• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই, ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭
প্রকাশিত: জুন ৩, ২০২০, ০২:৪২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ৩, ২০২০, ০২:৫০ পিএম

কোভিড-১৯

তরতর করে বেড়েই চলছে মৃত্যু ও শনাক্তের সংখ্যা

এসএম মুন্না
তরতর করে বেড়েই চলছে মৃত্যু ও শনাক্তের সংখ্যা
অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা

আক্রান্তের ৮৮তম দিন

....

গত ২৪ ঘণ্টা দেশে মারা গেছেন আরও ৩৭ জন। এর মধ্যে ২৮ জন পুরুষ ও ৯ জন নারী। এ নিয়ে মোট প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে গিয়ে দাঁড়াল ৭৪৬ জনে। 

গত ২৪ ঘণ্টায় (মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বুুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) দেশে নতুন করে ২ হাজার ৬৯৫ জনের দেহে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট শনাক্ত হলেন ৫৫ হাজার ১৪০ জন। 

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৪৭০ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ১১ হাজার ৫৯০ জন।

বুধবার (২ জুন) দুপুরে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য তুলে ধরেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

ঢাকা এবং ঢাকার বাইরে মোট ৫০টি ল্যাব থেকে গত ২৪ ঘন্টায় মোট ১৫ হাজার ১০৩ টি নমুনা সংগ্রহ হয়েছে। এখান থেকে ১২ হাজার ৫১০ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৫৮৩ টি।

নমুনা বিবেচনায় গত ২৪ ঘন্টায় শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৫৪ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ২১ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

মঙ্গলবার (৩১ মে) শনাক্ত হয় ২ হাজার ৯১১ ও মারা যায় ৩৭ জন। 

গত ২ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশে করোনাভাইরাস শনাক্তের পরীক্ষা শুরু করে। ৮ মার্চ দেশে প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। ১৮ মার্চ প্রথম কোনও করোনা রোগী মারা যায়।

দেশে গত ২৮ এপ্রিল করোনা রোগী শনাক্ত হয় ৫৪৯ জন। এর পর ধারবাহিকভাবে শনাক্তের সংখ্যা বাড়তে থাকে। ১ জুন ২,৩৮১ ও ২ জুন ২,৯১১ জন শনাক্ত হয়।

দিন দিন করোনা রোগী শনাক্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ায় নড়েচড়ে বসে সরকার। ভাইরাসটি যেন ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য ২৬ মার্চ থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয় সব সরকারি-বেসরকারি অফিস। কয়েক দফা বাড়ানো হয় সেই ছুটি। এ ছুটি আরেক দফা বাড়িয়ে ৩০ মে পর্যন্ত করা হয়।

বিশ্বে করোনায় প্রাণ গেছে আরও সাড়ে ৪ হাজার মানুষের। নতুন করে আক্রান্ত ১ লাখ ১০ হাজার। সবচেয়ে বেশি প্রাণহানি ও আক্রান্ত ব্রাজিলে। দেশটিতে একদিনে মারা গেছেন ১ হাজার ২৩২ জন। আক্রান্ত ২৭ হাজার।

যুক্তরাষ্ট্রে মঙ্গলবার মারা গেছেন ১ হাজার ১৩২ জন, যুক্তরাজ্যে ৩২৪ এবং মেক্সিকোতে ২৩৭ জন। তবে স্পেনে গেলো ২৪ ঘণ্টায় কারও মৃত্যু হয়নি।

আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়ে যাওয়ায় নতুন করে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে আর্মেনিয়া।

আক্রান্ত বাড়ায় কড়াকড়ি বাড়িয়েছে জিম্বাবুয়ে সরকার। ইয়েমেনেও বাড়ছে করোনার সংক্রমণ।

জাপানের টোকিওতে সংক্রমণ বাড়ায় নাগরিকদের প্রয়োজন ছাড়া ঘরে থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে।

ভারতে একদিনে ২২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন আক্রান্ত ৮ হাজার আটশোর বেশি।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোর দর্শনার্থীদের জন্য সীমান্ত খুলে দিয়েছে লাটভিয়া। দুবাইয়ে আজ থেকে খুলে দেয়া হয়েছে সব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও শপিংমল। এ পর্যন্ত বিশ্বে করোনা আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ২৯ লাখ ৮৬ হাজার জন।

এসএমএম

আরও পড়ুন