• ঢাকা
  • শনিবার, ১৫ মে, ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
প্রকাশিত: এপ্রিল ২৯, ২০২১, ০২:৫৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ২৯, ২০২১, ০২:৫৮ পিএম

দেড় মাসেও উপাচার্য পায়নি জবি

দেড় মাসেও উপাচার্য পায়নি জবি

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) নিয়মিত উপাচার্য নেই প্রায় দেড় মাস। গত মার্চে উপাচার্য অধ্যাপক মীজানুর রহমানের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর পূর্ণ উপাচার্য পায়নি বিশ্ববিদ্যালয়টি। রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য দিয়ে চলছে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম।

জানা যায়, ২০১৩ সালের ২০ মার্চ অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমানকে বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দেয় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। গত ১৯ মার্চ তার দ্বিতীয় মেয়াদে উপাচার্যের চার বছর পূর্ণ হয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ১৮ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষকে পরবর্তী উপাচার্য নিয়োগ না হওয়া পর্যন্ত রুটিন দায়িত্ব পালনের অফিস আদেশ জারি করে।

একজন উপাচার্য যে কার্যসম্পাদন করতে পারে সে কাজ একজন রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য করতে পারে না। তাছাড়া, উপাচার্য না থাকায় অর্থ সংক্রান্ত অনুমোদন, শিক্ষক-কর্মকর্তাদের পদোন্নতি, শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগের কার্যক্রমেও এর প্রভাব পড়ে।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নেতারও চান বিশ্ববিদ্যালয়ের মঙ্গলের জন্য দ্রুত উপাচার্য নিয়োগ করা হোক। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের নীলদলের (একাংশের) সভাপতি অধ্যাপক ড. জাকারিয়া মিয়া বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বার্থে আমরা চাই দ্রুত উপাচার্য নিয়োগ করা হোক। কারণ বিশ্ববিদ্যালয়ের বড় বড় কাজগুলো করার জন্য, সিন্ডিকেট সভার মাধ্যমে যে সকল সিদ্ধান্ত, একাডেমিক কাউন্সিলে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা সংক্রান্ত যে সিদ্ধান্ত, এসকল সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য নিয়মিত উপাচার্যের প্রয়োজন।”

জবির শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. নূরে আলম আবদুল্লাহ বলেন, “আমরা চাই সরকার যাতে দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য নিয়োগ করুক, এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য মঙ্গল।” 

বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার ও দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদ বলেন, “আমিও চাই দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য নিয়োগ দেওয়া হোক এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য মঙ্গলজনক। বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান কিছু কাজ রয়েছে, যার জন্য নিয়মিত উপাচার্য প্রয়োজন।”