• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৯ আশ্বিন ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২২, ২০২০, ০৬:৫২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ২২, ২০২০, ০৬:৫২ পিএম

পুরান ঢাকায় দিনভর ইশরাকের গণসংযোগ

জাগরণ প্রতিবেদক
পুরান ঢাকায় দিনভর ইশরাকের গণসংযোগ
ইশরাক হোসেনের পক্ষে গণসংযোগে বিএনপি নেতা-কর্মীরা ● জাগরণ

গ ণ সং যো গ

....

ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রচারণার ১৩তম দিনে শাহী মসজিদ এলাকায়সহ দিনভর পুরান ঢাকায় গণসংযোগ করেছেন বিএনপি মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন। এ সময় নেতা-কর্মীরা বিভিন্ন স্লোগান দেন।

নেতা-কর্মীরা বলেন, বিগত দিনে সরকার জনগণের ভোটাধিকার যেভাবে হরণ করেছে তাতে তারা ভোট কেন্দ্রে যেতে ভয় পায়। তাই আমরা এবার মরণপণ শপথ নিয়েছি গ্রেফতার হব, জেলে যাবো, প্রয়োজনে গুলি খাবো কিন্তু ভোটকেন্দ্রে যাবো এবং ধানের শীষে ভোট দেয়ার মাধ্যমে বিএনপি প্রার্থীদের বিজয় ছিনিয়ে আনার মধ্যামে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তির আন্দোলনকে বেগবান করবো।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রদলের সাবেক নেতা জহির উদ্দিন তুহিন বলেন, জাতীয়তাবাদী শক্তির বৃহত্তর গণতান্ত্রিক আন্দোলন চলছে এবং সেই আন্দোলনের অংশ হিসেবে বিএনপি সিটি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। এই নির্বাচনে জনগণ আমাদের ভোট দেয়ার জন্য উৎসুক হয়ে আছে।

মোহাম্মদ ইলিয়াস নামের বিএনপির এক কর্মী বলেন, ধানের শীষে ভোট দিয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের প্রার্থীকে বিজয়ী করবো। 

স্থানীয় এক দোকানদার ফারুক ভূঁইয়া বলেন, সুষ্ঠু ভোট হলে ইশরাক লালবাগ থেকে বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন।

প্রচারণার ১৩তম দিনে গণসংযোগকালে ইশরাক হোসেন বলেন, যেখানেই গিয়েছি সেখানেই ধানের শীষের পক্ষে গণজোয়ার দেখেছি। ইনশাল্লাহ ১ ফেব্রুয়ারি আমরাই বিজয় উৎসব করব। এটি হবে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের প্রাথমিক বিজয়। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার বিজয়।

বুধবার (২২ জানুয়ারি) ঝাউচর বাজার থেকে গণসংযোগ শুরু করে তিনি। পরে সেখান থেকে হাজারীবাগ বেড়িবাঁধ হয়ে ৫৫, ৫৬, ৫৭ নং ওয়ার্ডের ইসলামবাগ ও চকবাজার হয়ে লালবাগ শাহী মসজিদে নামাজের বিরতি নেন। বিরতি পর ২৯, ৩০, ২৭ ও ৩১ নং ওয়ার্ড ও নয়াবাজারে নির্বাচনি প্রচারণা ও গণসংযোগ করেন।

গণসংযোগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক এমাজউদ্দিন আহমেদ, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবীব-উন নবী খান সোহেল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, বিএনপি নেতা মীর সরাফত আলী সফু, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু, মাহবুবুল হাসান পিংকু ভূঁইয়াসহ স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের কর্মী-সমর্থক অংশ নেন।

তাবিথের ওপর হামলার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে গণসংযোগকালে ইশরাক হোসেন বলেন, ২৪ ঘন্টার বেশি হতে চললো, কিন্তু আমরা এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার হতে দেখলাম না।

তিনি পুলিশ-প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আপনাদের ওপর জাতীয় গুরুদায়িত্ব রয়েছে, সেটা পালন করুন। নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকেও আপনাদের যে সাংবিধানিক দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সেটা নির্ভয়ে পালন করুন।

ইশরাক হোসেন বলেন, এ শহরটাকে ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে। এই ধ্বংসাত্মক অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য আমাদের একটা পরিবর্তন দরকার। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি নগরবাসির জন্য একটা সুবর্ণ সুযোগ এসেছে। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের অঙ্গীকার ছিল জনগণ হবে ক্ষমতার মালিক, জনগণ হবে রাষ্ট্রের মালিক। সেই অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠার সুযোগকে কাজে লাগাতে হবে।

বিভিন্ন স্থানে ধানের শীষ প্রতীকের গণসংযোগে ও সভা-সমাবেশে বাঁধা দেয়া হচ্ছে উল্লেখ করে ইশরাক হোসেন বলেন, আজকেও এখানে আসার আগে আমাদের প্রচারণায় বাধা দেয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল। আমি সংশিষ্টদের সতর্ক করে বলে দিতে চাই, আমি ইশরাক হোসেন একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। কোনও ষড়যন্ত্র বাঁধা আমরা মানবো না। ঢাকা শহর হবে শান্তির জনপদ। এখানে কোনও সন্ত্রাসীর স্থান হবে না। এই দেশটা আমাদের সবার। আমরা কারও জমিদারিত্ব মানবো না।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রসঙ্গ টেনে ইশরাক বলেন, আমাদের অভিভাবক খালেদা জিয়া আজ কারাবন্দি। কারাগারের বাইরে থাকলে ধানের শীষের পক্ষে গণজোয়ার দেখে তিনিও খুশি হতেন।

ইশরাক বলেন, আমার বাবা অল্প বয়সে জীবন বাজি রেখে বাংলাদেশকে স্বাধীন করার যুদ্ধে শামিল হয়েছিলেন। বাবা সব সময় বলতেন- জনগণ হবে বাংলাদেশের মালিক। এটাই ছিলো মুক্তিযুদ্ধের মূলমন্ত্র। জনগণ হবে সকল ক্ষমতার মালিক এবং জনগণ ঠিক করবে কারা দেশ পরিচালনা করবে, কারা নগর পরিচালনা করবে। আমি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের প্রার্থী হয়েছি শুধু জনগণের অধিকার রক্ষার জন্য।

এমাজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, আধুনিক বাংলাদেশ নির্মাণের জন্য তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে। এর জন্য ইশরাক হোসেন-এর মতো লোক দরকার। আমরা বয়স্করা যা করতে পারিনি, তার হাত ধরে বাংলাদেশে নতুন করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সূত্রপাত হবে।

তিনি বলেন, তার বাবা সাদেক হোসেন খোকা ছিলেন আমার ছাত্র। খোকা বেঁচে থাকতে তার অধরা যে স্বপ্নগুলো ছিল, আমি ইশারাকের জন্য দোয়া করি সে যেন তার বাবার স্বপ্নগুলো পূরণ করতে পারে।

টিএস/এসএমএম

আরও পড়ুন