• ঢাকা
  • সোমবার, ৩০ মার্চ, ২০২০, ১৬ চৈত্র ১৪২৬
প্রকাশিত: মার্চ ৩, ২০২০, ০৭:৫৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মার্চ ৩, ২০২০, ০৭:৫৪ পিএম

‘নির্বাচন ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য আ.লীগই দায়ী’

জাগরণ প্রতিবেদক
‘নির্বাচন ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য আ.লীগই দায়ী’
গণসংযোগ করছেন শেখ রবিউল আলম রবি ● জাগরণ

গত ১১ বছর নির্বাচনকে আওয়ামী লীগ জনগণের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলেছে বলে মন্তব্য করেছেন করেছেন ঢাকা-১০ আসনের উপনির্বাচনের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী শেখ রবিউল আলম রবি।

তিনি বলেন, ভোটাররা নির্বাচন থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। রাজনৈতিক দলগুলো লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড পায় না। বিএনপি নির্বাচন ব্যবস্থার সংস্কার চায় সরকারের অপসারণ নয়। নির্বাচন কমিশন বিতর্কিত হয়েছে। সরকার বিতর্কিত নির্বাচন করে ইসিকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। যার দায় সরকারের। যে নির্বাচনে দেশের ৭৫ ভাগ লোক নির্বাচন বর্জন করে সেখানে আমাদের (বিএনপি) দাবিই সঠিক। আওয়ামী লীগ দোষারোপের রাজনীতি করে। তারা রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে গেছে। বিএনপি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনে যেতে ভয় পায়না।

মঙ্গলবার (৩ মার্চ) রাজধানীর হাতিরপুল গণসংযোগ ও হাজারীবাগ গাবতলা মসজিদ কলোনী রোডে নির্বাচনি অফিস উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

ভোটারদের কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়ার কি কি পদক্ষেপ নেবেন গণমাধ্যমের এমন প্রশ্নের জবাবে শেখ রবিউল আলম রবি বলেন, আমরা রাজনৈতিক দল এবং প্রার্থী হিসেবে চেষ্টা করছি। ভোটারদের কেন্দ্রে যাওয়ার অনিহা রাষ্ট্র তৈরি করছে। নির্বাচনি ব্যবস্থা প্রশ্নবিদ্ধ বিধায় ভোটাররা নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত বিধায় তারা মনে করে ফলাফল আগেই নির্ধারিত বা আমি যে প্রার্থীকে ভোট দিতে চাই তাকে ভোট দেয়া যাবে না। জোর করে অন্য প্রার্থীকে দিতে বাধ্য করা হবে। এসব আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন ভোটাররা। গত ১১ বছর সরকার তাই প্রতিষ্ঠিত করেছে। তবে আমি এই ধারণা দূর করতে চায়। এই রাষ্ট্রের মালিক আপনারা। ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারেন, আমি সে চেষ্টা করবো।

তিনি বলেন, প্রার্থীরা ও নির্বাচন কমিশনাররা সমঝোতার ভিত্তিতে প্রচার-প্রচারণার ক্ষেত্রে কিছু সংস্কার করেছিলাম। ইসি উদ্যোগ নিয়েছিল আমরা কারেকশন দিয়েছিলাম। নির্বাচন কমিশনের সাথে আমাদের যে সমঝোতা হয়েছিল, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সেটা ভালভাবে অবগত হয়েছে বলে মনে হয়নি। সকালে যখন ভোটার স্লিপ দিতে বের হই তখন কলাবাগান থানার ইনচার্জ আপত্তি তোলেন।তবে তাকে বোঝাতে আমার অনেকক্ষণ সময় লেগেছে। আমি ভোটারদের কাছে প্রতিদিনই যেতে পারবো। তবে পদযাত্রা ৫ দিনের বেশি করা যাবে না। হাজার হাজার নেতা-কর্মীদের নিয়ে ধানের শীষের প্রার্থী মাঠে নামবে সেটি ৫ দিন। ভোট প্রতিদিনই চাওয়া যাবে। মানুষের কাছে ভোট চাওয়া যাবে সেটা ইনচার্জ অবগত না। তাকে বোঝানোর পর তিনি বুঝেছেন এবং আমাকে সহযোগিতা করেছেন।

রবি বলেন, মানুষ নিয়ে প্রচারে নামতে বাধা নেই। আমিও নামছি, আমি আরও প্রচুর মানুষ নিয়ে নামবো। একটা বাধা নিষেধ আছে সেটা হলো ৫ দিন ব্যাপক আকারে করা যাবে। বাকী দিনগুলো নিয়ন্ত্রিত করতে হবে যাতে যানজটের সৃষ্টি না হয়। মানুষের চলাচলে বিঘ্ন না ঘটে। ভোটারদের কাছে যাওয়া যাবে।

হাজারীবাগ গাবতলা মসজিদ কলোনী রোডে নির্বাচনি অফিস উদ্বোধন করেন রবিউল আলম রবি। এ হাজারীবাগ থানা বিএনপির সভাপতি মুজিবুর রহমান মজু, সাধারণ সম্পাদক আবদুল আজীজ, স্থানীয় বিএনপি নেতা আবুল খায়ের লিটন, হাজারীবাগ থানা যুবদলের নূরুল হক আরজু, ধানমন্ডি থানা যুবদলের হাবীবুর রহমান হাবীবসহ স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গ দলের নেতা-কর্মীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পরে তিনি মনেশ্বর রোড, নতুন রাস্তা, শেরে বাংলা রোড রায়ের বাজারসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় গণসংযোগ করেন। 

টিএস/এসএমএম