• ঢাকা
  • সোমবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২১, ৫ মাঘ ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ৯, ২০২১, ০৪:২০ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ৯, ২০২১, ০৪:২০ পিএম

হৃদরোগের সংকেত দেবে যে লক্ষণগুলো

জাগরণ ডেস্ক
হৃদরোগের সংকেত দেবে যে লক্ষণগুলো

হৃদরোগ এক নীরব ঘাতক। যেকোনো সময় হতে পারে ঘাতক এই রোগটি। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে হৃদরোগে আক্রান্তের আশঙ্কাও ঘিরে ধরে মানুষকে।

হার্ট অ্যাটাকের আগে কিছু প্রতিক্রিয়া দেখা দেয় শরীরে। বুকে চিন চিন ব্যথা কিংবা নিশ্বাস নিতে সমস্যা হলেই ভয় জাগে মনে। কিন্তু এগুলো ছাড়া আরো বেশ কয়েকটি সংকেত মেলে মানবদেহে। চলুন জেনে নিই কোন লক্ষণগুলো হৃদরোগের সংকেত বহন করছে।

বুকে ব্যথা

হঠাৎ করে বুকে ব্যথা হার্ট অ্যাটাকের প্রধান লক্ষণ। একে বলা হয় মাওকার্ডিয়াল ইনফ্রাকশান। এ সময় শিরার মধ্যে রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। কিছু ক্ষেত্রে গতি কমে গেলেও এটা হতে পারে। অনেক সময় দৌড়ঝাঁপ করার সময় শিরা ধমনি দিয়ে যতটা রক্ত যাতায়াত করে, ততটা জোরে হার্ট পাম্প করতে পারে না। তখন ব্যথা হয়। তখন হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কা থাকে।

ব্যথা ছড়িয়ে যাওয়া

বুকের মাঝ থেকে ব্যথা ছড়িয়ে মাঝখান পর্যন্ত যাচ্ছে বুঝবেন হার্ট অ্যাটাকের সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। দেরি না করে শিগগিরই চিকিত্‍সকের পরামর্শ নিন।

হাঁপিয়ে যাওয়া

আগে যে কাজগুলো অবলীলায় করতেন, তা করতেই এখন ভীষণ হাঁপিয়ে যাচ্ছেন। এটাও অন্যতম লক্ষণ। আপনার হার্ট দুর্বল হয়ে পড়েছে। দেরি না করে ডাক্তারের পরামর্শ নিন। 

অনিয়মিত হার্টবিট

অনিয়মিত হার্টবিটও বড় সমস্যা। এটি হলে নিজেই ভালো বুঝতে পারবেন। মাঝেমধ্যে হার্টবিট বাড়বে বা কমবে। তেমন ভয়ানক না হলেও এতে ভয়ের কারণ রয়েছে। নিয়মিত পরীক্ষার মধ্যেই থাকুন। আর দুশ্চিন্তা বাদ দিন।

পা ফুলে যাওয়া

পা-গোড়ালি কিংবা হাত ফুলে যাওয়াও হৃদরোগের সংকেত। হার্টে ঠিকমতো রক্ত পাম্প না করতে পারলে এই সমস্যা হয়। তাই বসে না থেকে দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

হৃদরোগ কাদের বেশি হয়?

হার্ট অ্যাটাক বয়স্কদের ক্ষেত্রেই আগে বেশি দেখা যেত। কিন্তু এখন অল্প বয়সীদের মধ্যেও বেড়ে যাচ্ছে এর প্রবণতা। জাংক ফুড, কাজের নির্দিষ্ট সময় না থাকা, খাওয়া-দাওয়ার অনিয়ম ও ওয়ার্ক ফর্ম হোম হার্ট অ্যাটাকের অন্যতম কারণ।

গবেষণায় দেখা গেছে, পুরুষদের চেয়ে নারীদের হার্ট অ্যাটাক কম হয়। তবে নারীদের মেনোপজের পর হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কা বেড়ে যায়। তাই ওই সময়ের পর সতর্ক থাকতে হয়।