• ঢাকা
  • শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: নভেম্বর ১১, ২০১৯, ০৬:৪৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ১১, ২০১৯, ০৬:৪৭ পিএম

বুলবুলের তাণ্ডবে বরিশাল জেলায় ৪১০ ঘরবাড়ি ও স্কুল বিধ্বস্ত

বরিশাল সংবাদদাতা
বুলবুলের তাণ্ডবে বরিশাল জেলায় ৪১০ ঘরবাড়ি ও স্কুল বিধ্বস্ত

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে বরিশালের ১০ উপজেলায় ৩ হাজার ৫০টি বসতঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আরও ৬০টি স্কুল ও ১৪২ কিলোমিটার রাস্তা এবং বাঁধ। তবে ঘূর্ণিঝড়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ফসলি জমি-গাছপালা এবং মৎস্য খামারের। মাত্র একদিনের মাত্র ৯ ঘণ্টার ঝড়ে এক লাখ ৬ হাজার হেক্টর ফসলি জমি, ছোট বড় বিভিন্ন প্রজাতের এক লাখ গাছ এবং ৪৩৫টি মৎস্য খামার, ঘের এবং পুকুরের মাছের ক্ষতি হয়েছে।

সোমবার (১১ নভেম্বর) দুপুরে বরিশালের জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রতিবেদনে ক্ষয়ক্ষতির আংশিক এ পরিসংখ্যান তুলে ধরা হয়েছে। তবে পরবর্তীতে এর সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পেতে পারে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘বরিশাল জেলার নদীর তীরবর্তী উপকূলীয় এলাকায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বেশি। সব মিলিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া ঘরবাড়ির মধ্যে সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৫০টি। বাকিগুলো আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

তাছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত এক লাখ ছোট-বড় গাছের মধ্যে আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত গাছের সংখ্যাই বেশি। পাশাপাশি উফশী আমন ধান ১ লাখ হেক্টর, খেসারি ডাল ২ হাজার হেক্টর ও আরও ৪ হাজার হেক্টর অন্যান্য জমির সবজির ক্ষতি হয়েছে।

প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, ‘ক্ষতিগ্রস্ত ৬০টি বিদ্যালয়ের মধ্যে ৫০টি প্রাথমিক এবং বাকি ১০টি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তবে ৬০টি প্রতিষ্ঠানই আংশিক ক্ষতি হয়েছে। তাছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত কাঁচা রাস্তার আয়তন ১২০ কিলোমিটার ও নদীর বাঁধ ২২ কিলোমিটার।

বরিশাল জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান বলেন, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল আঘাত হানার পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে প্রাথমিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। এ নিয়ে মাঠ পর্যায়ে এখনো কাজ চলছে। উপজেলা প্রশাসন তালিকা তৈরি করে তা জেলা প্রশাসন কার্যালয়ে প্রেরণ করছেন।

জেলা প্রশাসক বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বরিশালের উজিরপুরে আশালতা মজুমদার (৬৫) নামের এক নারীর গাছ চাপা পড়ে মারা গেছে। এছাড়া আর কোথাও কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। ঘূর্ণিঝড়ের সময় জেলার ২৩২টি সাইক্লোন শেল্টারসহ ৬৫৫টি আশ্রয় কেন্দ্রে প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছিল। যার মধ্যে নারী ও শিশু ৬১ হাজার এবং পুরুষ ৫৯ হাজার জন।

জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান বলেন, ‘আমরা ক্ষতিগ্রস্ত সকলকেই সহায়তা প্রদানের চেষ্টা করছি। যাদের ঘরবাড়ি ভেঙে গেছে তাদেরকে ঘর নির্মাণের জন্য ঢেউটিন, ত্রাণ সামগ্রী ও কম্বল বিতরণ করা হবে। তবে তার আগে আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নেয়া মানুষের মাঝে শুকনো খাবার দেয়া হয়। এছাড়াও কোন কোন আশ্রয় কেন্দ্রে খিচুরির ব্যবস্থাও ছিল।

কেএসটি

আরও পড়ুন