• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন, ২০২১, ১০ আষাঢ় ১৪২৮
প্রকাশিত: মে ১৭, ২০২১, ০৫:১২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মে ১৭, ২০২১, ০৫:২২ পিএম

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্বেগ

অতিরিক্ত কাজের চাপে বছরে ৭ লাখ মৃত্যু

অতিরিক্ত কাজের চাপে বছরে ৭ লাখ মৃত্যু

কর্মক্ষেত্রে অতিরিক্ত চাপের কারণে সৃষ্ট নানাবিধ অসুখে প্রতিবছর ৭ লাখ ৪৫ হাজার মানুষের মৃত্যু হচ্ছে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। গবেষণায় দেখা গেছে, বর্তমানে মস্তিষ্ক ও হৃদরোগের প্রধান কারণ অতিরিক্ত কাজের চাপ।

সোমবার (১৭ মে) বিবিসি এই জরিপ প্রকাশ করে। ২০১৬ সাল থেকে পরিচালিত জরিপে ডব্লিউএইচও আরও জানায়, বিশ্বজুড়ে চাকরিজীবীদের স্ট্রোক ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি প্রতিনিয়ত বাড়ছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, সপ্তাহে ৫৫ ঘণ্টা বা তারও বেশি সময় কাজ করার ফলে মানুষের স্ট্রোকের সম্ভাবনা ৩৫ ভাগ পর্যন্ত বেড়ে যেতে পারে। এছাড়া হৃদরোগসহ অন্যান্য স্বাস্থ্য জটিলতা বাড়ে শতকরা ১৭ ভাগ পর্যন্ত। তবে যারা সপ্তাহে মোট ৪০ ঘণ্টা কাজ করেন, তাদের ক্ষেত্রে এই ঝুঁকি অনেকটাই কম।

জনস্বাস্থ্যের ওপর কাজের প্রভাব নিয়ে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) ও ডব্লিউএইচওর পরিচালিত প্রথম জরিপ এটি। সমীক্ষায় আরও দেখা গেছে, দীর্ঘ সময় কাজ করার ফলে অসুস্থ হয়ে মারা যাওয়াদের ৪ ভাগের ৩ ভাগই মধ্যবয়সী ও বয়স্ক পুরুষ।

গবেষকরা জানান, স্বাস্থ্যের ওপর অতিরিক্ত কাজের চাপের এই প্রভাব শেষ বয়সে গিয়ে আরও প্রকট হতে থাকে। অর্থাৎ অবসরে যাওয়ার কয়েক দশক পরও কর্মজীবনের চাপ মৃত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

তাই কর্মক্ষেত্রে স্বাস্থ্যঝুঁকির প্রধান কারণ হিসেবে অতিরিক্ত কর্মঘণ্টাকেই দায়ী করেছে আইএলও। গবেষকদের দাবি, কর্মীদের এক-তৃতীয়াংশ রোগই কাজের চাপে হয়ে থাকে।

লকডাউনে বিভিন্ন দেশে শতকরা ১০ ভাগ পর্যন্ত কাজের চাপ বেড়েছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছেন গবেষকরা। আর তাই কর্মীদের স্বাস্থ্য নিয়ে সব প্রতিষ্ঠানকে আরও সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

আরও পড়ুন