• ঢাকা
  • শনিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২১, ২৭ চৈত্র ১৪২৭
প্রকাশিত: মার্চ ৮, ২০২১, ০৮:৩০ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মার্চ ৮, ২০২১, ০৮:৩০ পিএম

বিচারকের খাসকামরায় খুন, খুনির মৃত্যুদণ্ড

বিচারকের খাসকামরায় খুন, খুনির মৃত্যুদণ্ড

কুমিল্লায় আদালতে বিচারকের খাস কামরায় ঢুকে ছুরিকাঘাতে ফারুক নামের এক আসামিকে খুনের দায়ে মো. হাসান (২৫) আসামির মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (৮ মার্চ) দুপুরে কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আতাব উল্লাহ এ রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পাওয়া মো. হাসান জেলার লাকসাম উপজেলার ভোজপাড়া গ্রামের লাকসাম উপজেলার ভোজপুর গ্রামের শহিদুল্লাহর ছেলে। রায় ঘোষণার সময় হাসানের স্বজনরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

মামলার অভিযোগ ও আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৯ সালের ১৫ জুলাই দুই আসামি লাকসামের ভোজপুর গ্রামের শহিদুল্লাহর ছেলে মো. হাসান এবং মনোহরগঞ্জ উপজেলার কান্দি গ্রামের অহিদুল্লাহর ছেলে মো. ফারুক অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ তৃতীয় আদালতে হাজিরা দিতে আসেন। তারা জেলার মনোহরগঞ্জ উপজেলার কান্দি গ্রামের হাজী আবদুল করিম হত্যা মামলার আসামি।

এ সময় ফারুককে ছুরি নিয়ে আঘাত করার চেষ্টা করেন হাসান। প্রাণ বাঁচাতে ফারুক বিচারকের খাস কামরায় প্রবেশ করলে সেখানে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে রক্তাক্ত জখম করেন হাসান। পরে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) ফিরোজ আহম্মেদ হাসানকে রক্তমাখা ছুরিসহ আটক করেন। তিনি ঘটনার বাদী হয়ে ওইদিন রাতে ঘাতক হাসানের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে মামলাটি ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়। তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির পরিদর্শক প্রদীপ মন্ডল একই বছরের ২৬ আগস্ট ওই আসামির বিরুদ্ধে কুমিল্লার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালত নং-১ এ চার্জশিট দাখিল করেন।

কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট জহিরুল ইসলাম সেলিম বলেন, কুমিল্লার আদালতে এ হত্যাকাণ্ড ছিল একটি নজিরবিহীন ও একটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা। ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে আসামিকে পুলিশ ছুরিসহ আটক করেছিল। এ রায়ে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা হয়েছে।