• ঢাকা
  • শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: এপ্রিল ১৩, ২০১৯, ০৭:০১ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ১৪, ২০১৯, ০১:০২ এএম

মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত হত্যা

প্রতিবাদ ও বিচারের দাবিতে ঢাবি শিক্ষক সমিতির বিবৃতি

ঢাবি প্রতিনিধি
প্রতিবাদ ও বিচারের দাবিতে ঢাবি শিক্ষক সমিতির বিবৃতি

ফেনীর সোনাগাজী মাদ্রাসার শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে যৌন হয়রানি ও অগ্নিসংযোগ করে হত্যার নিন্দা জানিয়ে এর দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবিতে বিবৃতি দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) সংগঠনটির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল এবং সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম স্বাক্ষরিত বিবৃতি বলা হয়, ‘‘নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও ধর্মীয় কঠোর অনুশীলনের পাদপীঠ মাদ্রাসার নিরাপদ চৌহদ্দি আজ নুসরাতের জন্য মৃত্যুকূপে পরিণত হল। ইসলামে নারীর যে ন্যূনতম অধিকার তা তো দূরে থাক, খোদ ধর্মচর্চার কেন্দ্রেই একজন কিশোরী বেঁচে থাকার অধিকারটুকুও হারালো। বিবৃতিতে দ্রুততম সময়ের মধ্যে অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানানো হয়।’’ 

দেশের আলেম সমাজের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বিবৃতিতে বলা হয়, ‘‘ধর্মীয় পরিমণ্ডল থেকে নুসরাতের বিয়োগান্ত ঘটনার পূর্বাপর আরো অনেক অপ্রত্যাশিত ঘটনার খবরাখবর নিত্যদিন প্রকাশিত হচ্ছে। ইসলামি শিক্ষার প্রতিষ্ঠানগুলোতে কেন এসব অনাকাঙ্খিত ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে? অভিভাবকত্বের জায়গা থেকে আপনারা এগুলোর সঠিক তদন্ত করুন। দেশের মাদ্রাসাগুলোর দিকে নজর দিন, সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণপূর্বক করণীয় নির্ধারণ করুন। দেশের সাধারণ মানুষের মনে ধর্ম, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় ব্যক্তিত্বের প্রতি শ্রদ্ধা ও সম্মান যেন কোনোভাবেই নষ্ট না হয় সে বিষয়ে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণে প্রয়াসী হোন’’।  

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘‘বাংলাদেশ নারীর ক্ষমতায়নের দিক থেকে সমগ্র বিশ্বে অনুসরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। দেশের প্রধানমন্ত্রীসহ সরকার পরিচালনার মূল চালিকাশক্তির অনেক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে নারীরা নিয়োজিত রয়েছেন এবং তাদের যোগ্যতা ও দক্ষতার স্বাক্ষর রেখে চলেছেন। এমন একটি দেশে নারীদের প্রতি এহেন বর্বরতা ও নিষ্ঠুরতা জাতিগতভাবে আমাদের সকলচিন্তা ও চেতনার শক্তিকে থমকে দেয়। এ থেকে অবশ্যই আমাদের উত্তরণ ঘটাতে হবে। ইতোমধ্যেই দৃশ্যমান প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে, সেটিকে যথাসম্ভব দ্রুততার সাথে দৃষ্টান্তমূলক পর্যায়ে নিয়ে যেতে হবে।’’

সরকারের ঊর্ধ্বতনমহল থেকে শুরু করে দেশের আপামর জনগোষ্ঠী নুসরাত হত্যাকাণ্ডে সঙ্গে জড়িতদের যথোপযুক্ত শাস্তি দেখতে বদ্ধপরিকর বলে উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, ‘‘কোনো অপরাধী সে যতো প্রভাবশালীই হোক না কেন, যে দলের বা মতেরই হোক না কেন- সেদিকে দৃষ্টি না দিয়ে নরপশুদের কঠিন শাস্তি বিধানে সকলকে সজাগ থাকতে হবে। এটি যেন কোনোভাবেই সাগর-রুনি বা তনু হত্যাকাণ্ডের মতো বিচারের ধীরগতির গহ্বরে নিক্ষিপ্ত না হয়। সকলের জন্য ন্যায়-বিচার নিশ্চিত করা, অপরাধীর শাস্তিবিধান করা ও সমাজকে কলুষমুক্ত রাখা সরকারের অন্যতম দায়িত্ব। এক্ষেত্রে তার আশু বাস্তবায়ন কাম্য।’’

এমআইআর/এসএমএম