• ঢাকা
  • বুধবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৮ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১, ২০১৯, ০৯:০০ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : সেপ্টেম্বর ১, ২০১৯, ০৯:০০ পিএম

ডেঙ্গু থেকে সুস্থ হবার ৬ মাসে রক্তদান বিপজ্জনক

রিকু আমির
ডেঙ্গু থেকে সুস্থ হবার ৬ মাসে রক্তদান বিপজ্জনক
হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ডেঙ্গু আক্রান্তরা

দুই সপ্তাহ আগে ডেঙ্গুজ্বর থেকে সুস্থ হয়েছেন ব্যাংকার খালিদ হোসেন। কর্মক্ষেত্রে তিনি সরবও হয়েছেন। সম্প্রতি ডেঙ্গু আক্রান্ত তার একজন স্বজনের রক্ত প্রয়োজন হয়। খালিদ হোসেন যান রক্ত দিতে। কিন্তু সেই স্বজনের চিকিৎসক খালিদের ডেঙ্গু থেকে আরোগ্য লাভের কথা শুনে বলেন, অন্তত ছয়মাস রক্তদান থেকে বিরত থাকতে হবে। নাহলে ক্ষতির আশঙ্কা আছে।

গত ৩০ আগস্ট ঢাকার ফার্মগেট কাসুন্দী রেস্তোরাঁ একজন বন্ধুর সঙ্গে খেতে খেতে কথাগুলো বলছিলেন খালিদ হোসেন। এসময় পাশে ছিলেন দৈনিক জাগরণ প্রতিবেদক। জানতে চাইলে খালিদ হোসেন বলেন, আমি তো সুস্থই। এনার্জি পাচ্ছি, কাজ করছি। কিন্তু রক্ত দিতে পারলাম না। চিকিৎসক আমাকে সতর্ক করলেন।

কিন্তু কেন? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডেঙ্গু থেকে সদ্য সুস্থতা অর্জন মানেই যে দেহ থেকে ডেঙ্গুর জীবাণু পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে, তা নয়। এটা সুপ্ত অবস্থায় থেকে যেতে পারে, কিন্তু ক্ষতি করবে না। একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত সঠিক পরিচর্যার মাধ্যমে সদ্য সুস্থ ব্যক্তির দেহে প্রতিরোধ ক্ষমতা অর্জনের পর রক্তদান করলে তা নিরাপদ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপদ রক্ত পরিসঞ্চালন বিভাগের প্রাক্তন বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক আসাদুল ইসলাম রোববার (০১ সেপ্টেম্বর) বিকালে দৈনিক জাগরণকে বলেন, ডেঙ্গু থেকে সুস্থতা অর্জনের পর কমপক্ষে ৬ মাস রক্তদান থেকে বিরত থাকা বাধ্যতামূলক। না হলে যাকে রক্তদান করা হবে, তার মধ্যে ডেঙ্গু সংক্রমিত হবার আশঙ্কা থাকে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার কাজী শাহিনুর রহমান বলেন, শুধু যে ছয়মাস রক্তদান থেকে বিরত থাকতে হবে, তা নয়। পাশপাশি এই ছয় মাস সুস্থতা অর্জন করা রোগীকে মশারির মধ্যে থাকতে হবে। কেননা, যদি জীবাণু থেকেই যায়, সে অবস্থায় তাকে সুস্থ এডিস মশা কামড়ের মাধ্যমে ডেঙ্গু ছড়িয়ে দিতে পারে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপদ রক্ত পরিসঞ্চালন বিভাগের প্রাক্তন বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক আসাদুল ইসলাম বলেন, এ বছর ডেঙ্গুর যে অবস্থা, তাতে রক্তের চাহিদা এমনিতেই বেড়ে গেছে। এমন অবস্থায় দেখা যেতে পারে, ডেঙ্গু থেকে সুস্থ হওয়া ব্যক্তি সুস্থতা অর্জনের ৬ মাস আগেই রক্তদান করতে আগ্রহী হয়ে উঠতে পারেন। এটা থেকে অবশ্যই বিরত থাকতে হবে। না হলে ডেঙ্গুর প্রার্দুভাব কমানো কিছুটা জটিল হয়ে উঠতে পারে।

আরএম/বিএস 

আরও পড়ুন