• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: নভেম্বর ১৪, ২০১৯, ০১:২৫ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ১৪, ২০১৯, ০১:৪০ পিএম

রোহিঙ্গা নিপীড়ন : আর্জেন্টিনায় সু চির বিরুদ্ধে মামলা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
রোহিঙ্গা নিপীড়ন : আর্জেন্টিনায় সু চির বিরুদ্ধে মামলা

মিয়ানমার অধ্যুষিত রাখাইনে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের ওপর জাতিগত নিধনযজ্ঞ পরিচালনায় সেদেশের সামরিক বাহিনীকে সমর্থন প্রদানের অভিযোগে দেশটির নেত্রী অং সান সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে আর্জেন্টিনায়। 

বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা সিএনএন প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য মতে, বুধবার (১৩ নভেম্বর) আর্জেন্টিনায় এই মামলা দায়ের করে দক্ষিণ আমেরিকান কিছু মানবাধিকার সংগঠন। সু চি ছাড়াও এই মামলায় মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর উচ্চপদস্থ বেশ কয়েকজন কর্মকর্তাকে আসামি করা হয়েছে।

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে সূত্রে জানা যায়, রাখাইনে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর গণহত্যা চালানোর জন্য মিয়ানমারের সেনা সমর্থিত নেত্রী অং সান সু চির বিরুদ্ধে আর্জেন্টিনায় মামলা করেছে দক্ষিণ আমেরিকান কিছু মানবাধিকার সংগঠন। যেখানে মামলার আসামি হিসেবে বেশ কয়েকজন সামরিক কর্মকর্তার নামও রয়েছে। এদের মধ্যে সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্লাইংও রয়েছেন।

মামলাটি করা হয়েছে ‘ইউনিভার্স জুরিসডিকশন’ বা ‘বৈশ্বিক বিচার দায়বদ্ধতা’-এর আওতায় । যুদ্ধাপরাধ কিংবা মানবতাবিরোধী অপরাধের মাত্রা যদি ভয়াবহ হয় তবে যেকোনো দেশেই তার বিচার হতে পারে এমন ধারণা থেকে এ আইন করা হয়েছিল। এর আগে এ আইনের আওতায় আর্জেন্টিনার আদালতে বিচার হয়েছে স্প্যানিশ স্বৈরশাসক ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কোর।

এই মামলা প্রসঙ্গে বাদীপক্ষের আইনজীবী টমাস ওজিয়া বলেন, ‘আমাদের চাওয়া মানবতাবিরোধী অপরাধীরা যেন শাস্তি পায়। আশা করছি, মামলায় উল্লেখিত আসামীদের বিরুদ্ধে শিগগিরই আন্তর্জাতিক গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হবে।’

রোহিঙ্গা ইস্যুতে দায়েরকৃত মামলায় প্রতিনিধিত্বকারী গাম্বিয়ার আইন মন্ত্রী অ্যাটর্নি জেনারেল আবুবাকার এম. তাম্বাদো (বামে) -ছবি: এপি  

এ ব্যাপারে বার্মিজ রোহিঙ্গা অর্গানাইজেশনের প্রেসিডেন্ট তুন খিন বলেন, দিনের পর দিন মিয়ানমার সরকার আমাদের উৎখাতে চেষ্টা করে গেছে। আমাদের হত্যা করা হয়েছে এবং নিজের দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয়েছে।’

এর আগে সোমবার (১১ নভেম্বর) রাখাইনে রোহিঙ্গা নিপীড়নকে গণহত্যা আখ্যা দিয়ে ওআইসি'র প্রতিনিধি হিসেবে জাতিসংঘের সর্বোচ্চ আদালতের কাছে বিচার চায় আফ্রিকার দেশ গাম্বিয়া। নিধনযজ্ঞ পেরিয়ে যাওয়ার প্রায় আড়াই বছর পর প্রথমবারের মতো কোনো দেশ এমন পদক্ষেপ নেয়। 

মামলা সংক্রান্ত ৪৬ পৃষ্ঠার অভিযোগপত্রে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর উপর জাতিগত নিধনযজ্ঞ, গণহত্যা, ধর্ষণ ও উচ্ছেদের অভিযোগ আনে দেশটি।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইনের কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকিতে হামলার পর রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন নিপীড়ন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা।

এসকে
 

আরও পড়ুন