• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬

জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা

মুজিববর্ষ
প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৬, ২০২০, ০৩:৫৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ১৬, ২০২০, ০৪:৪২ পিএম

এসএসসি চলাকালীন কোচিং সেন্টার বন্ধ

জাগরণ প্রতিবেদক
এসএসসি চলাকালীন কোচিং সেন্টার বন্ধ
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি

শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন, আসন্ন এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা সুষ্ঠু ও নকলমুক্ত পরিবেশে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে আগামী ২৫ জানুয়ারি থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সকল কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে। এ সময় তিনি প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো গুজবে কান না দেয়ার জন্য অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানান।

বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান মন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, মন্ত্রণালয়ের দুই সচিব শাহাবুদ্দিন মুন্সি (কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ) ও মাহাবুব হোসেন (মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ) উপস্থিত ছিলেন।

এসএসসি পরীক্ষার জন্য দেশের সব ধরনের কোচিং বন্ধ রাখার যৌক্তিকতা নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষা মন্ত্রী বলেন, সব ধরনের কোচিং একই ছাদের নিচে অর্থাৎ একসঙ্গে পরিচালিত হওয়ায় বাধ্য হয়েই এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তাছাড়া কোচিং বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তের কারণ হল কিছু অসাধু প্রতিষ্ঠান তারা কোচিংয়ের অন্তরালে প্রশ্নফাঁস সহ নকল সরবরাহ করা পর্যন্ত নানারকম অপকর্মের সঙ্গে জড়িত বলে প্রমাণিত হয়েছে। এ কারণে আমরা এ ধরনের পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হয়েছি।

এবারের পরীক্ষার বিষয়ে সরকারের নেয়া সিদ্ধান্তের কথা উল্লেখ করে দীপু মনি বলেন, অন্যান্য বারের মতো এবারও পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে হবে। অনিবার্য কারণে কোনো পরীক্ষার্থীর দেরি হলে তার বিস্তারিত তথ্য পরীক্ষা শেষে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডে পাঠাতে হবে। ট্রেজারি থেকে নির্দিষ্ট তারিখের পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের সব সেট কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হবে। পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে এমএমএসের মাধ্যমে প্রশ্নপত্রের সেট কোড জানিয়ে দেয়া হবে। কেন্দ্র সচিব ছাড়া অন্য কেউ পরীক্ষা কেন্দ্রে মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না।

মন্ত্রী আরও বলেন, এবার এসএসসি পরীক্ষায় বাংলা দ্বিতীয় ও ইংরেজি প্রথম এবং দ্বিতীয় পত্র ছাড়া সব বিষয়ে সৃজনশীল প্রশ্নে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। নিয়মিত পরীক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে শারীরিক শিক্ষা, স্বাস্থ্য বিজ্ঞান ও খেলাধুলা এবং ক্যারিয়ার শিক্ষা বিষয়ে এনসিটিবির নির্দেশনা অনুসারে ধারাবাহিক পরীক্ষার নম্বরের সঙ্গে মূল্যায়নে প্রাপ্ত নম্বর অনলাইনের মাধ্যমে বোর্ডে পাঠাতে হবে।

আসন্ন এই পরীক্ষা যথাযথভাবে অনুষ্ঠানের জন্য মন্ত্রী শিক্ষক, ছাত্র, অভিভাবক ও গণমাধ্যমের সহযোগিতা কামনা করেন।

এমএএম/একেএস