• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই, ২০২২, ২১ আষাঢ় ১৪২৯
প্রকাশিত: জুন ২১, ২০২২, ০২:০৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ২১, ২০২২, ০২:০৬ পিএম

মহানবীকে (সা.) কটূক্তি : মমতার বিধানসভায় নিন্দা প্রস্তাব পাস  

মহানবীকে (সা.) কটূক্তি : মমতার বিধানসভায় নিন্দা প্রস্তাব পাস  

মহানবী হজরত মোহাম্মদকে (সা.) নিয়ে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নেত্রী নূপুর শর্মার মন্তব্যের নিন্দা জানিয়ে প্রস্তাব পাস করেছে পশ্চিমবঙ্গের বিধান সভা। সোমবার (২০ জুন) এ নিন্দা প্রস্তাব পাস করা হয়।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিধানসভায় ভাষণ দেওয়ার সময় শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে বিজেপি নেতারা প্রতিবাদ করতে থাকেন।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, রাজ্যে সহিংসতা হওয়ায় আমরা ব্যবস্থা নিয়েছিলাম। কিন্তু এই নারীকে (নূপুর শর্মা) এখনও গ্রেপ্তার করা হলো না কেন? আমি জানি তাকে গ্রেপ্তার করা হবে না। কলকাতা পুলিশের কাছে চার সপ্তাহ সময় চেয়েছেন তিনি। আজ তার পুলিশের সামনে হাজির হওয়ার কথা ছিল।

মহানবীকে (সা.) সম্পর্কে নিজের বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য প্রাণনাশের হুমকির থাকায় কলকাতা পুলিশের সামনে হাজির হতে চার সপ্তাহের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করেছেন নূপুর শর্মা।

রাজ্য বিধানসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে মুখমন্ত্রী মমতা বলেন, বিজেপি উসকানি ও ঘৃণার রাজনীতি করে।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, বিজেপি বেকারত্বের মূল ইস্যুটির দিকে নজর দিচ্ছে না। বিজেপি অগ্নিপথের মাধ্যমে তাদের কর্মী তৈরির চেষ্টা করছে। আমরা সেনাদের স্যালুট জানাই। তারা প্রতিরক্ষায় কাজ করবে এবং তারা প্রশিক্ষণের সময় অস্ত্র ব্যবহারের কৌশল শিখবে। তারপর, চার বছর পরে, তারা বাদ পড়ে যাবে।

বিজেপিকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, তারা ১৭ হাজার চাকরির কথা বলে। এটা কখন হবে? আমরাই অনেক কাজ দিতে পারি, আমাদের আপনার সামনে মাথা নত করতে হবে না।

রাজ্য সরকার ওই নিন্দা প্রস্তাব পাস করলে বিজেপি নেতারা সেসময় বিধান সভা থেকে ওয়াকআউট করেন (বেরিয়ে যান)।

নূপুর শর্মা যখন ক্ষমতাসীন বিজেপির মুখপাত্র ছিলেন, তখন তিনি একটি টিভি বিতর্কে নবি মুহাম্মদ সম্পর্কে একটি মন্তব্য করেন, যা নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক শুরু হয়। কাতার, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানসহ অনেক দেশ এই মন্তব্যের জন্য ভারতকে নিন্দা জানিয়েছে। পরে তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। তার বক্তব্যের প্রতিবাদে ভারতজুড়ে বিক্ষোভের জন্ম দেয়।

সূত্র : ইন্ডিয়া টুডে