• ঢাকা
  • বুধবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২০, ১৩ কার্তিক ১৪২৭
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০, ০১:৫৯ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০, ০২:০২ পিএম

স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে দলবেধেঁ ধর্ষণ, কে এই রবিউল? 

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা 
স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে দলবেধেঁ ধর্ষণ, কে এই রবিউল? 

সিলেটের এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মীদের মধ্যে দুইজন সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের তারেক ও দিরাইয়ের রবিউল ইসলাম। খোঁজ নিয়ে অভিযুক্ত রবিউলের পরিচয় পাওয়া গেছে। সে উপজেলার জগদল ইউনিয়নের বড় নগদীপুর নয়া বাড়ি গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের পুত্র। রবিউল সিলেট এমসি কলেজে ডিগ্রিতে অধ্যয়নরত। 

জানা গেছে, সে  উক্ত ঘটনায় অঙ্গাঅঙ্গিভাবে সক্রিয় রয়েছে। এছাড়াও ২০১৭ সালে এমসি কলেজ ছাত্রাবাস ভাংচুরের মামলার আসামিও রবিউল।

এদিকে, আলোচিত এই গণধর্ষণের ঘটনার সাথে রবিউলের জড়িত থাকার বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এঘটনায় এলাকার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন তার শাস্তির দাবি জানানোর পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও অনেকেই রবিউলের এই অপকর্মের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বিচার দাবি করছেন।

উল্লেখ্য, শুক্রবার সন্ধ্যায় দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ির এক গৃহবধূ স্বামীকে সাথে নিয়ে এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে বেড়াতে আসে। এসময় ছাত্রলীগকর্মী এম. সাইফুর রহমান ও শাহ মাহবুবুর রহমান রনির নেতৃত্বে স্বামী ও স্ত্রীকে পার্শ্ববর্তী কলেজ ছাত্রাবাসে তুলে নিয়ে যায় আসামীরা। পরে সেখানে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণ করে।

এসময় ছাত্রলীগকর্মীরা ওই বধূর স্বামীর প্রাইভেট কারও ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে স্বামী-স্ত্রী ও তাদের প্রাইভেট কার উদ্ধার করে। পরে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়।ঘটনার পর রাতভর অভিযান চালালেও ধর্ষণ ও অস্ত্র মামলার আসামি সাইফুর ও তার সহেযাগী কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

জাগরণ/পিজে/এমআর