• ঢাকা
  • রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২২, ২০২১, ০১:৫৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ২৩, ২০২১, ১২:০৫ পিএম

আলাপ

শ্যাম বেনেগাল বলেন, ডোন্ট ওয়ারি মাই ফ্রেন্ড : শুভ

ভারতের মুম্বাইয়ে ২৫ জানুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে যৌথ প্রযোজনার ছবি ‘বঙ্গবন্ধু’র প্রথম পর্যায়ের কাজ। চলবে এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত। এতে অংশ নিতে এর মধ্যেই মুম্বাইয়ের বিমান ধরেছেন বেশ ক’জন অভিনয়শিল্পী ও কলাকুশলী। তার আগে বাংলাদেশস্থ ভারতীয় দূতাবাসের আয়োজনে ঢাকার এক পাঁচ তারকা হোটেলে হয়ে গেলো বাংলাদেশী শিল্পী ও কলাকুশলীদের মিলনমেলা।

বায়োপিক ‘বঙ্গবন্ধু’ তে ‘বঙ্গবন্ধু’ চরিত্রে অভিনয় করছেন আরেফিন শুভ। ১৯ জানুয়ারি মুম্বাইয়ের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন তিনি। তার আগে তিনি কথা বলেছেন প্রস্তুতিসহ নানা বিষয়ে। শুরুতেই শুভ’র কাছে প্রশ্ন ছিল, কোন চাপ বোধ করছেন কি না? শুভ তাকালেন পেছন ফিরে। বললেন, ‘আজ থেকে ১৬/১৭ বছর আগে একটি ছেলে, একটি ছোট্ট মফস্বল শহর থেকে ২৫৭ টাকা নিয়ে ঢাকায় এসেছিল। সেই ছেলেটা আজ, হাজার বছর বললেও কম বলা হবে, শ্রেষ্ঠ যে বাঙালি, তাঁর চরিত্রে আমি আমি অভিনয় করব। একজন অভিনয় শিল্পী হিসেবে, একজন মানুষ হিসেবে, একজন বাঙালি হিসেবে এর থেকে বড় সম্পত্তি, এর থেকে বড় মুহূর্ত আমার মনে হয় না, আর কিছু হতে পারে। আবেগ তাড়িত না হয়ে যদি বলি, বোধহয় মানুষের জীবনে কিছু মুহূর্ত থাকে, যা ভাষায় বা কোন শব্দে প্রকাশ করা যায় না, আমি এতটাই অভিভূত, এতটাই শিহরিত। আর এর থেকেও বেশী, যাঁর রোল আমি প্লে করব, আরও হাজার বছরেও তাঁর মতো মানুষ হবে কি না, আমার জানা নেই। আমি তো তাঁর মতো হতে পারব না কোনদিন, তবে চেষ্টা করব, আমি যতটুকু সংগ্রহ করেছি, তাঁর বিষয়ে তথ্য, তাঁর ভাবনা-যতটুকু পেরেছি জানবার, ভাববার-আমি চেষ্টা করব স্বচ্ছ, সততার সাথে প্লে করতে’।

এর মধ্যেই কুলাকুশলীরা দীর্ঘ চার ঘন্টা অন্তরঙ্গ সময় কাটিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার সঙ্গে। শুভ জানালেন, ‘প্রধানমন্ত্রী এবং ছোট আপা’র থেকে তো কেউ বঙ্গবন্ধুকে বেশী এক্সপ্লেইন করতে পারবে বলে আমার মনে হয় না। তিনি বলেছেন তাঁর বাবার বিভিন্ন দিক নিয়ে। বিভিন্ন স্বভাব, তাঁর অঙ্গভঙ্গি, তাঁর ভাবনা, তাঁর জীবন দর্শন। খুব অল্প সময়ে যতটুকু বলার তিনি চেষ্টা করেছেন আমাকে বলার।’

এমন চরিত্র চিত্রায়ণে তাঁর নিজের বিবেচনায় কোন কমতি আছে কি না, এমন প্রশ্নে আরেফিন শুভ বললেন, ‘একজন শিল্পী হিসেবে বলবো, যে কোন শিল্পীরই তাদের কাজে কমতিটা থাকেই। তারা তৃপ্ত হন না। অবশ্যই আমার মনে হয়, আমার অনেক কমতি আছে। তা সত্ত্বেও এটা বলতে হয়, যিনি এই ছবি বানাচ্ছেন এবং যারা এই ছবির পেছনে আছেন, তারা পৃথিবী স্বীকৃত মানুষ। তাদের কাজ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মানুষের কাছে স্বীকৃত। আমাদের পরিচালক শ্যাম বেনেগাল, যথেষ্ট বয়োজ্যেষ্ঠ। অসংখ্য হিস্টোরিক্যাল কাজের অংশ তিনি। আমি বিশ্বাস করি, তিনি আমাকে যে চরিত্রটা দিয়েছেন, তা বুঝে শুনেই দিয়েছেন। কোভিডের জন্য তো আমরা সামনাসামনি কর্মশালাগুলো করতে পারিনি। আমার চরিত্রটা আমাকে কনফার্ম করা হয়েছে গেল বছরের ফেব্রুয়ারির ৬ তারিখ। তার আগে তিন-চার মাস অডিশন হয়েছে। বলতে গেলে, তারপর থেকেই ওয়ার্কশপ চলছে অনলাইনে। অসাধারণ একজন মানুষ। বয়োজ্যেষ্ঠ হয়েও শিশুশুলভ। এবং তিনি প্রত্যেকবার কথা বলার সময় একটা কথা বলেন, ডোন্ট ওয়ারি মাই ফ্রেন্ড, এভরিথিং উইল বি ফাইন। এই যে, ডোন্ট ওরি মাই ফ্রেন্ড, তাঁর মতো মানুষ আমাকে বলছে, আমার কাঁধে হাত রেখে, এটা কোনদিন কল্পনায়ও আমি ভাবতে পারিনি। যেদিন শ্যাম বেনেগাল আমার মতো একজন খুবই সামান্য শিল্পীর কাঁধে হাত দিয়ে কথাটি বললেন, তখন ভেতরে আর কোন ভয় থাকে না’।