• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৮, ২০২২, ০২:২৯ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ডিসেম্বর ৮, ২০২২, ০৮:২৯ এএম

১৫ বছর পর গেরুয়া মুক্ত দিল্লি

১৫ বছর পর গেরুয়া মুক্ত দিল্লি
ছবি ● সংগৃহীত

ভারতের ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টিকে (বিজেপি) হারিয়ে দিল্লি পৌরসভায় নতুন করে ঘাঁটি গাড়ল কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি (আপ)। এরই মধ্যদিয়ে রাজধানী দিল্লিতে গেরুয়া শিবিরের টানা দেড় দশকের পৌর-শাসনকালের সমাপ্তি ঘটলো।

ওয়ার্ড সংখ্যার বিচারে গতবারের ভোটে আপের প্রাপ্তি ছিল ৪৮ (২৭০ আসনে ভোট হয়েছিল)। এবার ২৫০ আসনের মধ্যে আপ জিতেছে ১৩৪টি আসন। ২০১৭-এর তুলনায় ৮৬টি বেশি আসন পেয়েছে দলটি। 

ভারতীয় নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইট বলছে, পৌরসভায় আপ এ বছর পেয়েছে ৪২.২ শতাংশ ভোট। ২০১৭ সালের পৌরভোটে আপ পেয়েছিল মাত্র ২৬.২৩ শতাংশ ভোট।

শতাংশের বিচারে ভোট বেড়েছে বিজেপিরও। তারা পেয়েছে ৩৯.১২ শতাংশ ভোট, যা ২০১৭ সালে ছিল ৩৬.০৮ শতাংশ। তবে ২০১৭ -এর তুলনায় ভোট বাড়লেও, বিজেপির জেতা ওয়ার্ড ১৮২ থেকে নেমে এলো ১০৪-এ।

অন্যদিকে কংগ্রেস পেয়েছে ১১.৬৪ শতাংশ ভোট। গতবার দলটি ভোট পেয়েছিল ২১.০৯ শতাংশ। কংগ্রেসের ওয়ার্ড ছিল ৩০, এবার তা নেমে এলো ৯-এ।

১৯৫৮-য় তৈরি হয় দিল্লির পুরনিগম বা পৌরসভা। ২০১২ সালে এ অঞ্চলকে তিন খণ্ডে ভাঙার সিদ্ধান্ত নেন তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিত। তৈরি হয় এনডিএমসি (উত্তর দিল্লি পুরনিগম), এসডিএমসি (দক্ষিণ দিল্লি পুরনিগম) এবং ইডিএমসি (পূর্ব দিল্লি পুরনিগম)। ২০২২-এর ২২ মে তিন পৌরসভাকে ভেঙে দিয়ে গড়া হয় দিল্লি পুরনিগম বা ‘মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন অফ দিল্লি’ (এমডিসি)। 

সেই সময় রাজধানীর অভ্যন্তরীণ রাজনীতির ওঠাপড়ার সঙ্গে জড়িতদের কেউ কেউ বলেছিলেন, পুরনিগম পুনর্দখলের উদ্দেশেই মোদি এ কাজ করেছেন। কিন্তু এবারের ভোটের ফলাফল বদলে দিয়েছে সেই ধারণা। এনডিটিভি ও আনন্দবাজার।

জাগরণ/আন্তর্জাতিক/এসএসকে