• ঢাকা
  • শনিবার, ২৮ মে, ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২৪, ২০২১, ১২:০০ এএম
সর্বশেষ আপডেট : ডিসেম্বর ২৩, ২০২১, ০৬:০০ পিএম

বাংলাদেশ-এডিবির ১৩.৫ মিলিয়ন ডলার ঋণ চুক্তি

বাংলাদেশ-এডিবির ১৩.৫ মিলিয়ন ডলার ঋণ চুক্তি

সেচ ব্যবস্থাপনা আধুনিকীকরণে বাংলাদেশ সরকার এবং এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) ১৩.৫ মিলিয়ন ডলার চুক্তি সই করেছে। এতে বড় সেচ প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা, পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণ উন্নতকরণ এবং আবাদি জমি বন্যা থেকে রক্ষা পাবে। অতিরিক্ত ঋণটি চলমান ৪৬ মিলিয়ন ডলারের সেচ ব্যবস্থাপনা উন্নয়ন প্রকল্পকে জোরদার করবে।

বৃহস্পতিবার (২৩ ডিসেম্বর) গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, এদিন বাংলাদেশের হয়ে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন এবং এডিবির পক্ষে কান্ট্রি ডিরেক্টর এডিমন গিনটিং ভার্চুয়ালি এই চুক্তি সই করেন।

গিনটিং বলেন, সেচ ব্যবস্থাপনা এবং অবকাঠামো উন্নয়নের মাধ্যমে পানির প্রাপ্যতা নিশ্চিত ও অভাব দূরীকরণে এই সহায়তা ভূমিকা রাখবে। পানি খাতের টেকসই উন্নয়নে প্রকল্পটির আওতায় সেচ প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা, পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণ সরকারি বিভাগ থেকে বেসরকারি অপারেটরদের কাছে স্থানান্তর করা হবে। বেসরকারি খাতের অংশগ্রহণকে যা উৎসাহিত করবে।

তিনি বলেন, এটি এই খাতে উদ্ভাবনী অবকাঠামো আধুনিকীকরণ করবে। যেমন- ডিজেল মোটর পাম্পগুলোকে বৈদ্যুতিক পাম্পে প্রতিস্থাপন এবং প্রিপেইড কার্ড মিটার ব্যবস্থা চালু হবে। প্রকল্পটি ১৭ কিলোমিটার উপকূলীয় বাঁধ মেরামত করবে। আর ৪০০ কিলোমিটারের বেশি খাল পুনঃখনন করবে।

২০২৪ সালের মধ্যে এটি মুহুরী সেচ ব্যবস্থার অধীনে শুষ্ক-মৌসুমে সেচের এলাকা ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি করে ১৮,০০০ হেক্টরে উন্নীত করবে। আশা করা হচ্ছে, সেচ করা শীতকালীন ধানের (বোরো) গড় ফলন ২০১৩ সালে ৩ থেকে ৪ টন হেক্টরে বাড়বে। প্রকল্পটি পাম্প অপারেটর হিসেবে কমপক্ষে ২ শতাংশ নারী, ৫ শতাংশ মোবাইল ওয়াটার ইউনিট বিক্রেতা হিসেবে এবং ৫ শতাংশ নারী নির্মাণ শ্রমিকের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করবে।

জাগরণ/এসএসকে