• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১১ আশ্বিন ১৪২৯
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২২, ০১:০৪ এএম
সর্বশেষ আপডেট : সেপ্টেম্বর ২১, ২০২২, ০৭:০৪ পিএম

গোয়াতে নজরবন্দি ৫ বাংলাদেশি

গোয়াতে নজরবন্দি ৫ বাংলাদেশি

অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ ও গত ১০ বছরের বেশি সময় ভারতে বসবাসের অভিযোগে ৫ বাংলাদেশি নাগরিককে নজরবন্দির নির্দেশ দিয়েছে গোয়ায় অবস্থিত ‘ফরেনার্স রিজিওনাল রেজিস্ট্রেশন অফিস’ বা (এফআরআরও)।

এই পাঁচ বাংলাদেশি হলেন মোহাম্মদ আনোয়ার আখন, হিলাল আখন, হাসান মিয়া, নুরজাহান বেগম ও রাজা আখন। বাংলাদেশ থেকে ভারতের অনুপ্রবেশের পর প্রথম পাঁচ বছর ব্যাঙ্গালোরে থাকলেও শেষ পাঁচ বছর গোয়াতে ভাঙারি (টিন ভাঙ্গা, লোহা ভাঙ্গা) সংগ্রহের কাজ করতেন তারা।  

বিদেশিদের কাছে জনপ্রিয় ভারতের গোয়াতে বাংলাদেশিসহ আবৈধভাবে বসবাসকারী বিদেশি নাগরিকদের গতিবিধির উপর সম্প্রতি নজর রাখা ও তাদের চিহ্নিতকরণের ব্যাপারে কাজ শুরু করেছে পুলিশের সন্ত্রাস দমন শাখা বা অ্যান্টি টেররিজম স্কোয়াড (এটিএস)।

গোয়া পুলিশের এটিএসের পুলিশ ইন্সপেক্টর ভিলেশ দূর্ভাতকারসহ অন্য সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তাদের দাবি, গ্রেফতাররকৃত পাঁচ নাগরিকই বাংলাদেশি। বেশ কিছুদিন ধরে তাদের উপরে নজরদারি চালানো হয়। শেষ পাঁচ বছর ধরে গোয়ার বিচোলিম এলাকায় এবং তার আগের পাঁচ বছর ব্যাঙ্গালোরের ভাল্পই এলাকায় বসবাস করছিলেন তারা। বিষয়টি এটিএসের নজরে আসতেই এফআরআরও কে অবহিত করা হয়। 

এফআরআরও থেকে জানানো হয়েছে, বিচোলাম পুলিশকে তাদের গতিবিধির উপর নজর রাখতে বলা হয়েছে। প্রতিমাসে ওই পাঁচ বাংলাদেশির নজরবন্দির মেয়াদ  বাড়ানো হবে এবং মেয়াদ বাড়ানোর সময় ওই বাংলাদেশিদের সন্ধান পাওয়া না গেলে তৎক্ষণাৎ তাদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হবে।

আর এই সময়কালে তাদের বাংলাদেশস্থ ঠিকানা, সেখানকার স্থানীয় থানা পুলিশসহ বিভিন্ন নথি সংগ্রহ করা হবে। পাশাপাশি ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বাংলাদেশ হাইকমিশনের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের জরুরি ভিত্তিতে ট্রাভেল ডকুমেন্টস তৈরি করা হবে। কারণ এই ৫ নাগরিকের ভারতে প্রবেশের কোনো বৈধ পাসপোর্ট ভিসা বা নথি নেই। প্রয়োজনীয় এই নথি তৈরির পরে ওই পাঁচ নাগরিককে বিএসএফের হাতে তুলে দেয়া হবে এবং পরবর্তী পর্যায়ে আইন অনুযায়ী তাদের বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হবে।

জাগরণ/আন্তর্জাতিক/কেএপি