• ঢাকা
  • রবিবার, ০১ আগস্ট, ২০২১, ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮
প্রকাশিত: জুলাই ২০, ২০২১, ১১:২৯ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জুলাই ২০, ২০২১, ১১:৩০ এএম

করোনায় ২০ দিনে বাড়িতে মৃত্যু ২১৮ জন

করোনায় ২০ দিনে বাড়িতে  মৃত্যু ২১৮ জন
ফাইল ছবি

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯)-এ আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে মৃত্যু বেড়েছে বহুগুণ। গত ২০ দিনেই বাড়িতে থেকে মারা গেছেন ২১৮ জন। তাদের বড় অংশের মৃত্যু গ্রামে।

আইইডিসিআর বলছে, দেরিতে করোনা পরীক্ষা ও সময়মতো চিকিৎসা শুরু না করার কারণে বাড়িতে মৃত্যু বাড়ছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী, কুষ্টিয়াসহ ৭ জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে আরও ৮৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে করোনায় ৪৫ জন এবং উপসর্গ নিয়ে ৪১ জন মারা গেছেন।

প্রতিদিন মারা যাচ্ছেন দুইশোর বেশি। এরআগে বেশিরভাগ মৃত্যু রাজধানীতে হলেও এবার তা বেশি মফস্বল এলাকায়।

করোনায় প্রায় সব মৃত্যুই হাসপাতালে। কিন্তু গত ২০ দিনে বাড়িতে করোনায় মারা গেছেন ২১৮ জন। অথচ জুলাইয়ের আগে ৪৮০ দিনে এই সংখ্যা ছিল ২১৪।

দেরিতে করোনা পরীক্ষা করোনা, শনাক্তের পর চিকিৎসা নিতে দেরি, জটিলতার পরও হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে অনীহার কারণে বাড়ছে মৃত্যু।

গত ২৪ ঘন্টায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ইউনিটে ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। যাদের ৪ জন করোনায় এবং উপসর্গ নিয়ে ১৬ জন মারা গেছেন।

কুষ্টিয়ায় গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১৪ এবং উপসর্গ নিয়ে আরো ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই সময়ে শনাক্তের হার ৩৩ দশমিক ৩৬ শতাংশ। চট্টগ্রামের বিভিন্ন হাসপাতালে করোনায় মারা গেছেন ১৫ জন।

সাতক্ষীরায় উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ১০ জন। কিশোরগঞ্জে গত ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময়ে ৫১৪ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৯৬ জনের করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

আইইডিআরের পরামর্শ, করোনার উপসর্গ দেখা দিলে দ্রুত পরীক্ষা করাতে হবে। আক্রান্ত হলে নিতে হবে চিকিৎসা। বয়স্কদের ক্ষেত্রে প্রয়োজন বাড়তি সতর্কতা।

চিকিৎসকরা বলছেন, আক্রান্ত কেউ বাড়িতে চিকিৎসা নিলেও অন্তত দুই ঘণ্টা পর পর পালস অক্সিমিটারে অক্সিজেন স্যাচুরেশন দেখতে হবে। রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা কমে গেলে দ্রুত ভর্তি হতে হবে হাসপাতালে।

জাগরণ/এসএসকে