• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৩, ২০২০, ০৪:১০ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ১৩, ২০২০, ০৪:১০ পিএম

গাইবান্ধায় এক কিশোরকে পাশবিক নির্যাতন

গাইবান্ধা সংবাদদাতা
গাইবান্ধায় এক কিশোরকে পাশবিক নির্যাতন

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে গরু চুরির অপবাদ দিয়ে হাত-পা বেঁধে উল্টো করে ঝুলিয়ে রাফিকুল (১৩) নামে এক কিশোরকে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। রাফিকুল বর্তমানে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

নির্যাতনের শিকার রাফিকুল সুন্দরগঞ্জের ধুমাইটারী গ্রামের বাসিন্দা। সে স্থানীয় একটি ইটভাটার শ্রমিক।

জানা গেছে, গত শনিবার (১১ জানুয়ারি) সকালে সুন্দরগঞ্জের ধুমাইটারী গ্রামে এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। পরে এ নির্যাতনের ভিডিওটি অজ্ঞাত এক ব্যক্তির মাধ্যমে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। রোববার (১২ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় নির্যাতনের ভিডিওটি গণমাধ্যমকর্মীদের নজরে এলে তারা ওই পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে।

ভুক্তভোগী কিশোরের স্বজনদের অভিযোগ, প্রতিবেশী ফজলু, ইয়াজল ও নাজমুলের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে তাদের পারিবারিক বিরোধ চলছে। তারা গরু চুরির মিথ্যা অভিযোগে গত শুক্রবার রাতে রাফিকুলকে ঘুম থেকে ডেকে নিয়ে মারধর করে। পরে ছেড়ে দেয়ার জন্য ১০ হাজার টাকা দাবি করে। পরিবারের লোকজন তাৎক্ষণিক ৩ হাজার টাকা দেয়ার পরও তারা রাফিকুলকে রাতভর আটক রেখে মারধর করে। পর দিন শনিবার সকালে গ্রামের শত শত নারী-পুরুষের সামনে ফজলু, ইয়াজল ও নাজমুল রশি দিয়ে হাত-পা বেঁধে উল্টো করে ঝুলিয়ে রাফিকুলকে লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি পেটাতে থাকে।

এ ঘটনায় কিশোর রাফিকুলের বড় ভাই রফিকুল ইসলাম জাগরণকে বলেন, ‘গ্রামের এতগুলো মানুষের সামনে রাফিকুলের ওপর এমন পাশবিক নির্যাতন চালালো অথচ কেউ তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলো না। নির্যাতনের একপর্যায়ে রাফিকুল জ্ঞান হারালে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

তিনি আরও বলেন, ঘটনার পর নির্যাতনকারীরা ভয়ভীতি ও হুমকি দেয়ায় আমরা অভিযোগ করতে সাহস পাইনি। অজ্ঞাত একজনের কাছে মোবাইলে ধারণ করা নির্যাতনের ভিডিও দেখে আমি বিষয়টি পুলিশ ও সাংবাদিকদের জানাই।’

এ বিষয়ে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ডা. বিশ্বেশ্বর চন্দ্র বর্মণ বলেন, ‘মারধরের শিকার কিশোরের দুই হাত-পা ও শরীরের বিভিন্ন জায়গায় জখম হয়েছে। তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

এদিকে, ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তরা গা ঢাকা দিয়েছে। এ বিষয়ে অভিযুক্তদের পরিবারের কেউ কথা বলতে রাজি হননি প্রতিবেদকের সঙ্গে।

এ বিষয়ে জেলা পুলিশ সুপার তৌহিদুল ইসলাম জাগরণকে বলেন, ‘ভিডিও দেখে ঘটনা সম্পর্কে অবগত হয়েছি এবং নির্যাতনের শিকার রাফিকুলের ভাই লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ঘটনাটি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।’

টিএফ

আরও পড়ুন