• ঢাকা
  • রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬

জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা

মুজিববর্ষ
প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৭, ২০২০, ১১:৪৩ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ১৭, ২০২০, ১১:৪৯ এএম

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স 

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দিচ্ছেন চিকিৎসা সেবা

গাইবান্ধা সংবাদদাতা
জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দিচ্ছেন চিকিৎসা সেবা

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে ষাটের দশকে নির্মিত ৫০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অবকাঠামো এতই জরাজীর্ণ যে প্রতিনিয়ত ছাদ ও দেয়াল ধসে পড়ছে। সামান্য বৃষ্টি হলে সেসব ফুটা দিয়ে পানিও ঝরছে। গত এক যুগধরে চলছে শুধু জোড়াতালি।

এরইমধ্যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চিকিৎসা সেবা অব্যাহত রেখেছেন চিকৎসক ও নার্স গণ। আর রোগীরাও রোগের দুঃসাহ যন্ত্রণা সহ্য করে আতঙ্ক নিয়েই রোগ থেকে নিরাময় পেতে চিকিৎসা সেবা নিচ্ছেন। 

এই হাসপাতালের অবকাঠামো এতই দুর্বল যে বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মজিদুল ইসলাম দায়িত্ব পালন করার সময় মাথার উপর ছাদের একটি অংশ ধসে পড়ে।

এ সময় অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পান তিনি। সেই সময় হাসপাতালের অপর এক কর্মকর্তা আঘাত প্রাপ্ত হন, তবে তিনিও প্রাণে বেঁচে যান।

স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মজিদুল ইসলাম জানান, এই হাসপাতালের অবকাঠামো এতই ঝুঁকিপূর্ণ যে ব্যবহার অনুপযোগী। এ বিষয়ে অবকাঠামোর বর্ণনা, ছবিসহ ঊর্ধ্বতন কতৃপক্ষের নিকট চিঠি লেখেছি। 

‘ঊর্ধ্বতন কতৃপক্ষ তদন্ত করে ইতিপূর্বে হাসপাতালটি ১০০ শয্যায় রূপান্তর করার ঘোষণা দেন। তবে এখনও তা বাস্তবায়ন হয়নি। ফলে দুর্বল ও ঝুঁকিপূর্ণ ভবনেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। যেকোনো মুহূর্তে ঘটতে পারে প্রাণহানীর মত দুর্ঘটনা।’

সচেতন মহল ঘোষণা কৃত ১০০ শয্যার হাসপাতালের অবকাঠামো বাস্তবায়ন করে বড় দুর্ঘটনা হাত থেকে রক্ষা করতে প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য মন্ত্রীর জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করছেন হাসপাতালের কর্মীরা।

টিএফ