• ঢাকা
  • শনিবার, ০৮ আগস্ট, ২০২০, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭
প্রকাশিত: জুলাই ১৯, ২০২০, ০৭:২৯ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জুলাই ১৯, ২০২০, ১২:৪৬ পিএম

গণমাধ্যমে সরকার বিরোধী মন্তব্য

বিএনপি নেতার মিথ্যাচারে বিপদে ইতালি প্রবাসী বাংলাদেশিরা

এস এম সাব্বির খান
বিএনপি নেতার মিথ্যাচারে বিপদে ইতালি প্রবাসী বাংলাদেশিরা
ইতালি প্রবাসী বিএনপি নেতা শাহ তাইফুর রহমান ছোটন (বাঁয়ে)

একদিকে ক্ষমতাসীন দলে অনুপ্রবেশ ঘটিয়ে একের পর এক অপকীর্তিতে সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করা অন্যদিকে বিভিন্ন মহলে অপপ্রচার, মিথ্যাচার আর গুজব ছড়িয়ে বিতর্ক উস্কে দেয়া। ক্রমেই পরিষ্কার হয়ে আসছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের বিরুদ্ধে বিএনপি-জামাত চক্রের ঘৃন্য ষড়যন্ত্রের নীলনক্সা। আর তা সফল করতে গিয়ে দেশের অস্তিত্ব এবং আত্মসম্মান নিয়ে বেপরোয়া খেলায় মেতেছে এই চক্র।

সম্প্রতি ইতালিতে ভুয়া করোনা পরীক্ষার সার্টিফিকেট ইস্যুতে বাংলাদেশি প্রবাসীদের যে সমস্যার মধ্যে পড়তে হয়েছে এবং আন্তর্জাতিক ও কূটনৈতিক পর্যায়ে গোটা জাতির যে অপমান সইতে হয়েছে এবার জানা গেল তার নেপথ্য কাহিনী। সাম্প্রতিক ঘটনার প্রেক্ষিতে ইতালিতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য দেশটিতে বসবাসরত বিএনপিপন্থী নেতা শাহ তাইফুর রহমান ছোটনকে সরাসরি দায়ি করছেন প্রবাসীরা।

প্রবাসী বাংলাদেশিরা বলছেন, ইতালিতে বাংলাদেশিদের সাময়িক সময়ের জন্য প্রবেশ নিষিদ্ধ হওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে শাহ তাইফুর রহমান ছোটন নামের এই তারেকপন্থী বিএনপি নেতা। যিনি বিএনপির ইতালি শাখার সাবেক সভাপতি। করোনার ভুয়া সার্টিফিকেট আর চিকিৎসার নামে যখন দেশের বুকে হাওয়া ভবনের 'এজেন্ট' সাহেদের সঙ্গে আরিফ-সাবরিনা সিন্ডিকেট সরকার ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে, তখন সেই সুযোগে বাংলাদেশ সরকারকে দুর্নীতিবাজ প্রমাণ করার জন্য ইতালির সংবাদ মাধ্যমকে একটি সাক্ষাৎকার দেন এই ছোটন।

সাক্ষাৎকারে বিএনপির এই নেতা বলেছেন, ‘যেসব বাংলাদেশি ইতালি আসছে- তাদের সবার কাছে ভুয়া করোনা রিপোর্ট এবং এরকম প্রায় ১০ হাজার লোক ইতালি আসার পথে আছে।’

তার এই সাক্ষাৎকারের পর থেকেই নড়েচড়ে বসে ইতালি সরকার। স্বাভাবিকভাবেই একজন বাংলাদেশি নাগরিক নিজেই যখন এমন তথ্য দেবেন তখন বিদেশি সরকার তো রাষ্ট্রস্বার্থে মরিয়া হবেনই! মূলত এই বিএনপি নেতার গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারের পর থেকেই ইতালি সরকার প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেশটিতে প্রবেশে কড়াকড়ি আরোপ করে।

প্রবাসীরা মনে করছেন, বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার জেরে হত্যাচেষ্টা পরিচালনার মূল হোতা, বিএনপির পলাতক নেতা তারেক জিয়ার নির্দেশে ইতালি বিএনপির এই নেতা বাংলাদেশ সরকারকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বিতর্কিত করার জন্য এ ধরনের মিথ্যা প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছে। অথচ তার সাক্ষাৎকার দেয়ার আগ পর্যন্ত ইতালি সরকার বাংলাদেশিদের কাছে কোন প্রকার করোনা সনদই চায়নি। যে বিষয়টি দেশটিতে কর্তব্যরত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যেও জানা গেছে।

সিনিউজ নামের একটি ইউরোপীয় সংবাদমাধ্যমের তথ্য অনুসারে পাওয়া, ইতালি প্রবাসী বিএনপির এই নেতা ইতালি গণমাধ্যমে যা বলেছিলেন, তার অনুবাদ তুলে ধরা হলো: শাহ তাইফুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশে প্রায় ১০ হাজার প্রবাসী রয়েছে যারা ইতালি আসতে চায়। কারণ, আমরা ধারণা করি ১০ লাখের বেশি বাংলাদেশি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত এবং সেখানে কোন প্রকার চিকিৎসা ব্যবস্থা নেই। বাংলাদেশ একটা দোজখে পরিণত হয়েছে। সেই দোজখ থেকে ১০ হাজার প্রবাসী পালিয়ে ইতালি এসে বাঁচতে চায়। তাই ইতালির উচিত তাদের গ্রহণ করা। তা না করা হলে তারা দোজখে ছটফট করে মা’রা যাবে। এটা ঠিক হবে না। ইতালির উচিত এদের আসতে দেয়া যেভাবে ২৮০ জনকে হিলটন হোটেলে রেখেছে সেভাবে রাখা দেড় দুই লাখ টাকা খরচ করে যারা আসছে, তারা ১৪ দিন কোয়ারান্টাইনে থাকার টাকা হোটেল বুকিং দিয়েও আসতে পারবে। তাছাড়া যেহেতু সরকার টাকা দিচ্ছে কোভিডের সেই টাকা দিয়েও কোয়রান্টাইনে রাখা যায়। কিন্তু তাদের আসতে দিতে হবে দোজখ থেকে এটা সরকারের কাছে বাংলাদেশিদের আপিল।’

এদিকে প্রবাসীরা অভিযোগ করেছেন, বিএনপির এই নেতা বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ সরকারকে ব্যর্থ প্রমাণ করতে গিয়ে ইতালিতে বসবাসকারী প্রায় ২ লাখ বাংলাদেশির ভবিষ্যৎ অ’নিশ্চয়তার মুখে ফেলেছেন। ইতালিতে বাংলাদেশিদের সাময়িক সময়ের জন্য প্রবেশ নিষিদ্ধ হওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে ইতালি প্রবাসী বিএনপিপন্থী নেতা শাহ তাইফুর রহমান ছোটন, যিনি বিএনপির ইতালি শাখার সাবেক সভাপতি।

৩১ জুলাই পর্যন্ত বাংলাদেশিদের ইতালিতে প্রবেশের নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ইতালির লেগা নর্দ দলের নেতা মাতেও সালভিনি তার ফেসবুকে ভিডিওটি শেয়ার করে লেখেন, পা’গল করা জিনিস। ইতালি আওয়ামী লীগের সভাপতি ইদ্রিস ফরাজী ও সাধারণ সম্পাদক হাসান ইকবাল বলেন, ইতালি বিএনপির সভাপতি শাহ তাইফুর রহমান ছোটনের স্থানীয় পত্রিকায় দেয়া সাক্ষাৎকার সম্পূর্ণ দেশবিরোধী। তার এ বক্তব্যের কারণেই ইতালিতে দীর্ঘদিন ধরে সুনামের সাথে বসবাস করা বাংলাদেশিদের আজ অন্য নজরে দেখা হচ্ছে। তারা বিএনপি নেতার এ ধরনের বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানান।এ বিষয়ে জানতে ইতালি বিএনপির সাবেক সভাপতি শাহ তাইফুর রহমান ছোটনকে কয়েকবার ফোন দিলে তিনি কেটে দেন।

জানা গেছে, শাহ তাইফুরের বক্তব্য ইতালির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে সমালোচনার ঝড়। একটি পক্ষ তার মন্তব্য সমর্থন করলেও অধিকাংশ ইতালি প্রবাসী সাধারণ বাংলাদেশিরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। তারা বলছেন, এতগুলো মানুষের ভবিষ্যতকে রাজনীতির বলির পাঠা বানাচ্ছে ছোটনের মত নেতারা।