• ঢাকা
  • বুধবার, ২২ মে, ২০১৯, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
Bongosoft Ltd.
প্রকাশিত: মে ১২, ২০১৯, ০৭:৫৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মে ১৫, ২০১৯, ০৮:০৭ পিএম

 হস্তশিল্পের শহর জামালপুর

শওকত জামান
 হস্তশিল্পের শহর জামালপুর

ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ের শহর জামালপুর। গড়ে উঠেছে হস্তশিল্পের শহর ।   এখানের নারীরা কারুকাজ খচিত পণ্য তৈরি করছে প্রতিনিয়ত।  ঘরে ঘরে কাপড়ে সুচি কর্মের মধ্যমে  ফুটিয়ে তোলা হচ্ছে শিল্পকর্ম। নিপুণ হাতে হস্তশিল্পের সব সম্ভারে এখন জামালপুর শিল্পের শহর হিসেবে খ্যাতি পেয়েছে সারা দেশে

 জামালপুর শহর বা শহরতলী এমকি অনেক গ্রামেও চোখে পড়বে  হস্তশিল্পের পণ্য তৈরির কারখানা।এখানকার  মহল্লায় মহল্লায় প্রায় ঘরেই চোখে পড়বে সারি সারি হস্ত শিল্পের দোকান। শহরে চলার পথে চোখ ধাঁধিয়ে যাবে শিল্প কর্মের বিক্রির বাজার দেখলে। সারা দেশে থেকে এখানে আসে পন্য সম্ভার কিনতে। জামালপুর শহরের রাস্তার দু’ধারে শোরুমে নারী বিক্রেতাদের হস্তশিল্প পণ্য বেচাকেনার দৃশ্য মিলবে দু’ কদম পর পর।

বন্যা ও নদীভাঙন কবলিত দরিদ্র এ জেলায় বেকারত্ব ঘোচাতে বিশেষ ভূমিকা রেখেছে এই শিল্প। এ অঞ্চলে গ্রামীণ অর্থনীতিতে এনে দিয়েছে গতি। জামালপুরের হস্তশিল্পের পণ্য রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে খ্যাতি অর্জন করে পরিচিতি পেয়েছে বিদেশেও। জামালপুরের হস্তশিল্প পণ্য এখন বিদেশে রুপ্তানি হচ্ছে। হস্তশিল্পে এ জেলার বেকার নারীদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হওয়ায় লাভজনক এ পেশায় পুরুষরাও ঝুঁকছে।

 জামালপুরের ঐতিহ্য নকশী কাঁথা। এক সময়  গ্রামীণ বিয়েতে অনিবার্য ছিল নকশি কাঁথা। নতুন কনের শ্বশুর বাড়ি যাত্রায় বাবার বাড়ি থেকে নকশি কাঁথা নেওয়ার রেওয়াজ ঐতিহ্যগত ভাবে চালু অনেক আগে থেকে। দিন বদলের সাথে সাথে  প্রায় হারিয়ে যেতে বসা এই নকশি শিল্প আবার জেগে উঠেছে । জামালপুর জেলা জুড়ে এখন চলছে নকশী শিল্পের বিবর্ত আর  সূচি শিল্পের বাণিজ্যিক প্রসারেরর কাজ। নকশী কাথার মধ্যে এক সময় যা সীমাবদ্ধ ছিলো্ সেই সূচি শিল্প এখন তৈরী করছে থ্রিপিচ থেকে গামছা পর‌্যন্ত। 

প্রায় হারিয়ে যেতে বসা গ্রামীণ নকশী সূচি শিল্পের বাণিজ্যিক প্রসার জামালপুরে শুরু হয় আশির দশকের শুরুর দিকে। বর্তমানে জামালপুর সদরসহ পুরো জেলায় প্রায় ২৫ হাজার দরিদ্র নারী এই পেশায় জড়িত। এতে স্বাবলম্বী হয়ে উঠছে অনেক হত দরিদ্র নারী। সংসারের অন্যান্য কাজের পাশাপাশি তারা ঘরে বসেই নকশি কাঁথা, নকশি চাঁদর, পাঞ্জাবী, ফতুয়া, কটি, ওয়ালম্যাট, কুশন কভার, শাড়ির নকশি পাড়, থ্রী-পিস ওড়নাসহ নানা রকম নকশি সামগ্রীর সূচি কর্ম করছে।নকশী ফর্ম ভেঙে চলছে নতুন ফর্মের রূপান্তর।  সূচি শিল্পের মধ্য দিয়ে এই অঞ্চলের গ্রামীণ অর্থনীতির চিত্রেএকদম  পাল্টে গেছে। ব্রহ্মপুত্র পাড়ের বাড়িভাঙা, হতদরিদ্র পরিবারগুলো মাথা উচু করে দাঁড়িয়েছে। এর মূল চাকাটা ঘোরাচ্ছে শুধিুমাত্র নারীরা। শ্রম -মেহনত দিয়ে অসংখ্য দরিদ্র নারী তদার আর্থিক সংস্থান খুঁজে নিয়েছে সূচি শিল্পের মাধ্যমে। অসংখ্য দরিদ্র নারী এই শিল্পের সাথে জড়িয়ে পড়েছে এবং বদলে দিয়েছে অর্থনীতির চিত্র । বিপণন সমস্যা আর পুঁজির অভাব দূর হলে এ অঞ্চল হতে পটারে দেশ বিদেশের অনুসরনীয় দৃষ্টান্ত। 

এছাড়াও বাড়তি আয়ের জন্য অনেক মধ্যবিত্ত পরিবারের গৃহিনীরাও জড়িয়ে পড়েছে এ শিল্পের সাথে। শহরের পাড়া মহল্লায় গড়ে উঠেছে এ শিল্পের অসংখ্য ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান। পুরনো ঐতিহ্য ও নকশা অনুসরণ করে গ্রামীণ নারীরা সূচ, সুতা-রঙের সমন্বয়ে কাঁথাসহ এই সব দ্রব্যে নানা সৌন্দর্য ফুটিয়ে তোলে তাদের নিপুণ হাতে।

জামালপুরের নকশি পণ্যের কদর বাড়ছে দেশে-বিদেশে।জামালপুর জেলা শহরেও রয়েছে এ শিল্পের ছোট-বড় অনেক শো-রুম। কিন্তু বিপণন সমস্যা, সরকারি পৃষ্টপোষকতা আর পুঁজির অভাবে শ্রমের ন্যায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এখানকার নারী কর্মীরা।

ইচ্ছে মতো মালিকের দেয়া অল্প মজুরিতেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় তাদের। আর স্থানীয় ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা বলছেন, একটি নকশি কাঁথা তৈরি করতে মজুরিসহ খরচ হয় ১৬০০ থেকে ১৮০০ টাকা। ঢাকার পাইকারি ব্যবসায়ীদের নিকট তা বিক্রি করতে হয় ২০০০ টাকায়। এই কাঁথা ঢাকার বড় বড় বিপণি বিতানগুলোতে বিক্রি হয় ৪ থেকে ৫ হাজার টাকায়। পুঁজির অভাবে তারা নিজেরা বাজারজাত করতে পারছেন না এসব পণ্য। ফলে পণ্যের ন্যায্য মূল্য থেকে নিজেরা যেমন বঞ্চিত হচ্ছেন, তেমনি যথাযথ শ্রমমূল্য পাচ্ছেনা নারী শ্রমিকরা।

জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার নয়ানগর ইউনিয়নের শ্যামপুর গ্রামের জেসমিন আলম বলেন, একসময় গৃহিনী ছিলাম। স্বামী সামসুল আলম বেকার হয়ে পড়ে। সংসার ঋনের চাপে পড়ে অভাব অনটন দেখা দেয়। সংসারে যোগান দিতে হস্তশিল্পের কাজ শুরু করি। নিজে স্বাবলম্বীর মুখ দেখার পর এলাকার বেকার নারীদের নিয়ে মৌচাক নামে সংগঠন গড়ে তুলি। সেখানে হস্তশিল্প ও কাপড় সেলাইয়ের প্রশিক্ষণ দিয়েছি ৬শ বেকার নারীকে। তারা এখানে প্রশিক্ষণ নিয়ে হস্তশিল্পে জড়িয়ে আয় করে সংসারে যোগান দিচ্ছে। মেলান্দহ বাজারে শাপলা মার্কেটে মৌচাক মহিলা অঙ্গন নামে হস্তশিল্প পণ্যের সুরুম দিয়েছি। জাতীয় শ্রেষ্ঠ জয়িতা ও জাতীয় শ্রেষ্ঠ নারী উদ্যোক্তার পুরস্কার পেয়েছি। বেকার নারীদের আহবান করছি হস্তশিল্পের পেশায় ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ রয়েছে। ঘরে বসে না থেকে অলস হাতকে কর্মির হাতে পরিণত করলে সাফল্য আসবেই।

আরেক সফল হস্তশিল্প নারী উদ্যোক্তা দেলোয়ার বেগম। তার প্রতিষ্ঠান শহরের মাদ্রাসা রোডে দীপ্ত হস্তশিল্প। সংসারের কাজের পাশাপাশি সখের বসে হস্তশিল্পের কাজ করার এক পর্যায়ে বানিজ্যিকভাবে জড়িয়ে পড়েন পেশাটিতে। ব্যবসায় বুদ্ধিমতা ও পরিশ্রম খাটিয়ে নারী উদ্যেক্তাদের মধ্যে সফল তিনি। এলাকায় খুচরা ব্যবসার পাশাপাশি দেশের অন্যত্র ও বিদেশে যাচ্ছে দীপ্ত কুটির শিল্পের তৈরি হস্তশিল্পজাত পণ্য। ভারতসহ নানা দেশে হস্তশিল্পের মেলায় দেলোয়ারা বেগম অংশ নিয়ে দীপ্ত কুটিরের হস্তশিল্পের পণ্য প্রদর্শন করেছে। দেলোয়ার বেগম জেসমিন আলমের মতো হস্তশিল্পে অনেক নারীই দেখেছে সাফল্যের মুখ।

হস্তশিল্প এসোসিয়েশনের উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর সেলিম বলেন, আমাদের স্বপ্নের নকশি পল্লী গড়ে উঠলে উদ্যোক্তাদের মধ্যে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় গতিশীলতা আসবে। দূর হবে হস্তশিল্পকর্মীদের পণ্য বাজারজাত সমস্যা। দেশ বিদেশের ব্যবসায়ীরা নকশিপল্লীতে আসবে পছন্দের পণ্য কিনতে। দেশের বাইরেও পণ্যটির রয়েছে ব্যাপক চাহিদা। রপ্তানি করতে পারবে বিদেশেও। দেশের গার্মেন্ট শিল্পের পরেই জামালপুরের হস্তশিল্প দেশের অর্থনীতির প্রাণ প্রবাহ তৈরিতে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন হস্তশিল্প সংশ্লিষ্টরা।


হস্তশিল্প পণ্যের নিজস্ব বাজার গড়ে উঠলে হত দরিদ্র নারী শ্রমিকরা একদিকে যেমন তাদের কাজের  শ্রম মূল্য সঠিকভাবে পাবেন। পাশাপাশি দরিদ্র এই জেলায় গ্রামীণ অর্থনীতির চিত্র অচিরে বদলে যাবে। এজন্য যাদের দৃষ্টি দেয়া জরুরি তারা কি দৃষ্টি দেবেন?


 

Space for Advertisement