• ঢাকা
  • শনিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
প্রকাশিত: অক্টোবর ২২, ২০২১, ১২:২৮ এএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ২২, ২০২১, ১২:৩১ এএম

‘নবী প্রেমের নজরানা পেশ করতে হবে’

‘নবী প্রেমের নজরানা পেশ করতে হবে’
নিজস্ব ছবি

বায়তুশ শরফের পীর আল্লামা মুহাম্মদ আবদুল হাই নদভী  বলেন, নবীজীর প্রতি পরিপূর্ণ ঈমান রাখা ও তাকে নিজের জীবনের চেয়েও বেশি ভালোবাসা ঈমানের পূর্বশর্ত। নবীজির প্রতি ভালোবাসা হতে হবে নিখাদ, নির্ভেজাল। শুধু মুখে মুখে দাবি ওঠালেই প্রকৃত ভালোবাসা হয় না। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে রাসুলের আদর্শ অনুসরণ করে নবী প্রেমের নজরানা পেশ করতে হবে।

তিনি বলেন, রাসুল (সা.)-এর অনুসরণের মধ্য দিয়েই আল্লাহকে ভালোবাসার নিদর্শন সমুজ্জ্বল হয়।

তিনি বলেন, পবিত্র কোরআন ও হাদিসের একাধিক বর্ণনায় মুমিনদের রাসুলের প্রতি অগাধ প্রেম-ভালোবাসা বজায় রাখার কথা বলা হয়েছে। যে হৃদয়ে নবীজির ওপর সম্মানবোধ নেই, মায়া ও অনুভূতির দৈন্যতা রয়েছে, উহাতে ঈমানের অস্তিত্ব থাকতে পারে না। শুধু সম্মানের অনুভূতিই যথেষ্ট নয়, বরং মুমিনরা তাদের স্বীয় জীবনের সঞ্চিত ধন-সম্পদ, পিতা-মাতা, সন্তান-সন্ততি এবং সব কিছুর ওপর আল্লাহর রাসূলকে অগ্রাধিকার দিয়ে থাকেন। তাই প্রিয় নবীর অপমান কোনও মুমিনই নীরবে মেনে নিতে পারেন না।

বায়তুশ শরফ আনজুমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশ আয়োজিত তিনদিনের কর্মসূচির সমাপনী দিবসে ‘আজিমুশশান ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিল’ এ সভাপতির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আহসান উল্লাহ (আহসান সাইয়েদ)।

সম্মানিত অতিথি ছিলেন রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল। মাহফিলে সমাপনী বক্তব্য রাখেন আনজুমানে ইত্তেহাদের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক পটিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইদ্রিস মিয়া।

আজিমুশশান ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিলে তাকরির করেন বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল (অনার্স-মাস্টার্স) মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ড. আল্লামা সাইয়্যেদ মুহাম্মদ আবু নোমান, মজলিসুল উলামার মহাসচিব মুফতি মাওলানা মামুনুর রশিদ নূরী, মাওলানা গাজী আবদুর রাজ্জাক, মুফতি মাওলানা আবু হানিফা মুহাম্মদ নোমান, অধ্যক্ষ মাওলানা আবু সালেহ মুহাম্মদ ছলিমুল্লাহ, মাওলানা মীম ছিদ্দিক ফারুকী, মাওলানা নুরুল আলম ফারুকী, মাওলানা কাজী জাফর আহমদ, মাওলানা তোফায়েল আহমদ, মাওলানা শরীয়ত উল্লাহ জিহাদী, মাওলানা জিয়াউল হক আনছারী, মাওলানা শফিক আহমদ নঈমী, হাফেজ মাওলানা শাহ আলম, মাওলানা মোহাম্মদ মুছা, মাওলানা আবু ছালেহ (প্রবাসী) সহ আরও অনেকে।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন কাজী মাওলানা শিহাব উদ্দিন। 

জাগরণ/এমএ/এমএ