• ঢাকা
  • রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০২২, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
প্রকাশিত: অক্টোবর ৭, ২০২২, ১২:৪৮ এএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ৬, ২০২২, ০৬:৪৮ পিএম

বাড়ল চিনির দাম, কমল পাম তেলের

বাড়ল চিনির দাম, কমল পাম তেলের

চিনির দাম ৬ টাকা বাড়িয়েছে সরকার। একই সঙ্গে পাম তেলের দাম প্রতি লিটারে ৮ টাকা কমানো হয়েছে। নতুন দাম অনুযায়ী, খোলা পাম তেল প্রতি লিটার ১২৫ টাকা এবং প্রতি কেজি খোলা চিনি ৯০ টাকা ও প্যাকেটজাত চিনি ৯৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

গেল ২২ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের সুপারিশে পাম তেলের দাম লিটারপ্রতি ১২ টাকা কমায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। সেসময় প্যাকেটজাত ও খোলা চিনির দামও কেজিতে যথাক্রমে ৬ টাকা ও ৪ টাকা কমানো হয়। তবে ১৫ দিনের মাথায় বাড়ানো হলো চিনির দাম।

নতুন দাম অনুযায়ী, পাম অয়েল সুপার প্রতি লিটারে ৮ টাকা কমিয়ে ১২৫ টাকা করা হয়েছে, যা আগে বিক্রি হতো ১৩৩ টাকায়। খোলা চিনির দাম বাড়িয়ে প্রতি কেজি ৯০ টাকা আর প্যাকেটজাত চিনি ৯৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ডলারের বাড়তি দরের কারণে চিনির দাম বাড়ানো হয়েছে বলে জানান বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ।

বাণিজ্য সচিব তপন বলেন, আমরা আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্ধারিত ডলারে দাম ধরতাম না। বর্তমানে ১০৫ টাকা দরে ডলার ধরলে চিনির দাম বেশি হয়। সেজন্য কেজিতে ৬ টাকা বাড়ানো হয়েছে।

বাণিজ্য সচিব বলেন, বেশি দামের যে তেল বাজারে আছে, সেটা আগের দামে বিক্রি করা যাবে। এখন যে তেল বাজারে যাবে, সেটা কম দামে বিক্রি হবে।

ট্যারিফ কমিশনের মাধ্যমে ৯টি পণ্যের মূল্য নির্ধারণের অগ্রগতি নিয়ে জানতে চাইলে সচিব জানান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ভোজ্যতেল, চিনি, রড, সিমেন্ট এই চার পণ্যের দাম নির্ধারণে কাজ করছে।

৩১ ডিসেম্বরের পর থেকে সয়াবিন বলে পামঅয়েল বিক্রি করা যাবে না বলে জানান বাণিজ্য সচিব। একই সঙ্গে খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি বন্ধে শিগগিরই পদক্ষেপ নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

জাগরণ/অর্থনীতি/এসএসকে