• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ১৪ মাঘ ১৪২৭
প্রকাশিত: নভেম্বর ২২, ২০২০, ০৩:৩৫ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ২২, ২০২০, ০৩:৩৮ পিএম

ত্রিপুরায় বিক্ষোভ দমনে পুলিশের গুলি : নিহত ১, আহত ২৩

ত্রিপুরায় বিক্ষোভ দমনে পুলিশের গুলি : নিহত ১, আহত ২৩
গুলিবিদ্ধ এক বিক্ষোভকারীর অচেতন দেহ সরিয়ে নিচ্ছে সহকারীরা - আজ তাক

ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের কাঞ্চনপুরে ব্রু উপজাতি জনগোষ্ঠীর পুনর্বাসন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে চলমান বিক্ষোভ-অবরোধ কর্মসূচিতে গুলি চালিয়েছে স্থানীয় পুলিশ। এ ঘটনায় শ্রীকান্ত দাস নামে এক বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। এছাড়া পুলিশের গুলিতে আরও অন্তত ২৩ ব্যক্তি আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা বিবিসি'র প্রতিবেদনে শনিবার (২১ নভেম্বর) এ ঘটনা ঘটেছে বলে তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিজোরাম থেকে প্রায় দুদশক আগে পালিয়ে আসা ব্রু উপজাতির প্রায় ৩৫ হাজার মানুষকে ত্রিপুরায় পুনর্বাসন দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। এজন্য গত জানুয়ারিতে কেন্দ্র, রাজ্য ও উপজাতির নেতাদের মধ্যে এক চুক্তিও হয়। কিন্তু কাঞ্চনপুরের স্থানীয় মানুষরা অত সংখ্যক শরণার্থীকে সেখানে পুনর্বাসন দেয়ার বিরোধিতা করছেন। গত সোমবার থেকে কাঞ্চনপুরে অনির্দিষ্টকালের জন্য বনধ যেমন চলছে, তেমনই নিষেধাজ্ঞা ভেঙেই প্রতিদিন মিছিল-মিটিং করছে হাজার হাজার নারী-ছাত্রছাত্রী।

শনিবার পানিসাগর এলাকায় এরকমই একটি মিছিলের ওপরে গুলি চালায় পুলিশ। পুলিশ বলছে, নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মিছিল করা হচ্ছিল। আর সেখান থেকে পুলিশের ওপরে পাথর ছোঁড়া হয়। সেজন্য পুলিশ গুলি চালাতে হয়েছে।

আন্দোলনকারীদের অন্যতম নেতা সুশান্ত বিকাশ বড়ুয়া বলেন, কোনো রকম প্ররোচণা ছাড়াই গুলি চালিয়েছে ত্রিপুরা স্টেট রাইফেলস।

গত ২৩ বছর ধরে ত্রিপুরা ও মিজোরাম সীমান্তের কাঞ্চনপুরে রয়েছেন বহু ব্রু উপজাতি শরণার্থী। তারা গোষ্ঠী সংঘর্ষের কারণে মিজোরাম ছেড়ে ত্রিপুরায় আশ্রয় নিয়েছিল। পূর্বতন বাম সরকারের আমলে তাদের শরণার্থী শিবিরে রাখা হয়েছিল। পুলিশের গুলিতে একজনের মৃত্যুর ঘটনায় উত্তর জেলার কাঞ্চনপুর ও এর সংলগ্ন এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

এসকে