• ঢাকা
  • সোমবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬
Bongosoft Ltd.
প্রকাশিত: আগস্ট ১৩, ২০১৯, ০২:১৯ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : আগস্ট ১৩, ২০১৯, ০২:১৯ পিএম

মাঝ পদ্মায় স্পিডবোট ডুবে শিশু নিখোঁজ

মুন্সীগঞ্জ সংবাদদাতা
মাঝ পদ্মায় স্পিডবোট ডুবে শিশু নিখোঁজ
নিখোঁজ শিশু দীন ইসলামের বোন ও বাবার বুকফাটা আর্তনাদ  -  ছবি : জাগরণ

মাঝ পদ্মায় ইঞ্জিন বিকল হয়ে মুন্সীগঞ্জের কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌ-রুটের লৌহজং টার্নিং পয়েন্টে ২০ যাত্রী নিয়ে একটি স্পিডবোট ডুবে গেছে। এ ঘটনায় কাছাকাছি থাকা অপর আরেকটি স্পিডবোট ১৯ যাত্রীকে উদ্ধার করতে পারলেও হলেও দীন ইসলাম (৮) নামের এক শিশু নিখোঁজ রয়েছে।

মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ঘটনার পরপরই নৌরুটটিতে লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে সীমিত আকারে ফেরি চলাচল করছে।

বিআইডব্লিউটিসির কাঁঠালবাড়ী ঘাট সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকালে শিমুলিয়া ঘাট থেকে ২০ জন যাত্রী নিয়ে একটি স্পিডবোট কাঁঠালবাড়ী ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। মাঝ পদ্মায় পৌঁছালে স্পিডবোটটির ইঞ্জিন বিকল হয়ে ঢেউয়ের ধাক্কায় উল্টে যায়।

নিখোঁজ শিশু দীন ইসলামকে উদ্ধার করতে সেনাবাহিনীর অভিযান  -  ছবি : জাগরণ

নিখোঁজ দীন ইসলামের বোন মিম আক্তার বলে, ‘ঢাকার মিরপুর-১২ নম্বর থেকে বাবা ও আমরা তিন ভাইবোন শিমুলিয়া ঘাটে স্পিডবোটে উঠি। স্পিডবোটটিতে তখনো পানি ভর্তি ছিল। যাত্রীরা বলার পরও স্পিডবোট ছেড়ে যায়। পরে মাঝ পদ্মায় উল্টে গেলে আমার ভাইকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি।’

লৌহজং উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ কাবিরুল ইসলাম খান জানান, স্পিডবোটে থাকা সব যাত্রীকে উদ্ধার করা হলেও একজন নিখোঁজ রয়েছে। বর্তমানে স্থানীয় প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস, সেনাবাহিনী ও কোস্টগার্ড নিখোঁজ শিশুটিকে উদ্ধারের কাজ করছে।

মাওয়া নৌফাঁড়ি পুলিশের ইনচার্জ আমিনুল ইসলাম জানান, স্পিডবোটে ২০ জন যাত্রী ছিল। একজন নিখোঁজ রয়েছে, বাকিদের অক্ষত উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজ শিশুকে উদ্ধারে অভিযান চলছে।

এনআই

আরও পড়ুন

Islami Bank
ASUS GLOBAL BRAND