• ঢাকা
  • শনিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২১, ২৭ চৈত্র ১৪২৭
প্রকাশিত: মার্চ ৭, ২০২১, ০১:০৬ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মার্চ ৭, ২০২১, ০১:০৭ পিএম

চলচ্চিত্রে ৭ মার্চ

চলচ্চিত্রে ৭ মার্চ
‘আগুনের পরশমনি’ চলচ্চিত্রের একটি দৃশ্য। ছবি: ইউটিউব

বাঙালি জাতির জীবনে ৭ মার্চ অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ একটি দিন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যুগান্তকারী ভাষণের স্মারক হিসেবে দিনটি অবিস্মরণীয় হয়ে আছে। এই ভাষণ বাঙালি জাতিকে এক করেছিল মহান স্বাধীনতার যুদ্ধে। কালজয়ী ভাষণটি তাই পেয়েছে আন্তর্জাতিক সম্মাননা।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র নির্মিত হলেও ৭ মার্চ উপজীব্য করে নির্মিত হয়নি কোনো চলচ্চিত্র। তবে মুক্তিযুদ্ধের চলচ্চিত্রে নানাভাবে উঠে এসেছে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক ভাষণটি। ছবিগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো— চাষী নজরুল ইসলাম পরিচালিতওরা ১১ জন, হুমায়ূন আহমেদের আগুনের পরশমনি, মোরশেদুল ইসলামের আমার বন্ধু রাশেদ, শাহ আলম কিরণের ৭১ এর মা জননী এবং মুশফিকুর রহমান গুলজারের লাল সবুজের সুর

৭ মার্চ নিয়ে পূর্ণাঙ্গ চলচ্চিত্র নির্মাণ না হওয়ার কারণ হিসেবে লগ্নির অভাবকে দুষছেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা। শাহ আলম কিরণ বলেন, “আসলে এই দায়টা আমাদের। আমরা এরকম একটি ঐতিহাসিক ভাষণ নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে পারছি না। এর কারণ, লগ্নির অভাব। তাছাড়া এখন এই সময়ে ওই সময়ের প্রেক্ষাপটে চলচ্চিত্র নির্মাণ করা বেশ কষ্টসাধ্য। শুধু তাই নয়, ৭ মার্চ নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে হলে সাহসের প্রয়োজন। সেই সঙ্গে গবেষণার দরকার আছে।”

এদিকে মুশফিকুর রহমান সরকারকে এগিয়ে আসার দিকে গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, “অনুদানের চলচ্চিত্রে ঐতিহাসিক পেক্ষাপটের চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য আলাদা বাজেট রাখা দরকার। লোকসানের অভাবে অনেক প্রযোজক এধরনের ছবি প্রযোজনা করতে চান না। সেজন্য সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে।”

তবে এ প্রজন্মের কয়েকজন পরিচালক ৭ মার্চের আলোকে চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন। সোহেল রানা বয়ানী ৭ মার্চ ভাষণকে কেন্দ্র করে নির্মাণ করছেন তর্জনী নামে একটি চলচ্চিত্র।

চলচ্চিত্রটি প্রসঙ্গে সোহেল রানা বলেন, “আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু—এই দুইটি বিষয়ই আমাদের দেশপ্রেমের কেন্দ্রবিন্দু। সেখান থেকেই আমি চেয়েছিলাম আমার প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটি হোক মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকে ঘিরে। সেভাবেই চিত্রনাট্যকার আর আমি বারবার বসেছি কিভাবে মুক্তিযুদ্ধকে নতুন একটা পয়েন্ট অব ভিউ থেকে তুলে ধরা যায়। কিভাবে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের মূল জায়গাটাকে ফোকাস করা যায়। দীর্ঘ আলোচনার মাধ্যমেই আমরা সিদ্ধান্ত নিই ৭ই মার্চের ভাষণ নিয়ে কাজ করতে।”

তরুণ নির্মাতা অরণ্য পলাশও ঐতিহাসিক এই ভাষণ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে গন্তব্য নামে একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন। নির্মাতা সূত্রে জানা গেছে, ১৯ মার্চ ছবিটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে।