• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৯, ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: নভেম্বর ৯, ২০১৯, ০২:৩৯ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ৯, ২০১৯, ০২:৩৯ পিএম

অযোধ্যা মামলা নিষ্পত্তিকারী এই ৫ বিচারপতি কারা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
অযোধ্যা মামলা নিষ্পত্তিকারী এই ৫ বিচারপতি কারা
সৌজন্যে- নিউজ ১৮

নানা নাটকীয়তা এবং চরম উৎকন্ঠার মাঝে শেষ পর্যন্ত ভারতের রাম জন্মভূমি খ্যাত অযোধ্যার ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদ মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের দেয়া ঐতিহাসিক এই রায়ে জানিয়েছে, বাবরি মসজিদ যেখানে ছিল সেই স্থানে শর্তসাপেক্ষে জমি পাবে হিন্দুরা। তবে মসজিদ নির্মাণের জন্য মুসলিমদের বিকল্প জমি বরাদ্দের নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। 

শনিবার (৯ নভেম্বর) বাংলাদেশ সময় বেলা ১১টায় বিচারপতি রঞ্জন গগৈ এর নেতৃত্বাধীন ৫ সদস্যের একটি সাংবিধানিক বেঞ্চ এই রায় ঘোষণা করেন। মামলার সংবেদনশীলতা বিচার করে এরইমধ্যে এই পাঁচ বিচারপতির নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। এক নজরে ঐতিহাসিক এই রায়ের নিষ্পত্তিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনকারী এই ৫ বিচারক-

প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ:

প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ অসমের বাসিন্দা। উত্তরপূর্ব থেকে তিনিই প্রথম দেশের বিচার ব্যবস্থার সর্বোচ্চ আসনে বসেন ২০১৮-র অক্টোবরে। ১৯৭৮ সালে বারে নাম লেখান তিনি। গুয়াহাটি হাইকোর্টে তিনি প্র্যাকটিস করতেন। ২০০১-এর ২৮ ফেব্রুয়ারি সেখানকার স্থায়ী বিচারপতি হন। সেখানথেকে তাঁকে পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টে বদলি করে দেওয়া হয়। সেখানকার প্রধান বিচারপতি হওয়ার পর ২০১২-র এপ্রিলে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি করা হয় তাঁকে। কর্মজীবনে যুগান্তকারী রায়দানের মধ্যে অযোধ্যা ছাড়াও রয়েছে এনআরসি নিয়ে রায়। ১৭ নবেম্বর তিনি পদ থেকে অবসর নেবেন। 

বিচারপতি এসএ ববদে:

বিচারপতি শারদ অরবিন্দ ববদে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ অবসর নেওয়ার পর প্রধান বিচারপতির আসনে বসবেন। ২০০০ সালে বম্বে হাইকোর্টে অতিরিক্ত বিচারপতি হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন। দুবছর পরে তাঁকে মধ্যপ্রদেশ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছিল। মহারাষ্ট্রে জন্ম নেওয়া এই বিচারপতি ২০১৩-র এপ্রিলে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসেবে যোগ দেন। প্রধান বিচারপতির পদে তাঁর কার্যকালের মেয়াদ হবে ১৮ মাস। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছিলেন, অযোধ্যা মামলা বিশ্বের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ।

বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়:

বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়ের বাবা দেশের সবথেকে বেশি সময় থাকা প্রধান বিচারপতি। ডিওয়াই চন্দ্রচূড় সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসেবে যোগ দেন ২০১৬ সালে। এর আগে তিনি বম্বে হাইকোর্ট এবং এলাহাবাদ হাইকোর্টের বিচারপতি পদে কাজ করেছেন। তিনি হাবার্ড থেকে আইন পাশ করেছিলেন। তিনি মুম্বই বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পারেটিভ কনস্টিটিউশনাল ল এবং আমেরিকার ওকলাহামা ইউনিভার্সিটি অফ ল -এর অধ্যাপনাও করেন।

বিচারপতি অশোকভূষণ:

বিচারপতি অশোকভূষণ ১৯৭৯ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্টে আইনজীবী হিসেবে কাজ শুরু করেন বিচারপতি অশোকভূষণ। সেখানে ২০০১-এ বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছিল তাঁকে। ২০১৪ সালে তাঁকে কেরল হাইকোর্টে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এর কয়েকমাস পরে ২০১৫-র মার্চে তিনি সেখানকার প্রধান বিচারপতি হিসেবেই কাজ করেছেন। ২০১৬-র ১৩ মে তাঁকে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছিল।

বিচারপতি আব্দুল নাজির:

বিচারপতি আব্দুল নাজির ১৯৮৩ সালে বিচারপতি আব্দুল নাজির আইনজীবী হিসেবে নিজের নাম নথিভুক্ত করেন কর্নাটক হাইকোর্টে। সেখানে ২০ বছর কাজ চালানোর পর ২০০৩-এর ফেব্রুয়ারিতে অতিরিক্ত বিচারপতির দায়িত্ব পান। সেই বছরেই স্থায়ী বিচারপতির দায়িত্বও পেয়েছিলেন। ২০১৭-র অগাস্টে তাঁকে সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতি নিয়োগ করা হয়। ২০১৭-র অগাস্টে তিনি তৎকালীন প্রধান বিচারপতির সঙ্গে তিন তালাক বিরোধী রায় দিয়েছিলেন।

এসকে

আরও পড়ুন