• ঢাকা
  • বুধবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২০, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
প্রকাশিত: অক্টোবর ৩১, ২০২০, ১২:০৫ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ৩১, ২০২০, ১২:০৫ পিএম

পাবনায় শিম চাষে কৃষকের ভাগ্য বদল 

চাটমোহর (পাবনা) সংবাদদাতা 
পাবনায় শিম চাষে কৃষকের ভাগ্য বদল 

পাবনায় আগাম জাতের শিম চাষে ভাগ্য ফিরেছে অনেক কৃষকদের। শীতের আগাম সবজি হিসাবে ইতিমধ্যে বাজারে উঠেছে শিম। অটো ও রুপভান নামে দুই রকমের শিমের বেশ ভাল দামও পাচ্ছেন চাষিরা। এখানকার আগাম জাতের এই শিম চলে যাচ্ছে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। তবে এবার হঠাৎ করেই কৃষককে কিছুটা দুশ্চিন্তায় ফেলেছে বৈরী আবহাওয়া। অসময়ের বৃষ্টিতে ফলন কম পাওয়ার শঙ্কা তাদের। তবে কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, পরামর্শ, প্রশিক্ষণ প্রদানসহ সব ধরনের সহযোগিতা নিয়ে চাষিদের পাশে রয়েছেন তারা।

মাঠ জুড়ে সবুজের সমারোহ। তার মাঝে হালকা বেগুনি রঙের ফুল দোলা দেয় কৃষকের মনে। তাইতো নিজের জমিতে পরিচর্যায় ব্যস্ত কৃষক-কৃষাণী। এ চিত্র পাবনার আটঘরিয়া ও ঈশ্বরদী উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়। আর মাঠে মাঠে এখন চলছে আগাম জাতের শিম চাষ। অটো ও রুপভান নামের দুই জাতের আগাম শিম চাষে স্বাবলম্বী হয়েছেন অনেক কৃষক, আবার ভাগ্য ফিরেছে অনেকের। শীতের আগেই শীতের সবজি হিসেবে শিমের চাহিদা থাকায় হাট-বাজারে বরাবরের মতো আগাম জাতের শিমের ভাল দাম পাচ্ছেন চাষিরারা। শুরুতে ৫ হাজার টাকা মন বিক্রি করেছেন। বর্তমানে কিছুটা কমলেও তিন হাজার টাকা মণ বিক্রি হচ্ছে। 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় ও স্থানীয় কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে আটঘরিয়া উপজেলার নাছিরামপুর, রামেশ্বর, কাঁকমাড়ি, কচুয়ারামপুর, দুর্গাপুর, রোকনপুর, খিদিরপুর, পারখিদিরপুর, চাঁদভা, নাদুরিয়া, সড়াবাড়িয়া, কালমনগর, সোনাকান্দর, সঞ্জয়পুর, বাচামারা, হাপানিয়া, বেরুয়ান, কুমারেশ্বর ও লক্ষ্মণপুর গ্রামের বিস্তির্ণ মাঠজুড়ে শিমের আবাদ হচ্ছে। দিগন্ত বিস্তৃত এই শিমক্ষেতের জন্য এলাকার পরিচিতিই বদলে গেছে। লোকমুখে এই এলাকার নাম এখন ‘শিম সাগর’। 

শুক্রবার সকালে সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে শিম তুলতে ব্যতিব্যস্ত দেখা গেছে চাষিদের। ক্ষেতের  পরিচর্যা ও নতুন শিম তুলতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন চাষিরা। শিম বিকিকিনির জন্য গ্রামে গ্রামে বসেছে অস্থায়ী বাজার। এসব বাজার থেকে ইঞ্জিনচালিত নছিমন-করিমন ও ট্রাকবোঝাই শিম যাচ্ছে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন হাটবাজারে। এখানে পাইকারিতে প্রতি কেজি শিম ১০০ থেকে ১২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

খিদিরপুর গ্রামের পাইকারি শিম বাজার থেকে ব্যবসায়ী শুকুর আলী জানান, এই এলাকার শিম ঢাকা, সিলেট, চট্টগ্রাম, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন পাইকারি বাজারে পাঠানো হয়। ইতিমধ্যেই নতুন শিম পাঠানো শুরু  হয়েছে। খুচরা বাজারেও শিমের চাহিদা ও দাম ভালো আছে।

গ্রামের শিমচাষি আলহাজ উদ্দিন ও দেবোত্তর গ্রামের শিমচাষি আবুল কাশেম জানান, এবার শিমের গাছ পুষ্ট হয়েছে। প্রচুর ফুল আসছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ফলন ভালো হবে। আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত জমি থেকে শিম পাওয়া যাবে। তবে কিছুদিনের বৈরী আবহাওয়া দুশিন্তায় ফেলেছে চাষিদের। অসময়ের বৃষ্টিতে ফলন কমে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন তারা।

এ প্রসঙ্গে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক সামছুল আলম জানান, শিমের ফলন বাড়াতে ও পোকা মাকর দমনে চাষিদের পরামর্শ, প্রশিক্ষণ প্রদানসহ নানাভাবে তাদের পাশে রয়েছেন তারা। এবার বৃষ্টিতে ও ফুলে পচন রোগে কিছুটা সমস্যা দেখা দিয়েছে। তারপরও কৃষকরা সচেতন রয়েছে, কৃষি বিভাগ পাশে রয়েছে। কিছুটা ক্ষতি হলেও ভাল দামের কারণে পুষিয়ে নিতে পারবেন কৃষক।

জেলা কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, এবছরে পাবনা জেলায় শিম আবাদ হয়েছে ৩ হাজার ৮শত হেক্টর জমিতে শিম আবাদের লক্ষ্যমাত্র ধরা হয়েছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় ১ লাখ মেট্রিকটন।

জাগরণ/এসআর/এমআর