• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই, ২০২২, ২১ আষাঢ় ১৪২৯
প্রকাশিত: জুন ১৮, ২০২২, ১২:২১ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ১৭, ২০২২, ০৬:২১ পিএম

নিত্যপণ্যের বাজারে কিছুটা স্বস্তি

নিত্যপণ্যের বাজারে কিছুটা স্বস্তি

নিত্যপণ্যের দামে কিছুটা স্বস্তি এলো এ সপ্তাহে। গত সপ্তাহের তুলনায় কয়েকটি পণ্যের দাম কিছুটা কমেছে।

রাজধানীর কাঁচাবাজারে কিছুটা কমেছে ডিমের দাম। ডজনে প্রায় ১০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১২৫ টাকায়।

নাগালে রয়েছে ব্রয়লার ও সোনালি মুরগির দামও। তবে চড়া সয়াবিন তেলের দাম। কমেনি চালের দামও।

সপ্তাহের ব্যবধানে কিছুটা স্বস্তি মিলেছে বাজারে। বেশকিছু দিন ধরে অস্থির ডিমের দাম কমতে শুরু করেছে। কমেছে পেঁয়াজ রসুন ও মুগির দাম।

গত সপ্তাহে প্রতি ডজন ফার্মের মুরগির ডিম ১৩৫ টাকায় বিক্রি হলেও এখন তা ১২৫ টাকায় কেনা যাচ্ছে। হাঁসের ডিম বিক্রি হচ্ছে ১৫৫ টাকা ডজনে।

মুরগির খাবারের দাম কিছুটা কমার প্রভাব বাজারে পড়েছে বলে দাবি বিক্রেতাদের। দাম কমে সোনালি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২৭০ থেকে ২৮০ টাকা টাকা কেজিতে। ব্রয়লার মুরগির কেজি ১৬০ টাকা।

ডিম, মুরগির পাশাপাশি কমেছে রসুনের দামও। কেজিতে ৪০ থেকে ৪৫ টাকা কমে আমদানির রসুন কেনা যাচ্ছে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকায়। দেশি রসুনের দাম ৮০ থেকে ৯০ টাকা।

গত সপ্তাহে নতুন করে দাম বাড়ায় বাজারে এখন প্রতি কেজি বোতলজাত সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ২০৫ টাকায়। ৫ লিটারের দাম ৯৯৫ টাকা।

বাজারে এখনও বাড়তি চালের দাম। মিনিকেট চাল বিক্রি হচ্ছে ৬৫ থেকে ৬৭ টাকা, বি আর আটাশ চালের কেজি ৫০ থেকে ৫২ টাকা।

সরবরাহ ভালো হলেও চড়া মাংসের বাজার। গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭০০ টাকা আর খাসির মাংসের দাম ৯০০ টাকা।

জাগরণ/অর্থনীতি/বাজারদর/এসএসকে