• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: এপ্রিল ১২, ২০১৯, ০৩:২৬ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ১৩, ২০১৯, ০৯:২৫ পিএম

মকসুদের তথ্যে আটক নুর ও জাবেদ  

শামীম ও কাদেরকে খুঁজছে পিবিআই 

হালিম মোহাম্মদ
শামীম ও কাদেরকে খুঁজছে পিবিআই 
বাঁ দিক থেকে আটক নুর ও জাবেদ


ফেনীর সোনাগাজীর ফাজিল মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাতের ঘাতক শিক্ষার্থী সোনাগাজী পৌরসভার উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের সংশ্লিষ্ট মাদ্রাসার ছাত্র শাহাদাত হোসেন শামীম, হাফেজ আবদুল কাদেরকে খুঁজছেন পিবিআইয়ের গোয়েন্দারা। পিবিআইয়ের পাশাপাশি অন্যান্য বিভাগের আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরাও তাদের গ্রেফতারের জন্য রাজধানীসহ বিভাগীয় শহর চষে বেড়াচ্ছেন। 

শুক্রবার (১২ এপ্রিল) সকালে পিবিআইয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) মো. মনিরুজ্জামান মোবাইল ফোনে এটি নিশ্চিত করেন।

এদিকে, গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর একটি আবাসিক হোটেল থেকে গ্রেফতার করা হয় নুসরাতের ঘাতক সোনাগাজী পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর মকসুদ আলমকে। পিবিআইয়ের গোয়েন্দারা মকসুদকে জিজ্ঞাসাবাদে নুসরাত হত্যাকাণ্ডে ওই মাদ্রাসার ছাত্র শাহাদাত হোসেন শামীম, হাফেজ আবদুল কাদেরের নামসহ এ পরিকল্পিত ঘটনার চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ পেয়েছে। তবে পিবিআইয়ের কর্মকর্তা  ফেনীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) মো. মনিরুজ্জামান মামলার তদন্তের স্বার্থে বিষয়গুলো গোপন রাখতে অনুরোধ করেছেন। 

তিনি বলেন, ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত হত্যা মামলার অন্যতম আসামি সোনাগাজী পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর মোকসুদ আলম ঘটনার পর থেকেই পলাতক ছিলেন। অনেক জায়গায় খোঁজ করা হলেও তিনি ঢাকায় ছিলেন।

আজ সকালে পিবিআইয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা মোবাইল ফোনে জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর ফকিরের পুলের একটি আবাসিক হোটেল থেকে কাউন্সিলর মকসুদ আলমকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পরই তাকে সরাসরি ফেনীতে নিয়ে আসা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদেও পরই বন্দর নগরী চট্টগ্রাম শহর থেকে গ্রেফতার করা হয় মকসুদের সহযোগী ও নুসরাত হত্যায় জড়িত জাবেদকে। তাকেও চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি ফেনীতে নিয়ে আসা হয়েছে। তাদের দুজনকে মুখোমুখি করে জিজ্ঞাসাবাদের পরই তথ্যানুযায়ী ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে গ্রেফতার করা হয় নুসরাত হত্যার আরেক সহযোগী নুরউদ্দিনকে। তাকে নিয়ে পিবিআইয়ের অপর একটি টীম বর্তমানে ফেনীর পথে রয়েছে।

ফেনীর সোনাগাজীতে মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার অন্যতম আসামি ও অভিযুক্ত অধ্যক্ষ এস এম সিরাজ-উদ-দৌলার মুক্তির দাবিতে আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়া নুর উদ্দিনকে ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এবিষয়ে ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন জানান, আজ শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ভালুকার সিডস্টোর থেকে নুর উদ্দিনকে গ্রেফতার করে পুলিশ বুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) একটি বিশেষ টিম। তাদের সহায়তা করে ভালুকা মডেল থানা পুলিশ। নূর বিষয়টি নিশ্চিত করে তিনি বলেন, নূর উদ্দিনকে গ্রেফতার করে পিবিআইয়ের ঢাকা কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে। আজ বিকালেই নুর উদ্দিনকে ফেনী নেয়া হচ্ছে বলে জানান পিবিআই কর্মকর্তা।  

গত ৬ এপ্রিল সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় আলিম পরীক্ষার কেন্দ্রে গেলে মাদ্রাসার ছাদে ডেকে নিয়ে নুসরাতের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে পালিয়ে যায় মুখোশধারী দুর্বৃত্তরা। এর আগে ২৭ মার্চ মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার বিরুদ্ধে করা শ্লীলতাহানির মামলা প্রত্যাহারের জন্য নুসরাতকে চাপ দেয় তারা। আগুনে ঝলসে যাওয়া নুসরাত গত বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে মারা যান। 

এইচ এম/টিএফ