• ঢাকা
  • সোমবার, ২৩ মে, ২০২২, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
প্রকাশিত: নভেম্বর ৬, ২০২১, ১২:১৬ এএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ৫, ২০২১, ০৬:১৬ পিএম

১০ বছরের মধ্যে এবারই খাবারের দাম সবচেয়ে বেশি : জাতিসংঘ

১০ বছরের মধ্যে এবারই খাবারের দাম সবচেয়ে বেশি : জাতিসংঘ
ফাইল ফটো

গত এক দশকের মধ্যে এবারই বিশ্বে খাবারের দাম সবচেয়ে বেশি।

গত বছরের তুলনায় বিশ্বজুড়ে খাবারের দাম বেড়েছে প্রায় ৩০ শতাংশ বলছে জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও)। 

এফএও বলছে, সবচেয়ে বেশি দাম বেড়েছে খাদ্যশস্য ও ভোজ্য তেলের। অক্টোবরে ভোজ্য তেলের দাম প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছেছে।

পণ্য সরবরাহ সমস্যা, দাম বেড়ে যাওয়া, কারখানা বন্ধ হওয়া এবং বিভিন্ন দেশে রাজনৈতিক উত্তেজনার কারণে খাবারের দাম বেড়ে যাচ্ছে।  

জাতিসংঘের সংস্থাটির মতে, খাদ্যশস্যের দাম এক বছর আগের তুলনায় প্রায় ২২ শতাংশ বেড়েছে।

গত ১২ মাসে গমের দাম ৪০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, যা খাদ্যশস্যের দাম বাড়ায় বড় ধরনের ভূমিকা রেখেছে। দাম বাড়ার আরেকটি কারণ হলো, প্রধান রফতানিকারক দেশ কানাডা, রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রে গমের আবাদ কম হয়েছে।

এফএও'র দাবি, খাদ্যশস্য উৎপাদন কমে যাওয়ার পেছনে জলবায়ু পরিবর্তন দায়ী।

অস্ট্রেলিয়ার 'কার্টিন বিজনেস স্কুল' এর কৃষিবাণিজ্য বিশেষজ্ঞ পিটার ব্যাট বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে খাদ্যশস্যের উৎপাদন কমে যাচ্ছে। বিশ্বের অনেক জায়গায় আমরা শস্য উৎপাদনে কয়েক বছর ধরে খুব খারাপ সময় পার করেছি।

পাম, সয়াবিন, সূর্যমূখীর তেল ও সরিষার দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় ভোজ্য তেলের দাম বাড়ছে। এছাড়া শ্রমিক সঙ্কটের কারণেও খাবার উৎপাদন ও বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে পরিবহনের ব্যয় বেড়েছে। এবং এসব কারণেও খাবারের দাম বেড়ে যাচ্ছে।

এর আগে জাতিসংঘ জানিয়েছিল, ২০২০ সালে বৈশ্বিক ক্ষুধা পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে, যার বেশিরভাগই সম্ভবত কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাবের সঙ্গে সম্পর্কিত। যদিও মহামারির প্রভাব এখনও পুরোপুরি খতিয়ে দেখা হয়নি।

কয়েকটি সংস্থার (মাল্টি-এজেন্সি) এক যৌথ প্রতিবেদনের হিসাব অনুযায়ী, বৈশ্বিক জনসংখ্যার প্রায় ১০ ভাগ বা ৮১ কোটি ১০ লাখ মানুষ গত বছর অপুষ্টিতে ভোগে। সংখ্যাটি এটাই নির্দেশ করছে যে, ২০৩০ সালের মধ্যে পৃথিবীকে ক্ষুধামুক্ত করার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে হলে বিশ্বকে ব্যাপক প্রচেষ্টা গ্রহণ করতে হবে। বিবিসি।

জাগরণ/এসএসকে/এমএ