• ঢাকা
  • বুধবার, ০১ ডিসেম্বর, ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
প্রকাশিত: নভেম্বর ১৯, ২০২১, ১১:০৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ১৯, ২০২১, ০৫:০৪ পিএম

পূজামণ্ডপ থেকে কোরআন সহ আটক নোয়াখালীর মিজান

পূজামণ্ডপ থেকে কোরআন সহ আটক নোয়াখালীর মিজান
সংগৃহীত ছবি

হবিগঞ্জ শহরের চৌধুরী বাজার সার্বজনীন দুর্গা পুজা মণ্ডপের পাশে পবিত্র কোরআন হাতে নিয়ে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরার অভিযোগে এক যুবককে আটক করে পুলিশে দিয়েছে জনতা।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) সন্ধ্যায় এই তথ্য জানানা হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজা আক্তার শিমুল।

ওই যুবকের নাম মিজান। সে নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা।

শুক্রবার দুপুরে ধর্মগ্রন্থ পবিত্র কোরআন হাতে নিয়ে সন্দেজনকভাবে ঘোরাফেরার অভিযোগে স্থানীয় লোকজন মিজানকে আটক করেন। পরে তাকে সদর মডেল থানা পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী সানি রায় জানান, শুক্রবার দুপুর থেকে ওই যুবক চৌধুরী বাজার সার্বজনীন পূজা মণ্ডপের চারপাশে ঘোরাফেরা করছিল। এ সময় সেখানকার কয়েকজন লোক সন্দেহজনকভাবে তাকে নজরে রাখে। এক পর্যায়ে ওই যুবক মণ্ডপের পেছন দিকে গেলে স্থানীয় লোকজন তাকে আটক করে। এ সময় তার কাছে থাকা একটি ব্যাগে পবিত্র কোরআন শরীফ পাওয়া যায়।

হবিগঞ্জ জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, ওই যুবক হবিগঞ্জ শহরে অনেক দিন ধরে ঘোরাফেরা করছে। রাস্তায় দাঁড়িয়ে কোরআন তিলাওয়াত করতো। ধারণা করা হচ্ছে সে মানসিক ভারসাম্যহীন। শুক্রবার দুপুরে স্থানীয় মসজিদ থেকে জিলাপি নিয়ে বের হয়। পরে চৌধুরী বাজার এলাকার একটি মন্দিরের পাশের বাসায় খাবার চাইতে গেলে স্থানীয় লোকজন পবিত্র কোরআন সহ তাকে আটক করে পুলিশকে খবর দেন। 

বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানের বরাত দিয়ে পুলিশের এ কর্মকর্তা জানান, মিজান আগে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে অটোরিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতো। কিন্তু মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ার পর থেকে তাকে এলাকায় দেখা যায় নি। সেখান থেকে পাওয়া খবর অনুযায়ী মিজান মানসিক ভারসাম্যহীন ধারণা করা হচ্ছে। সে মাদ্রাসার ছাত্র ছিল।

জাগরণ/এমএ