• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: নভেম্বর ৫, ২০১৯, ১০:০৩ এএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ৫, ২০১৯, ১০:০৩ এএম

জিএস পদ থেকে রাব্বানীর অপসারণ চেয়ে আইনি নোটিশ

জাগরণ প্রতিবেদক
জিএস পদ থেকে রাব্বানীর অপসারণ চেয়ে আইনি নোটিশ
রাব্বানী ও রাশেদ- ফাইল ছবি

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক থেকে অপসারণ হওয়া গোলাম রাব্বানীকে ঢাকসুর জিএস পদ থেকে অপসারণ ও ঢাবিতে অবৈধভাবে এমফিলে ভর্তির সব কার্যক্রম বাতিল চেয়ে আইনি (লিগ্যাল) নোটিশ পাঠানো হয়েছে। চাঁদাবাজিসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে এই নোটিশ পাঠান তিনি। নোটিশে তার এমফিলে অবৈধভাবে ভর্তি কার্যক্রমের সঙ্গে কারা জড়িত তাদের বিষয়ে অনুসন্ধানের জন্যও বলা হয়েছে।

সোমবার (০৪ নবেম্বর) ঢাকসুর অপর জিএস প্রার্থী রাশেদ খানের পক্ষে ডাক ও রেজিস্ট্রিযোগে এ নোটিশ পাঠান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হাসনাত কাইয়ুম।

তিনি বলেন, আগামী ৭ দিনের মধ্যে গোলাম রাব্বানীর ছাত্রত্ব বাতিল ও জিএস পদ থেকে অপসারণ করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে সময় দেয়া হয়েছে। অন্যথায় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে কোটা সংস্কার আন্দোলনের অন্যতম নেতা ও ডাকসুর জিএস প্রার্থী রাশেদ খান গণমাধ্যমকে বলেন, ডাকসুর জিএস গোলাম রাব্বানী নিয়মবহির্ভূতভাবে অপরাধবিজ্ঞান বিভাগে এমফিলে ভর্তি হয়েছেন, যা সম্পূর্ণভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম পরিপন্থী। রাব্বানীর ভর্তি নিয়ে বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় কয়েকটি দৈনিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল।

তিনি আরও বলেন, রাব্বানীর ভর্তি পরীক্ষার বিষয় বিভাগীয় চেয়ারম্যান ও উপাচার্য ছাড়া কেউই জানেন না। ভর্তি নিয়ে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন সাদেকা হালিম ম্যাম কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন। এতে প্রমাণিত হয় যে, ডাকসুর জিএস অবৈধ পন্থা অবলম্বন করে ছাত্রত্ব নিয়েছেন। আজ আদালতের মাধ্যমে লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছি। নোটিশে উল্লেখিত তারিখের মধ্যে জবাব দিতে না পারলে আমরা আদালতে রিট পিটিশন করব।

একটি জাতীয় দৈনিকের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর এমফিল (মাস্টার অব ফিলোসফি) ভর্তিতে অনিয়ম করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধবিজ্ঞান বিভাগের এমফিলের ছাত্র হিসেবে তিনি ডাকসু নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন।

কিন্তু ঢাবির এমফিল প্রোগ্রামে ভর্তির নিয়ম অনুযায়ী, কোনো শিক্ষার্থী এমফিলে ভর্তি হতে চাইলে সংশ্লিষ্ট বিভাগে আবেদনের পর বিভাগের একাডেমিক কমিটি, অনুষদ সভা, বোর্ড অব অ্যাডভান্স স্টাডিজের সভার সুপারিশের পর একাডেমিক পরিষদের সভায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

গোলাম রাব্বানীকে এমফিলে ভর্তির ক্ষেত্রে অনুষদ সভার সুপারিশ ছিল না। এমনকি বোর্ড অব অ্যাডভান্স স্টাডিজ ও একাডেমিক পরিষদের নিয়মিত যে এজেন্ডা, সেখানেও তার নাম পাওয়া যায়নি।

আরও জানা যায়, রাব্বানী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে ২০০৭-০৮ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হয়েছিলেন। ২০১৩ সালে তার স্নাতকোত্তর শেষ হয়। এরপর এমফিলে ভর্তি হয়ে তিনি গত ১১ মার্চ ডাকসু নির্বাচনে অংশ নেওয়ার যোগ্যতা অর্জন করেন। ওই নির্বাচনে জিএস নির্বাচিত হন তিনি। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন প্রকল্প থেকে চাঁদা দাবিসহ বিভিন্ন অভিযোগে গত ১৪ সেপ্টেম্বর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ ছাড়েন গোলাম রাব্বানী।

এমএ/টিএফ

আরও পড়ুন