• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০২০, ৩০ আষাঢ় ১৪২৭
প্রকাশিত: জুন ২০, ২০২০, ০৫:২৫ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ২০, ২০২০, ০৫:২৫ পিএম

টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদন

গভীর হচ্ছে চীন-বাংলাদেশ সম্পর্ক, অস্বস্তিতে ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
গভীর হচ্ছে চীন-বাংলাদেশ সম্পর্ক, অস্বস্তিতে ভারত

লাদাখে সংঘর্ষের পরে ভারত ও চীনের সম্পর্কে গুরুতর অবনতি ঘটেছে। এর মধ্যেই ভারতের দাবিকৃত তিনটি ভূখণ্ড নিজেদের অন্তর্ভুক্ত করে নতুন মানচিত্র পাস করেছে নেপাল। এখানেও চীনের হাত রয়েছে বলে দাবি নয়া দিল্লির। 

এমন নাজুক পরিস্থিতিতে এবার ভারতের ঘনিষ্ঠ মিত্র বাংলাদেশকে কাছে টানার চেষ্টা করছে চীন। শনিবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে এমনটাই দাবি করা হয়েছে।

সংবাদমাধ্যমটি বলছে, লাদাখ সীমান্তের সংঘর্ষে ২০ ভারতীয় সেনার মৃত্যুর পরেও ভারত যখন উত্তেজনা প্রশমনের চেষ্টা করছে, তখন কয়েক হাজার পণ্য রপ্তানিতে শুল্কছাড়ের বিশাল প্রস্তাব নিয়ে ঢাকাকে কাছে টানার চেষ্টা করছে বেইজিং।  বাংলাদেশের ৫ হাজার ১৬১টি পণ্য রপ্তানিতে ৯৭ শতাংশ শুল্কছাড়ের বিষয়ে রাজি হয়েছে চীন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, 'স্বল্পোন্নত দেশ' হিসেবে চীনের কাছে শুল্কছাড়ের প্রস্তাব দিয়েছিল বাংলাদেশ। আশ্চর্যজনকভাবে গত ১৬ জুন, অর্থাৎ লাদাখ সংঘর্ষের মাত্র একদিন পরেই বিষয়টিতে ইতিবাচক সাড়া দেয় বেইজিং। আগামী ১ জুলাই থেকে এ শুল্কছাড় কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

ফলে, এশিয়া-প্যাসিফিক বাণিজ্য চুক্তির আওতায় বাংলাদেশের চীনে শুল্কমুক্ত ৩ হাজার ৯৫টি পণ্য রপ্তানির তালিকায় আরও কয়েক হাজার পণ্য অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, গত ১৬ জুন চীনের অর্থমন্ত্রণালয় থেকে এক বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। তাতে বলা হয়, বাংলাদেশের পণ্যের ওপরে ৯৭ শতাংশ কর ছাড় দেওয়া হবে। এরই মধ্যে এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় বাণিজ্যিক চুক্তি অনুযায়ী চীনে রপ্তানি করা ৩০৯৫ টি পণ্যের ওপরে করছাড় পায় বাংলাদেশ।

চীন বাংলাদেশকে ব্যাপক কর ছাড় দিলে দুই দেশের বন্ধুত্ব আরও গভীর হবে। তাতে অস্বস্তি বাড়বে দিল্লির। এমনিতে চীনের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ বরাবর ভারতের পাশে থেকেছে। কিন্তু গতবছর ভারতে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি ও নাগরিকত্ব সংশোধন আইন নিয়ে অসন্তোষ জানিয়েছে বাংলাদেশ।

সূত্র- টাইমস অব ইন্ডিয়া

এসকে