• ঢাকা
  • বুধবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৮ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৯, ০৮:০৮ এএম
সর্বশেষ আপডেট : সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৯, ১০:৩১ এএম

জিপি ও রবির বকেয়া ১৩,৪৪৭ কোটি টাকা

ছাড় দেয়ার পক্ষে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী, অর্থমন্ত্রীর না 

মেহ্দী আজাদ মাসুম
ছাড় দেয়ার পক্ষে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী,  অর্থমন্ত্রীর না 

গ্রামীণফোন ও রবির কাছে সরকারের পাওনা ১৩ হাজার ৪৪৭ কোটি টাকা। দীর্ঘদিনের এই পাওনা আদায়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল অনড় থাকলেও ছাড় দেয়ার পক্ষে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী দৈনিক জাগরণকে বলেছেন, বকেয়া পরিশোধ করেই গ্রামীণফোন-রবিকে ব্যবসা করা উচিত। আর বিষয়টি আদালতে না গড়াক, সেই পথেই হাঁটতে চাইছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী। 

অর্থমন্ত্রী দৈনিক জাগরণকে দেয়া সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকারে এ বিষয়ে বলেন, ‘গ্রামীণফোন’ এবং ‘রবি’ তো কোনও প্রকার লোকসানে নেই বরং জনপ্রিয়তার শীর্ষে আছে। তবে কেন এ দুটি মোবাইল ফোন অপারেটরকে ছাড় দিতে হবে, তা আমার বোধগম্য নয়। আমি মনে করি, রাষ্ট্রের বকেয়া পরিশোধ করে গ্রামীণফোন-রবির ব্যবসা করা উচিত। এ বিষয়ে তার মন্ত্রণালয়ের অবস্থান ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীকে জানিয়ে দিয়েছেন বলেও জানান অর্থমন্ত্রী। 

অপরদিকে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বকেয়ার বিষয়ে গণমাধ্যমকে পরিষ্কার করে কিছু না বললেও তিনি যে মোবাইল অপারেটর দুটির বকেয়া অর্থ থেকে ট্যাক্সে ছাড় দেয়ার পক্ষ নিয়েছেন, তা অর্থমন্ত্রীর বক্তব্য থেকে বেরিয়ে এসেছে।

সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ে গ্রামীণফোনের সিইওর সঙ্গে বৈঠকের পর মোস্তাফা জব্বার দৈনিক জাগরণকে বলেন, আলোচনার উদ্দেশ্যই হচ্ছে দুপক্ষের মধ্যে সমঝোতা করা। দুপক্ষকেই একটু ছাড় দেয়া। বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়াক, তা আমি চাই না। আমি প্রত্যাশা করি আলোচনার মধ্যে দীর্ঘ দিনের এ সমস্যার সমাধান হোক। 

বিষয়টি নিয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হন নি। 

বর্তমানে গ্রামীণফোন ও রবির কাছে সরকারের মোট পাওনা ১৩ হাজার ৪৪৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে শুধু গ্রামীণফোনের কাছেই সরকারের পাওনা প্রায় ১২ হাজার ৫৭৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা। 

এমএএম/একেএস