• ঢাকা
  • বুধবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২০, ১৩ কার্তিক ১৪২৭
প্রকাশিত: অক্টোবর ৭, ২০২০, ১১:০০ এএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ৭, ২০২০, ১১:০০ এএম

পেঁয়াজের দাম কেজিতে ৩৫ টাকা কমবে 

জাগরণ ডেস্ক
পেঁয়াজের দাম কেজিতে ৩৫ টাকা কমবে 

আসন্ন দুর্গাপূজার আগেই ভারত থেকে আমদানির খবরে হিলি স্থলবন্দরের পাইকারি ও খুচরা বাজারে স্থিতিশীল রয়েছে পেঁয়াজের দাম। ব্যবসায়ীরা আশা করছেন, হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ প্রবেশ করলে কেজিতে দাম ৩০ থেকে ৩৫ টাকা কমে আসবে।  

তবে রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্য বলছে, সপ্তাহের ব্যবধানে নতুন করে খুচরা বাজারে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম কেজিতে ১০ থেকে ৩০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। গতকাল আমদানি করা পেঁয়াজ ৯০ থেকে ১১০ টাকায় বিক্রি হয়েছে, যা গত সপ্তাহে ৭০ থেকে ৮০ টাকা ছিল। আর দেশি পেঁয়াজ এখন ৮০ থেকে ৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা আগের সপ্তাহে ছিল ৭০ থেকে ৮০ টাকা। রাজধানীর খুচরা বাজার ঘুরেও ক্রেতাদের এই দামে পেঁয়াজ কিনতে দেখা গেছে।

এদিকে, দাম বেড়ে যাওয়ায় পেঁয়াজের বাজারে ক্রেতা সংকট দেখা দিয়েছে। ব্যবসায়ীরা জানান, ভারত সরকার পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়ার পর থেকে হিলির বাজারে দাম বাড়তে থাকে। তবে আবারো ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি হলে দাম কমে আসবে। 

ভারত থেকে এলসি করা পেঁয়াজ রপ্তানির ব্যাপারে সেখানকার ব্যবসায়ীরা আশ্বস্ত করেছেন বলে জানানো হয়েছে।  

এ প্রসঙ্গে হিলি স্থলবন্দর আমদানি ও রপ্তানিকারক গ্রুপ এর সভাপতি হারুন উর রশিদ বলেন, ভারতের যে এজেন্সিগুলোগুলো আছে, তারা জানিয়েছে তাদের দেশের সরকারের সাথে তাদের কথা হচ্ছে। কিছু দিনের মধ্যে তারা এক্সপোর্ট করতে পারবে বলে আশ্বস্ত করেছে। পেঁয়াজ আমদানির পর দাম কমে গেলে সাধারণ ক্রেতাদের মাঝে স্বস্তি ফিরবে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। 

এদিকে, দাম স্বাভাবিক রাখতে ন্যায্যমূল্যে পেঁয়াজ বিক্রি বাড়িয়েছে টিসিবি। সংস্থাটি জানায়, অনলাইনে ৭টি প্রতিষ্ঠান, স্বপ্ন, চালডাল, সিন্দাবাদ, যাচাই, বিয়াস ও গ্লোরির মাধ্যমে ৩৬ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। সপ্তাহে দুই দিন এই প্রতিষ্ঠানগুলোকে সাড়ে ১০ টন পেঁয়াজ বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। আগের চেয়ে বাড়িয়ে এখন রাজধানীতে ৮০টি খোলা ট্রাকে ও সারাদেশে তিন শতাধিক খোলা ট্রাকে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। এ পেঁয়াজ ৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি অব্যাহত আছে। এ মাসের মধ্যে আমদানি করা পেঁয়াজ দেশে আসবে। এতে বাজারে সরবরাহ আরো বাড়ানো সম্ভব হবে।

উল্লেখ্য, গত ১৪ সেপ্টেম্বর ভারত পেঁয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার পর থেকে দেশের বাজার অস্থির হয়ে ওঠে। এর পর ভারত বন্দরে আটকে থাকা কিছু পেঁয়াজ ছাড়লেও তা নষ্ট থাকায় খুবই কম দামে ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজিতে পাইকারি বিক্রি হয়েছে। তবে ওই পেঁয়াজও খুচরা ক্রেতাদের ৭০  টাকায় কিনতে হয়েছে। এখন ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রয়েছে। আগে ভারত থেকে আমদানি করা মজুদ পেঁয়াজও ফুরিয়ে এসেছে। এর পরেও ভারতীয় পেঁয়াজ চড়া দামে বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা।

জাগরণ/এমআর