• ঢাকা
  • সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২০, ১১ কার্তিক ১৪২৭
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০, ০৮:১৭ এএম
সর্বশেষ আপডেট : সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০, ০৮:২৬ এএম

ইউক্রেনে সামরিক প্রশিক্ষণ বিমান বিধ্বস্ত

জ্বলন্ত আগুনে নিভে গেল ২২ তাজা প্রাণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
জ্বলন্ত আগুনে নিভে গেল ২২ তাজা প্রাণ
বিস্ফোরণের পর জ্বলন্ত মরণ ফাঁদে পরিণত হওয়া ইউক্রেনিয়ান বিমানবাহিনীর অ্যান্টোনোভ এএন-২৬ - ফ্রান্স ২৪

ইউক্রেনে এক ভয়াবহ সামরিক পরিবাহণ বিমান (এয়ারক্রাফট) দুর্ঘটনায় অন্তত ২২ সেনা প্রশিক্ষর্ণাথীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। ফ্রান্স ২৪

শুক্রবার ক্রু ও সেনা প্রশিক্ষনার্থীসহ মোট ২৭ জন যাত্রী নিয়ে ইউক্রেনিয়ান বিমানবাহিনীর অ্যান্টোনোভ এএন-২৬ পরিবাহণ বিমানটি প্রশিক্ষণমূলক উড্ডয়ণ শেষে অবতরণকালে এতে আগুন ধরে যায়। দেশটির দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের শ্যুহুইভ প্রদেশে একটি মহাসড়কের পাশে জরুরি অবতরণের কয়েক মুহূর্ত পরেই প্রবল বিস্ফোরণে পুরো বিমানটি জ্বলন্ত অগ্নিপিণ্ডে পরিণত হলে, জীবন্তদগ্ধ হয়ে ইউক্রনিয়ান বিমানবাহিনীর ২২ প্রশিক্ষণার্থী ঘটনাস্থলেই মৃত্যুবরণ করেন। এ ঘটনায় বিমানটির বাকি আরোহিরা গুরুতর আহত হন। আহতদের মধ্যে ২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজঙ্ক বলে জানিয়েছে ফরাসী বার্তা মাধ্য ফ্রান্স ২৪।

ইউক্রেন সেনাবাহিনীর জেনারেল স্টাফ রুসলান খোমচেক এক বিবৃতিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সংবাদমধ্যমটির প্রতিবেদনের তথ্য মতে, দ্রুততম সময়ের মধ্যে উদ্ধারকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে এক ঘন্টাব্যাপী চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। পরবর্তীতে উদ্ধার কাজ শুরু হলে বিমানের ধ্বংসস্তূপের ভেতর থেকে ২২টি মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এদিকে ঘটনার তদন্তে জরুরিভিত্তিতে গঠিত কমিটির সদস্যরা দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধান শুরু করেছেন বলে জানিয়েছে দেশটির খারকিভ প্রদেশের গভর্নর অলেস্কি কুশার। প্রাথমিক অনুসন্ধানে পাওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে কুশার জানান, অবতরণের পূর্বে দুই ইঞ্জিন বিশিষ্ট বিমানটির বাম পাশের ইঞ্জিনটি অকেজো হয়ে পড়ে রিপোর্ট করেছিলেন বিমানটিতে থাকা পাইলটদের একজন। তবে একজন অভিজ্ঞ পাইলটের জন্য এটি কোনো জটিল সমস্যা নয়। এমন অপ্রত্যাশিত ঘটনার বিস্তারিত তথ্য অনুসন্ধানের ব্যাপারে জোর তৎপরতা অব্যাহত থাকবে।

তিনি আরো জানান, অবতরণকালে মাটির কাছাকাছি নেমে আসলে বিমানটিতে থাকা ২/৩ জন মাটিতে ঝাঁপিয়ে পড়ে প্রাণে রক্ষা পান।

এদিকে রয়টার্স জানিয়েছে, যে মহাসড়কের পাশে বিমানটি বিধ্বস্ত হয় সেখানে উপস্থিত বেশ কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী ঘটনা সম্পর্কে তথ্য জানিয়ে বলেছেন, বিধ্বস্ত হওয়ার পর বিমানের ভেতর থেকে গায়ে আগুন লাগা অবস্থায় এক ব্যক্তি ছুটে বেরিয়ে আসেন। সড়কে চলাচলকারী বেশ কয়েকটি গাড়ির চালকেরা সে সময় গাড়ি থামিয়ে নেমে আসেন। পরে আমরা একত্রে দ্রুত ঘটনাস্থলের দিকে ছুটে গিয়ে সেই ব্যক্তির গায়ের আগুন নেভাতে সক্ষম হই। এছাড়া মাথায় গভীর আঘাত নিয়ে অপর এক যাত্রী বেরিয়ে এলে তাকেও দ্রুত চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠিয়ে দেই।

ইউক্রেনের জরুরি সেবা বিভাগ সূত্রের তথ্য মতে, কারকিভ সামরিক ঘাঁটির দুই কিলোমিটার এলাকার মধ্যে এই ভয়াবহ দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। বিমানটিতে মোট ২৭ জন আরোহী ছিলেন। এই ঘটনায় নিহত সেনা প্রশিক্ষণার্থীদের সকলেই ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক পরিচালিত কারকিভ ইউনিভার্সিটি অব এয়ার ফোর্সের শিক্ষার্থী ছিলেন। 

শনিবার দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলদিমির জেলেনেস্কি দুর্ঘটনাস্থলে প্রদর্শন করবেন বলে এক সরকারি বিবৃতে জানানো হয়েছে।

এসকে