসবাস করত। শুক্রবার (৯ আগস্ট) রাতে তারা একসাথে খাবার খায়। এরপর তিনজন বমি শুরু করে। ওই রাতেই স্বজনেরা তাদের কুলাউড়া হাসপাতাল কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। এর মধ্যে ইমা চিকিৎসা না নিয়ে রাতেই বাড়ি ফিরে যায়। ইমার মা ও ভাইকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরদিন শনিবার ইমা আবার অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন স্বজনেরা। এ সময় বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। পরে হাসপাতালে ভর্তি থাকা মা ও ভাই হাসপাতালের কাউকে না জানিয়ে ইমার লাশ বাড়িতে নিয়ে যান। খবর পেয়ে পুলিশ বাড়িতে গিয়ে ইমার লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। এদিকে জাহানারা ও ইমন পুনরায় অসুস্থ হয়ে পড়ায় সকালেই স্বজনেরা তাদের সিলেটে নিয়ে যান।

কুলাউড়া স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোহাম্মদ নুরুল হক বলেন, পরিবারের মা, ছেলে ও মেয়ে তিনজনই বমি করছিল। এর সাথে তাদের মাথাব্যথাও ছিল। ইমা চিকিৎসা না নিয়ে বাড়ি ফিরে যায়। খাবারে বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে তারা অসুস্থ হতে পারে বলে প্রাথমিক ধারণা করা যাচ্ছে। তবে কী ধরনের বিষ তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া বলা সম্ভব নয়।

কুলাউড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সঞ্জয় চক্রবর্তী বলেন, ইমার লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির সময় শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়নি। ময়নাতদন্তের জন্য ইমার লাশ মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এনআই

আরও পড়ুন