• ঢাকা
  • রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২, ২০১৯, ০১:০৩ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ডিসেম্বর ২, ২০১৯, ০১:০৩ পিএম

সোনারগাঁয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৫ 

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা     
সোনারগাঁয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৫ 

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে মেঘনা নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলনের টাকা ভাগাভাগিকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে জাকির হোসেন (৩২) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ সময়  উভয় পক্ষের আরও ৫ জন আহত হয়। আহতদের সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে।

রোববার (১ ডিসেম্বর) রাতে বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের আনন্দবাজার আমিরাবাদ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সোনারগাঁ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রাজু মণ্ডল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ময়না তদন্তের জন্য নিহতের লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মর্গে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় সোনারগাঁ থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। নিহত জাকির হোসেন বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের টেকপাড়া আমিরাবাদ গ্রামের মৃত আরজ আলীর ছেলে।

জানা যায়, উপজেলার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নবী হোসেন ও নুর মিয়ার ছেলে আমির হোসেনের নেতৃত্বে দীর্ঘদিন ধরে মেঘনা নদী থেকে  অবৈধ বালু উত্তোলন করছে ২০-২৫ জনের একটি সিন্ডিকেট। এ সিন্ডিকেটের বালু উত্তোলনের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে   রোববার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে নবী হোসেন ও আমির হোসেনের দুই পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের লোকজন আগ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্র, দা, রাম দা, টেঁটা,  বল্লম, লোহার রড, লাঠিসোটা নিয়ে একে অপরের উপর ঝাঁপিয় পড়ে। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে  গোলাগুলি ও কোপাকুপির ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর আহতদের সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নিয়ে যায়।

আহতদের মধ্যে আমির হোসেন পক্ষের মো. জাকির হোসেনকে আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে  গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সংঘর্ষের ঘটনায় টেকপাড়া আমিরাবাদ এলাকার নুর মিয়ার ছেলে আল-আমিন (৩৩), ইয়ানুসের ছেলে আবু হানিফ (৩১) ও আইয়ুব আলী মেম্বারের ছেলে সিরাজ (৩৭)সহ আরো ৫ জন আহত হয়।

নিহত জাকির হোসেনের বড় ভাই মনির হোসেন জানান, বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নবী হোসেন ও আইয়ুব আলী মেম্বারের ছেলে সিরাজের নেতৃত্বে তার ভাই জাকির হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে বিচার দাবি করছি।

অভিযুক্ত বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নবী হোসেনের মোবাইল এ যোগাযোগ করা হলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।      
    
একেএস 


 

আরও পড়ুন