• ঢাকা
  • রবিবার, ২৬ মে, ২০১৯, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
Bongosoft Ltd.
প্রকাশিত: এপ্রিল ২১, ২০১৯, ০৬:৪২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ২১, ২০১৯, ০৬:৪২ পিএম

ইসিকে শক্তিশালী করার জন্য যা কিছু দরকার করছি : এইচটি ইমাম

জাগরণ প্রতিবেদক
ইসিকে শক্তিশালী করার জন্য যা কিছু দরকার করছি : এইচটি ইমাম
প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম-ফাইল ছবি

 

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলেছেন, নির্বাচন কমিশনকে সকল বিতর্কের ঊর্ধ্বে রেখে শক্তিশালী করার জন্য যা কিছু প্রয়োজন করে চলেছি। এ জন্যই আমরা চাই যে, গণতান্ত্রিক যে সমস্ত রীতি-নীতি, বিধানাবলী এবং গণতান্ত্রিক যে সমন্ত সংস্কার প্রয়োজন সেই সাথে গণতান্ত্রিক যে সমস্ত প্রতিষ্ঠান সেগুলোরও শক্তিশালীকরণ প্রয়োজন রয়েছে। এর জন্য আওয়ামী লীগ সর্বাত্মকভাবে সবসময় প্রস্তুত আছে।

রোববার (২১ এপ্রিল) বিকেলে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হিসাব জমা দেয়ার পর প্রেস বিফ্রিংয়ে একথা বলেন তিনি।

আওয়ামী লীগের হিসাব অনুযায়ী এই নির্বাচনে ব্যয় হয়েছে এক কোটি পাঁচ লাখ টাকা। আয় হয়েছে এক কোটি ২৬ লাখ টাকা। এ সময় আওয়ামী লীগের জাতীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটির এই কো-চেয়ারম্যান বলেন, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ব্যয় প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কাছে দাখিল করেছি। বিধান মোতাবেক দলের মনোনীত অংশগ্রহণকারী প্রার্থীরা তাদের খরচের হিসাব আলাদাভাবে  এরইমধ্যে স্ব-স্ব রিটার্নং অফিসারের নিকট দাখিল করেছেন।

আয়-ব্যয়ের হিসাব জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটি এখন নির্বাচন কমিশনের সম্পত্তি। এখন নির্বাচন কমিশন তাদের ওয়েবসাইটে দিয়ে দেবেন। এবারে অন্যান্য বছরের তুলনায় খরচের পরিমাণ কম। পূর্বে নির্বাচনি প্রতিদ্বন্দ্বিদের আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়েছিল কিন্তু এবারে সেটি দেয়া হয়নি। এবারে আমাদের ব্যয় কম। এবারে আমরা আয় করেছি বেশি।

উপজেলা নির্বাচন সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা স্পষ্ট করে বলে দিয়েছেন যে, প্রশাসন এবং পুলিশ তারা কোনভাবেই কোনও প্রভাব খাটাবে না। তারা প্রচারণা চালাতে পারবেন না।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে উপজেলা নির্বাচনে প্রশাসন ও পুলিশ একেবারে নিরপেক্ষভাবে পক্ষপাতহীনভাবে নির্বাচন পরিচালনায় সহায়তা করেছেন। অনেক সংসদ সদ্স্য নৌকার প্রার্থীর বিপক্ষে ভোট চেয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন দলের অনেকের কাছে হয়তো ব্যাখ্যাও চাওয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে দলের সকল আয়-ব্যয়ের হিসাব অত্যন্ত স্বচ্ছতার সাথে আমরা সম্পন্ন করে থাকি।

এ সময় দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট এবিএম রিয়াজুল কবীর কাউছার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

বিধি অনুযায়ী গত ৩১ মার্চের মধ্যে নির্বাচনি ব্যয়ের হিসাব দেয়ার কথা ছিল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়া রাজনৈতিক দলগুলোর। কিন্তু কোনটিই হিসাব জমা দেয়নি। পরে ইসি চিঠি দিয়ে তাদেরকে ৩০ দিনের মধ্যে হিসাব জমা দেয়ার জন্য বলে। এরপর আজ দলটির হিসাব জমা দেয়া হল।

এইচএস/এসএমএম

Space for Advertisement