• ঢাকা
  • বুধবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২০, ১৩ কার্তিক ১৪২৭
প্রকাশিত: অক্টোবর ১৫, ২০২০, ১০:৫৭ এএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ১৫, ২০২০, ১০:৫৭ এএম

স্ত্রীর গর্ভপাতে চিকিৎসকের শাস্তি চান স্বামী

চাটমোহর (পাবনা) সংবাদদাতা 
স্ত্রীর গর্ভপাতে চিকিৎসকের শাস্তি চান স্বামী

পাবনার চাটমোহরে স্ত্রীর গর্ভপাত হওয়ায় চিকিৎসক পপি ভৌমিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ী সালাহ উদ্দিন। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তার কাছে লিখিতভাবে এ দাবি জানান তিনি। তার অভিযোগ- পপি ভৌমিকের দেওয়া ব্যবস্থাপত্রের ওষুধ সেবনের কারণেই গর্ভপাতের ঘটনা ঘটেছে। অভিযোগ পাওয়ার পর পপি ভৌমিককে কারণ দর্শাতে বলেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা।

সালাহ উদ্দিনের বাড়ি কুবিরদিয়ার গ্রামে। পপি ভৌমিক চাটমোহর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত আছেন। গত ৪ অক্টোবর সর্দি-কাশির চিকিৎসার জন্য সালাউদ্দিনের স্ত্রীকে ব্যবস্থাপত্র দিয়েছিলেন তিনি। ৭ অক্টোবর আলট্রাসনোগ্রাম রির্পোটে গর্ভে বাচ্চা না থাকার ঘটনাটি ধরা পরে। সালাহ উদ্দিন বলছেন, বহিঃবিভাগ থেকে টিকিট সংগ্রহ করে পপি ভৌমিকের কাছে তার স্ত্রীকে দেখান। স্ত্রী গর্ভবতী, বিষয়টি জানানোও হয়েছিল তাকে। সব কিছু জেনেই ব্যবস্থাপত্র দিয়েছিলেন। ব্যবস্থাপত্রটিতে লেখা ওষুধের মোড়কে লেখা ছিল- গর্ভবর্তীদের সেবন নিষেধ। গর্ভপাতের পরেই লেখাটি দেখেন তিনি। লেখাটি দেখার পরে অসুস্থ হয়ে পড়েন তার স্ত্রী।

বছর ৫ আগে বিয়ে করেন সালাহ উদ্দিন। এটাই ছিল তার স্ত্রীর প্রথম গর্ভধারণ। গর্ভপাত হওয়ার পরে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন এ দম্পতি। সালাউদ্দিন ঢাকায় ব্যবসা করতেন। করোনার পরিস্থিতির প্রথম দিকে ব্যবসা গুটিয়ে বাড়িতে ফিরেছেন।

এ প্রসঙ্গে ডা. পপি ভৌমিক জানান, কামরুন্নাহার নামের ওই রোগী বলেছিলেন তার তিনমাস ধরে পিরিয়ড বন্ধ রয়েছে। আমি আলট্রাসনোগ্রাফি করার পরামর্শ দিয়েছিলাম। কিন্তু সেটা না করেই চলে যান। বিভিন্ন কারণে পিরিয়ড বন্ধ থাকে। আর তিন মাসের বাচ্চা একেবারেই পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যায় না, গর্ভাশয়ে কিছু না কিছু আলামত থাকবেই। কারণ, এ সময়ের মধ্যে বাচ্চার শরীরের বিভিন্ন অংশ গঠন হয়। পরবর্তী  আলট্রাসনোগ্রাফিতে এমন কিছু পাওয়া যায়নি। ওষুধের মোড়কে কোথাও লেখা নেই- ওষুধটি খেলে গর্ভপাত হবে। বিভিন্ন পাশ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে এমন সতর্কতা থাকে। 

তিনি জানান, কারণ দর্শানোর চিঠি পেয়েছি। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ওমর ফারুক বুলবুল সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, অভিযোগ পাওয়ার পর ডা. পপি ভৌমিককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকেও জানানো হয়েছে।

জাগরণ/এমকে/এমআর