• ঢাকা
  • সোমবার, ১৫ আগস্ট, ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯
প্রকাশিত: জুলাই ১, ২০২২, ১১:৫৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুলাই ১, ২০২২, ০৫:৫৮ পিএম

‘দেনা মেটানোর মতো সম্পদ নেই ইভ্যালির’

‘দেনা মেটানোর মতো সম্পদ নেই ইভ্যালির’

ব্যাংকের টাকা এবং ইভ্যালির যে সম্পদ আছে, তা দিয়ে দেনা মেটানো সম্ভব নয়।

শুক্রবার ( ১ জুলাই) বিকালে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা বোর্ডের চেয়ারম্যান বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক ধানমন্ডির ইভ্যালির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে একথা জানিয়েছেন।

তিনি জানান, চলতি মাসের মধ্যেই প্রতিষ্ঠানটির নিরীক্ষা প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে।

গত ৩১ জানুয়ারি অনেকটা ঘটা করেই গণমাধ্যমের সামনে ইভ্যালির লকার ভাঙেন হাইকোর্ট নিযুক্ত ইভ্যালির পরিচালনা পর্ষদ। তখন ভাঙ্গা সিন্দুকে মেলে কেবল ২৫শ টাকা ও কিছু ব্যাংক চেক। জানানো হয় পূর্ণাঙ্গ অডিট রিপোর্টের জন্য লাগবে দীর্ঘ সময়।

এ ঘটনার ৫ মাস পর আবারো গণমাধ্যমের সামনে ইভ্যালি পরিচালনা পর্ষদ। তারা জানান, প্রতিষ্ঠানটির ৪টি গোডাউনে প্রায় ২৫ কোটি টাকার মালামাল মিলেছে। আর ৬টি গ্রেটওয়েতে আটকে আছে আরও প্রায় ২৫ কোটি টাকা। তবে সার্ভার বন্ধ থাকায় গ্রাহকদের কোনও তথ্য পাওয়া যাচ্ছে না। আর এ কারণে বুঝিয়ে দেয়া সম্ভব হচ্ছে না পাওনা।

চলতি মাসের শেষের দিকে ইভ্যালির অডিট প্রক্রিয়া শেষ হবে। এরপরই পরিচালনা বোর্ডের দায়িত্ব শেষ হবে। তবে নতুন বিনিয়োগ না আসলে এবং ব্যবসা পরিচালনার সুযোগ দেয়া না হলে প্রতিষ্ঠানটি বিলুপ্তি ঘোষণা ছাড়া উপায় থাকবে না বলেও জানায় পরিচালনা বোর্ড।

বিভিন্ন পণ্যে অবিশ্বাস্য মূল্য ছাড় ও আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন দিয়ে ইভ্যালি বাজার থেকে তুলে নেয় প্রায় ১ হাজার কোটি টাকা। গ্রাহকদের পাওনা পরিশোধ না করায় আটক করা হয় ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামিমা নাসরিন ও এমডি মোহাম্মদ রাসেলকে।

জাগরণ/অর্থনীতি/কেএপি