• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৩, ২০২১, ০৪:৪৫ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ২৩, ২০২১, ০৪:৫১ পিএম

সারা দেশে ‘স্বপ্ননীড়’ পেলেন যারা

সারা দেশে ‘স্বপ্ননীড়’ পেলেন যারা

শনিবার মুজিব বর্ষ উপলক্ষে প্রায় ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবারকে ঘর দেওয়ার কার্যক্রম উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর মধ্য দিয়ে বিশ্বের ইতিহাসে এক অনন্য নজির গড়েছেন তিনি। 

দেশের ৬৪ জেলার ৪৯২ উপজেলার ৬৯ হাজার ৯০৪ পরিবারকে একটি করে ঘর ও ২ শতাংশ করে জমির মালিকানা প্রদান করা হয়েছে, যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘স্বপ্ননীড়’।

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় ৫০ পরিবারের মধ্যে নতুন ঘর ও জমির কাগজ হস্তান্তর করা হয়েছে। উপজেলা পরিষদের হল রুমে শনিবার সকাল ১০টায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের হাতে জমির কাগজ তুলে দেন সংসদ সদস্য মোসলেম উদ্দিন অ্যাডভোকেট।

জয়পুরহাটে ১৬০ পরিবারের মধ্যে জমি ও ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে। জেলার ৫ উপজেলায় মোট ১৬০ পরিবারের মধ্যে নবনির্মিত এসব ঘরের কবুলিয়ত দলিল, নামজারি ও গৃহ প্রদানের সার্টিফিকেট সংবলিত ফোল্ডার হস্তান্তর করা হয়।

মুজিব বর্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে গৃহহীনদের জন্য মৌলভীবাজার সদর উপজেলায় তৈরি হচ্ছে ৪৭৬টি ঘর। পুরো জেলায় ১১২৬টি। শনিবার জেলার ৭ উপজেলায় ৫৪২ পরিবারকে তাদের ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হয়।

সিরাজগঞ্জে ৭৯৬ পরিবার পেল স্বপ্নের সেমিপাকা ঘর। মুজিব বর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে এসব ঘর ও জমি দেওয়া হয়। উল্লেখ্য, ৭৯৬টি পরিবারের মধ্যে ৩৪টি পরিবারকে দলিল হস্তান্তর করা হয়েছে। পরবর্তী সময়ে অবশিষ্ট পরিবারকে দলিল তুলে দেওয়া হবে।  

পটুয়াখালীর দশমিনায় ৫০ গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবার মাথা গোঁজার ঠাঁই হিসেবে সেমিপাকা ঘর উপহার পেয়েছেন।

ফরিদপুরে ৯ উপজেলার ১৪৮০টি সেমিপাকা ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে গৃহহীনদের মধ্যে। চুয়াডাঙ্গায় ১৩৪ পরিবার পেয়েছে একটি করে সেমিপাকা ঘর। মৌলভীবাজারে ৫৪২ গৃহহীন পরিবার পেয়েছে ঘর।

বরিশাল জেলার ১০ উপজেলায় ভূমি ও গৃহহীন ১ হাজার ৯টি পরিবারকে ২ শতাংশ খাসজমিসহ সরকারের দেওয়া নতুন নির্মিত সেমিপাকা ঘরের কাগজপত্র হস্তান্তর করা হয়েছে।  

এ প্রতিবেদনটি তৈরি করতে সহায়তা করেছেন ময়মনসিংহ, জয়পুরহাট, পটুয়াখালী, চুয়াডাঙ্গা মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ, বরিশাল ও সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি।