• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল, ২০২০, ২৬ চৈত্র ১৪২৬
প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০, ০৫:৩৯ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০, ০৫:৪০ পিএম

পাক সন্ত্রাস ইস্যুতে ভারতের দলে চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
পাক সন্ত্রাস ইস্যুতে ভারতের দলে চীন
আনন্দবাজার পত্রিকার সৌজন্যে

আন্তর্জাতিক মঞ্চে যতবারই পাক সন্ত্রাসের প্রসঙ্গ উঠেছে, ইসলামাবাদের পাশে দাঁড়িয়েছে চীন। কিন্তু এবার সেই বেইজিংই নিজেদের অবস্থান থেকে কার্যত ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে গিয়ে নয়া দিল্লির পাশে দাঁড়িয়েছে।

ভারত সহ আমেরিকা ও ইউরোপিয়ান দেশগুলো সন্ত্রাস দমনে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য পাকিস্তানকে যে বার্তা দিতে চলেছে, সেই তালিকায় এবার যোগ দিচ্ছে চীনও। দলে যোগদান সৌদি আরবও। জুন মাসে ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্সের প্লেনারি সেশন বা পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনের আগে দুই দেশ এবং বিশেষ করে চীনের এই অবস্থান বদল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করছে কূটনৈতিক মহল। আনন্দবাজার।

জঙ্গিদের অর্থ সরবরাহ ও কার্যকলাপের ওপর নজরদারি এবং ব্যবস্থা নেয়ার ক্ষেত্রে এফএটিএফ আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সংস্থা। সন্ত্রাসে মদত দেয়া, অর্থ জোগানোর অভিযোগে ২০১৮ সাল থেকে পাকিস্তানকে ধূসর তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেছে এই এফএটিএফ। এই এফএটিএফ-এর ধূসর তালিকায় থাকার অর্থ- সেই দেশকে নিরাপদ বলে মনে করা হয় না। সন্ত্রাসে মদত দেয়া ও অর্থ জোগানের অভিযোগে ধূসর তালিকাভুক্ত করার অর্থ সেই দেশকে সতর্কবার্তা দেয়া। এর পরের ধাপই কালো তালিকা। সন্ত্রাস দমনে উপযুক্ত ব্যবস্থা না নিলে সংশিষ্ট দেশকে কালো তালিকাভুক্ত করতে পারে এফএটিএফ। দীর্ঘদিন ধরে পাকিস্তানকে ধূসর তালিকায় রেখে সন্ত্রাস দমনে কড়া ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বহুবার বার্তা দিয়েছে এই সংস্থা। কিন্তু কার্যত কোনও কাজ হয়নি।

আগামী জুন মাসে বসছে এফএটিএফ-এর পূর্ণাঙ্গ অধিবেশন। তার আগে সন্ত্রাস দমনে আন্তর্জাতিক মহলে নজরে পড়ার মতো কোনও কড়া ব্যবস্থা না নিলে আরও কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে পারে এফএটিফ। কড়া হাতে শীর্ষ জঙ্গি সংগঠনের নেতাদের বিচার ও শাস্তির জন্য পাকিস্তানকে বলা হতে পারে।

সূত্রের খবর, চীন ও সৌদি আরবের এই অবস্থান বদলের জেরে এবার এটা কার্যত নিশ্চিত, জুনের আগে উপযুক্ত ব্যবস্থা না নিলে পাকিস্তানকে ধূসর তালিকাতেই রাখা হবে। খুব শিগগিরই ফের এ নিয়ে সরকারিভাবে ঘোষণা হতে পারে।

সদস্য দেশগুলোর মধ্যে চীন ও সৌদি আরব সন্ত্রাস ইস্যুতে পাকিস্তানের পাশে দাঁড়িয়েছে বরাবর। কিন্তু তারাও এবার একজোট হওয়ায় পাকিস্তানের বিপদ আরও বাড়তে পারে বলে কূটনৈতিক মহলের পর্যবেক্ষণ। তবে শেষ মুহূর্তে তালিকা থেকে সরে গিয়েছে একমাত্র তুরস্ক। বাকি সব দেশ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে একাট্টা।

গত বছরের অক্টোবরে ভারত সফরে এসেছিলেন চীনের প্রেসিডেন্ট। বেসরকারি সফর হলেও তামিলনাড়ুর মহাবলীপূরমে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও শি চিনফিংয়ের কথা হয়েছিল। শিনফিংয়ের সফরের পর ভারতের বিদেশমন্ত্রক থেকে দুই রাষ্ট্রপ্রধানের যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করে বলা হয়, সন্ত্রাসবাদের সামগ্রিক বিপদ নিয়ে দু’জনই উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। দুই নেতাই মনে করেন, সন্ত্রাসের প্রশিক্ষণ, অর্থ জোগান ও মদতের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক বিশ্বের আরও শক্তিশালী পরিকাঠামো গড়ে তোলা উচিত। একজোট হওয়া উচিত বড় দেশগুলোর। শিনফিংয়ের সফরের কয়েক মাসের মধ্যেই চীনের এই অবস্থান বদল ভারতের কাছে অবশ্যই স্বস্তির খবর। পাশাপাশি চীনের এই অবস্থান বদল ভারতের কূটনৈতিক জয় হিসেবেই দেখছেন কূটনৈতিকরা।

এসএমএম