• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০১৯, ৮ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯, ০৮:০৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯, ০৮:০৪ পিএম

নিরাপত্তা চেয়ে সিলেটের ৫৬ টেলিভিশন সাংবাদিকের জিডি

সিলেট প্রতিনিধি
নিরাপত্তা চেয়ে সিলেটের ৫৬ টেলিভিশন সাংবাদিকের জিডি
জিডি করার পর থানা চত্বরে সিলেটের টেলিভিশন সাংবাদিকেরা  -  ছবি : জাগরণ

সিলেটে সাদাপোশাকে এক সাংবাদিককে গ্রেফতারের পর জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে জিডি করেছেন বিভিন্ন টেলিভিশনে কর্মরত ৫৬ জন সাংবাদিক।

রোববার (২২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন সিলেট-এর ব্যানারে সিলেট কোতোয়ালি থানায় এ ডিডি করেন সাংবাদিকরা।

ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন সিলেটের সভাপতি বাপ্পা ঘোষ চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর আহমদ জানান, গত ১৯ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ১০টায় সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এলাকা থেকে অস্ত্রধারী সাদাপোশাকে একদল লোক ইমজার সাবেক সভাপতি ও এনটিভির সিনিয়র করসপন্ডেন্ট মঈনুল হক বুলবুলকে তুলে নিয়ে যায়।

ঘটনার পর থেকে কারা তাকে তুলে নিয়েছে এ বিষয়টি নিশ্চিত হতে সিলেটের টেলিভিশনের সাংবাদিকরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিভিন্ন শাখায় যোগাযোগ করে কোনো তথ্য পাননি। ঘটনার প্রায় দুই ঘণ্টা পর জেলা পুলিশ জানায়, বুলবুলকে একটি মামলার আসামি হিসেবে কানাইঘাট থানার পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

পরিচয় না দিয়ে সাদাপোশাকে গ্রেফতার করার বিষয়ে উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও সিলেটের একজন সিনিয়র সাংবাদিককে এ প্রক্রিয়ায় গ্রেফতারে উদ্বিগ্ন সিলেটে কর্মরত টেলিভিশন সাংবাদিকরা।

এ ঘটনার পুনরাবৃত্তির আশঙ্কায় জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়া সাংবাদিকরা ভবিষ্যৎ নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি করেন।

সিলেট কোতোয়ালি থানার ওসি মো. সেলিম মিয়া জানান, সাংবাদিকরা নিরাপত্তা চেয়ে সাধারণ ডায়েরি করেছেন। পুলিশ জিডি গ্রহণ করেছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ সময় উপন্থিত ছিলেন ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন সিলেটের সভাপতি বাপ্পা ঘোষ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর আহমদ, সাবেক সভাপতি আল-আজাদ, মঈনুল হক বুলবুল, মাহবুবুর রহমান রিপন, আশরাফুল কবির, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মঈন উদ্দিন মনজু, শাহাব উদ্দিন শিহাব, আব্দুল আলিম শাহ, আনিস রহমান, লিটন চৌধুরী, সজল ছত্রী, দেবাশীষ দেবু, ইমজার কোষাধ্যক্ষ মারুফ আহমদ, সহ-সাধারণ সম্পাদক শ্যামানন্দ দাস শ্যামল, বিটিভির সিলেট প্রতিনিধি আজিজ আহমদ সেলিম, সময় টেলিভিশনের চিত্রগ্রাহক দিগেন সিংহ, নওশাদ আহমদ চৌধুরী চ্যানেল ২৪ এর ব্যুরো প্রধান গোলজার আহমদ, ক্যামেরাপারসন দিপক বৈদ্য দিপু, চ্যানেল আই ইউরোপের সিলেট প্রতিনিধি ফয়সল আহমদ মুন্না, আরটিভির সিলেট প্রতিনিধি হোসাইন আহমদ সুজাত, বাংলাটিভির সিলেট প্রতিনিধি কাইয়ুম উল্লাস, ক্যামেরাপারসন এস আলম আলমগীর, এটিএন বাংলা ইউকের সিলেট প্রতিনিধি শফিকুল ইসলাম শফি, ক্যামেরা পারসন রুবেল আহমদ, ইকরা টিভির সিলেট প্রতিনিধি আহমদ সেলিম, এশিয়ান টিভির আবু তাহের চৌধুরী, মোহনা টিভির সিলেট ব্যুরো প্রধান এ এ চৌধুরী শিপার, চ্যানেল এসের ক্যামেরাপারসন রুহিন আহমদ, বেলায়েত হোসেন, মাহমুদুর রহমান মিলন, ডিবিসি টেলিভিশনের সিলেট ব্যুরো প্রধান প্রত্যুষ তালুকদার, ক্যামেরাপারসন হাসান শিকদার সেলিম, চ্যানেল নাইনের ক্যামেরাপারসন শামিম হোসাইন, যমুনা টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার মাইদুল রাসেল, ক্যামেরাপারসন নিরানন্দ পাল, সোহাগ আহমদ, এটিএন নিউজের ক্যামেরাপারসন অনিল পাল, আনন্দ টিভির সিলেট প্রতিনিধি এম আর তালুকদার টুনু, নিউজ টোয়েন্টিফোরের ভিডিওগ্রাফার শফি আহমদ, চ্যানেল আইয়ের সিলেট প্রতিনিধি সাদিকুর রহমান সাকী, ক্যামেরাপারসন সুবর্ণা হামিদ, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের স্টাফ করসপনডেন্ট মাধব কর্মকার, ভিডিওগ্রাফার গোপাল চন্দ্র বর্ধন, ফটোসাংবাদিক শেখ আশরাফুল আলম নাসির, মাছরাঙা টেলিভিশনের ক্যামেরাপারসন শুভ্র দাস রাজন, বাংলাদেশ বেতারের স্পোর্টস করসপনডেন্ট শফিকুর রহমান চৌধুরী, ইমজার সদস্য গাজী জাফর সাদেক ও মুজিবুর রহমান ডালিম।

এনআই

আরও পড়ুন