• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬

জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা

মুজিববর্ষ
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২১, ২০২০, ০৭:৪১ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ২১, ২০২০, ০৭:৪৫ পিএম

গুনে গুনে ৪ বছরে ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ

এসএম মুন্না
গুনে গুনে ৪ বছরে ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ
ইমেরিটাস প্রফেসর ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীসহ অন্যান্য অতিথিরা-ছবি : জাগরণ

শুরু হলো নাম নিবন্ধন প্রক্রিয়া, লক্ষ্য ১ লাখ

..........

গুনে গুনে চার বছরে ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ। এবার আসছে আরও বড় পরিসরে নতুন আঙ্গিকে। বাংলা ভাষাকে ছড়িয়ে দিতে থাকবে মজার মজার সব আয়োজন। শুরু হয়ে গেছে নিবন্ধন কার্যক্রমের পালা। ২০ স্টুডিওটি পর্ব শেষে বেছে নেয়া হবে সেরা বাংলাবিদ ২০২০। 

নতুন প্রজন্মের কাছে শুদ্ধ বাংলা, বানান ও ব্যবহার ছড়িয়ে দিতেই এই আয়োজন। ‘বাংলায় জাগো ভরপুর’-এ স্লোগানকে সামনে রেখে প্রতিযোগিতাটির আয়োজন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি) দুপুর রাজধানীর তেজগাঁওয়ের চ্যানেল আই কার্যালয় চতুর্থ আসরে ঘোষণা দেয়া হয়। ২১ ফেব্রুয়ারি (রোববার) পর্যন্ত ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ-২০২০’ প্রতিযোগিতার নাম নিবন্ধন চলবে।

দেশের আটটি বিভাগীয় শহরের সাথে কুমিল্লা শহরের ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবেন।

চতুর্থ আসরের ঘোষণা দেন ইমেরিটাস প্রফেসর ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী। এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক ও কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী। 

চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এম এম ইস্পাহানি লিমিটেডের পরিচালক জাহিদা ইস্পাহানি, এমাদ ইস্পাহানি ও আলি ইস্পাহানি।

চতুর্থ আসরে পরিকল্পনা তুলে ধরেনইস্পাহানি টি লিমিটেড এর মহাব্যবস্থাপক ওমর হান্নান। তার আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন প্রতিযোগিতা বিচারক অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর এবং অভিনেত্রী ত্রপা মজুমদার। 

ইমেরিটাস প্রফেসর ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, সেরা বাংলাবিদের চতুর্থ আসরে ঘোষণা দিতে সত্যি আনন্দ লাগছে। শুদ্ধ ভাষা জানতে ও শিখতে এই প্রতিযোগিতা সবার বেশ সহায়ক হবে আশা রাখি। 

বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক ও কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, বাংলা ভাষা ও বাঙালির জন্য এ ধরনের আয়োজন সত্যিই প্রশংসাযোগ্য। যে উদ্দেশ্য নিয়ে এই প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে তার সাফল্য কামনা করি। পরবর্তী প্রজন্ম যেন বাংলাকে ধারণ করতে পারে হৃদয়ে এবং মস্তিষ্কে।

ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, আমার বাড়ি, আমার ঘর, আমাদের দেশ, আমাদের মুক্তিযুদ্ধ, আমাদের ভাষা সবকিছুই অনেক গৌরবের, অনেক অহংকারের এ কথাগুলো আমরা প্রতিনিয়তই বলে থাকি। কিন্তু সত্যিকার অর্থে সেগুলো নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরার জন্য কে কতোটুকু চেষ্টা করি? তবে কি দেশ ও ভাষার জন্য এই ভালবাসার কথা শুধু বলার জন্যই বলা? তারাই যদি বাংলা ভাষার গুরুত্ব নতুন প্রজন্ম এবং দেশে ও দেশের বাহিরে অবস্থানরত সকল বাঙালিদের সামনে তুলে ধরতে পারেন তবেই স্বার্থক হবে আমাদের দেশ ও আমাদের প্রিয় মাতৃভাষা বাংলা। মূলত এই ধারা বজায় রাখতেই ইস্পাহানি আয়োজিত ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’ প্রতিযোগিতায় চতুর্থবারের মতো তাদের সঙ্গে যুক্ত হলো চ্যানেল আই। আশা করি আগের তিন বর্ষের তুলনায় অনেক বড় পরিসরে এবং সুন্দরভাবে আয়োজিত হবে অনুষ্ঠানটি।

অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর বলেন, আমাদের লক্ষ্য বাংলাকে ছড়িয়ে দেয়া চারদিকে। কারণ এই বাংলার জন্যই আমরা পেয়েছি একটি স্বাধীন রাষ্ট্র।

ত্রপা মজুমদার বলেন, যত কাজ করি তার কোনওটাতেই আত্মতৃপ্তি পাই না। কিন্তু বাংলাবিদের বিচারকের কাজ করে আত্মতৃপ্তি পাই। বাচ্চারা এতো জানে, এটা দেখে খুব ভালো লাগে।

প্রতিযোগিতায় শুদ্ধ বাংলা ভাষার ব্যবহার, বানান চর্চা, শুদ্ধ উচ্চারণ ও ব্যাকরণের সঠিক প্রয়োগের মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন পর্যায় শেষে চূড়ান্ত বিজয়ী নির্ধারণ করা হবে। ‘সেরা বাংলাবিদ’ পুরস্কার হিসেবে পাবেন ১০ লাখ টাকার মেধাবৃত্তি। দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারী পাবেন যথাক্রমে তিন ও দুই লাখ টাকার মেধাবৃত্তি।

বাকি ১০ জন প্রতিযোগী পাবেন একটি ল্যাপটপ ও ব্যক্তিগত পাঠাগার গড়ে তোলার জন্য ৫০ হাজার টাকা সমমূল্যের বই ও আলমারি।

বাছাইপর্ব
একাধিক ধাপে বাছাই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

প্রথম পর্যায়
প্রথম পর্যায়ে ৪০টি নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্ন ও অনুধাবনমূলক প্রশ্নের মাধ্যমে প্রাথমিক মেধা যাচাই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। যার শীর্ষ ২০ জন পরবর্তী পর্যায়ের জন্যে মনোনীত হবে। সময় ৬০ মিনিট।

মানবণ্টন : নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্নের মাঝে থাকছে—
বানান ভিত্তিক, শব্দার্থ ভিত্তিক, ভাষা ও সাহিত্য নিয়ে সহজ সাধারণ জ্ঞান ভিত্তিক, বাংলা, বাংলা ভাষা ও বাংলা ব্যাকরণ ভিত্তিক অন্যান্য বিষয়াবলী নিয়ে (যেমন- এক কথায় প্রকাশ, সমার্থক শব্দ + প্রবাদ-প্রবচন, বিরাম চিহ্ন/ সহজ সন্ধি/ পদ প্রকরণ ইত্যাদি), ভাষা আন্দোলন নিয়ে প্রশ্ন।

অনুধাবনমূলক প্রশ্ন—
পত্রিকা/ বই/ গদ্য/ পদ্য থেকে তিনটি অনুচ্ছেদ দেয়া হবে। সেই অনুচ্ছেদগুলোর উপর সত্য-মিথ্যা, ভুল সনাক্তকরণ, অনুচ্ছেদের শিরোনাম নির্বাচন, মূলভাব সনাক্তকরণ ও অন্যান্য সৃজনশীল প্রশ্নের মাধ্যমে প্রতিযোগীর মেধা ও মনন শক্তি যাচাই করা হবে।

দ্বিতীয় পর্যায়
এ পর্যায়ে একাধিক আকর্ষণীয় ধাপের মাধ্যমে প্রতিযোগীর জ্ঞান, মেধা, মনন ও দক্ষতা যাচাইয়ের মাধ্যমে শীর্ষ প্রতিযোগী নির্বাচিত হবে- যারা ঢাকায় চ্যানেল আইয়ের স্টুডিও রাউন্ড বা প্রতিযোগিতার মূলপর্বে অংশগ্রহণ করার জন্যে চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হবে।

মূলপর্ব
মূলপর্বে বাছাইকৃত সেরা প্রতিযোগীদের নিয়ে চ্যানেল আই স্টুডিওতে বাংলা ভাষা নিয়ে আকর্ষণীয় সহজ ও মজার খেলার মাধ্যমে ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ-২০২০ কে খুঁজে বের করা হবে যা চ্যানেল আই-এর পর্দায় সম্প্রচার করা হবে।

নিবন্ধন প্রক্রিয়া
বাংলা মাধ্যমের ক্ষেত্রে অংশগ্রহণকারীকে ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণির হতে হবে (এসএসসি পরীক্ষার্থী ব্যতীত)।

ইংরেজি মাধ্যমের ক্ষেত্রে এই সীমা স্ট্যান্ডার্ড সিক্স থেকে ‘ও লেভেল পর্যন্ত।

যারা এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক তাদের অবশ্যই নিবন্ধনের মাধ্যমে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে হবে।

একজন অংশগ্রহণকারী নিম্নোক্ত ৩ টি প্রক্রিয়ার যে কোনও একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নিবন্ধন কার্যক্রম সম্পাদন করতে পারবে।

এসএমএস প্রক্রিয়া
ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ-এ নিবন্ধন করা যাবে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে। টাইপ করো

BANGLABID  NAME  AGE  CLASS  DIV [ঢাকা, ময়মনসিংহ, রাজশাহী, রংপুর, বরিশাল, সিলেট, খুলনা ও চট্টগ্রাম বিভাগের জন্যে যথাক্রমে DHK, MYM, RAJ, RNG, BAR, SYL, KHL, CTG এবং কুমিল্লা ও নিকটবর্তী জেলার শিক্ষার্থীদের জন্যে CML] পাঠিয়ে দাও 26969 নম্বরে।

একটি ফিরতি এসএমএস-এর মাধ্যমে আবেদন নিশ্চিত করা হবে।

অনলাইন প্রক্রিয়া
এই প্রক্রিয়ায় একজন আবেদনকারী অনলাইন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নিবন্ধন করতে পারবে। অনলাইনে আবেদনের জন্য নিচের বাটনে ক্লিক করো। ক্লিক করার পর প্রয়োজনীয় তথ্য চেয়ে একটি সাব মেনু প্রদর্শন করবে। প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করে সাবমিট বাটনে ক্লিক করতে হবে। আবেদন সফল হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ক্ষুদে বার্তার মাধ্যমে তাকে নিশ্চিত করা হবে।

এসএমএম

আরও পড়ুন